২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

আয়োজক হতে জার্মানিও বিপুল অর্থ দিয়েছিল ফিফাকে!

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ ২০০৬ বিশ্বকাপ অনুষ্ঠিত হয়েছিল জার্মানিতে। তবে আয়োজক হওয়ার জন্য ফিফাকে ৬.৭ মিলিয়ন ইউরো দিতে হয়েছিল জার্মান ফুটবল ফেডারেশনকে (ডিএফবি)। এমনটাই দাবি করেছে দেশটির ফুটবল নিয়ন্ত্রক সংস্থা। ২০০৬ বিশ্বকাপ আয়োজক হওয়ার লড়াইয়ে যেসব দেশ লড়েছে সেসব দেশের অবকাঠামো পর্যবেক্ষণের সময়ই ফিফাকে ওই অর্থ দেয়া হয়েছিল বলে দাবি ডিএফবির। বর্তমানে ফিফার বিরুদ্ধে নানাবিধ দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে। তার সঙ্গে এবার যোগ হলো ডিএফবির এই দাবিটাও। সম্প্রতি ফিফার বিরুদ্ধে বিভিন্ন বড় ইভেন্ট আয়োজন নিয়ে দুর্নীতির অভিযোগ জোরেশোরেই উঠেছে। এ কারণে সভাপতি সেপ ব্লাটারের আসন হয়ে গেছে নড়বড়ে। পদত্যাগের ঘোষণা দিয়েও রক্ষা হয়নি। তাঁকে তিন মাসের জন্য সব ধরনের ফুটবল কর্মকা- থেকে নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে। যদিও ব্লাটার ওই নিষেধাজ্ঞাকে চ্যালেঞ্জ করে আপীল করেছেন। কিন্তু ইতোমধ্যেই ব্লাটারের স্থলাভিষিক্ত হিসেবে অন্তর্বর্তীকালীন দায়িত্ব নিয়ে সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন ইসা হায়াতু। পরবর্তী নির্বাচন না হওয়া পর্যন্ত তাঁর অধীনেই চলবে বিশ্ব ফুটবলের সর্বোচ্চ এ নিয়ন্ত্রক সংস্থার কার্যকলাপ। ব্লাটারের বিরুদ্ধে ফৌজদারি অপরাধ তদন্ত শুরু হওয়ার পরই মূলত তাঁকে অব্যাহতি দেয় ফিফার এথিকস কমিটি। তাঁর উত্তরসূরি হিসেবে পরবর্তীতে প্রেসিডেন্ট হওয়ার লড়াইয়ে বেশ এগিয়েছিলেন মিশেল প্লাতিনি। কিন্তু এবার অভিযোগ, প্লাতিনি অবৈধভাবে ২.১ মিলিয়ন সুইস ফ্রাঙ্ক গ্রহণ করেছেন ব্লাটারের কাছ থেকে। ঘুষ নেয়া এবং দেয়ার জন্য উভয়েই এখন তিন মাসের নিষেধাজ্ঞায় পড়েছেন। কিন্তু অভিযোগ বেরোতে বেরোতে পাহাড় হয়ে যাচ্ছে তা ব্লাটারের জন্য। এবারের অভিযোগ ডিএফবির। ২০০৬ বিশ্বকাপ আয়োজক হওয়ার জন্য ৬.৭ মিলিয়ন ইউরো দিতে হয়েছে তাদের ফিফাকে ঘুষ হিসেবে। ২০০৫ সালের এপ্রিলে ডিএফবি ফিফা পর্যবেক্ষক প্রতিনিধিদের ৬.৭ মিলিয়ন ইউরো প্রদান করেছিল। ওই অর্থটা ফিফার বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে কাজে লাগানো হবে বলে জানানো হয়েছিল। তবে পরবর্তীতে সেই অর্থটা এমন কোন কাজে ব্যবহৃত হয়নি। ডিএফবি এ বিষয়ে বলেছে, ‘পাঁচ বছর আগে যে কারণে আমাদের কাছ থেকে অর্থটা নেয়া হয়েছিল সেটার কোন কর্মকা- আমরা দেখিনি।’ জার্মানির একটি সাপ্তাহিক তাদের প্রতিবেদনে দাবি করে, জার্মানির বিড কমিটি জার্মান ক্রীড়াসামগ্রী নির্মাতা প্রতিষ্ঠান এ্যাডিডাসের প্রয়াত সিইও রবার্ট লুইস ড্রেইফাসের কাছ থেকে ১০.৩ মিলিয়ন সুইস ফ্রাঙ্ক ঋণ নিয়েছিলেন। আর এই অর্থটা কাজে লাগানো হয়েছিল ফিফার চারটি এশিয়ান ফুটবল এ্যাসোসিয়েশনের ভোট কেনার জন্য। ২০০০ সালের জুলাইয়ে ভোটাভুটিতে দক্ষিণ আফ্রিকাকে ১২-১১ ভোটে হারিয়ে আয়োজক হওয়ার পুরস্কারটা পেয়েছিল জার্মানি।