১৭ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

প্রথম দিনেই অলআউট খুলনা রাজশাহী বরিশাল

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ জাতীয় ক্রিকেট লীগের (এনসিএল) চতুর্থ রাউন্ডের প্রথম দিনেই ভরাডুবি হয়েছে খুলনা, রাজশাহী ও বরিশালের। শুধু ম্যাচের প্রথম ইনিংসে খেলতে নেমে প্রথম দিনে গুড়িয়ে যায়নি ঢাকা মেট্টো, রংপুরের বিপক্ষে ৭ উইকেটে ২১১ রান করেছে ঢাকা মেট্টো। ঢাকা বিভাগের বিপক্ষে ১১৭ রানে খুলনা, চট্টগ্রামের বিপক্ষে ২০৮ রানে রাজশাহী ও সিলেটের বিপক্ষে ১৫৫ রানে অলআউট হয়ে গেছে বরিশাল। এই প্রথম এবারের লীগে এমনটি হলো, প্রথম দিনে কোন শতকের দেখা মিলল না।

প্রথম স্তর ॥ খুলনা ও ঢাকা বিভাগের মধ্যে প্রথম স্তরের শীর্ষে থাকার লড়াই চলছে। ফতুল্লার খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়ামে এ দুই দলের মধ্যকার ম্যাচই হচ্ছে। তাতে প্রথম দিনে ঢাকা-ই বাজিমাত করেছে। ইমরুল কায়েস ২৭ ও নুরুল হাসান ২৬ রান করা ছাড়া আর কোন ব্যাটসম্যানই দাঁড়াতে পারেননি। মাসুম খান একাই ৪ উইকেট তুলে নিয়েছেন। খুলনাকে অলআউট করে দিয়ে প্রথম দিন শেষ হওয়ার আগে জয়রাজ শেখের অপরাজিত ৪৯ রানে ৩ উইকেটে ৭৭ রান করেছে ঢাকা। খুলনা থেকে এখন ৪০ রানে পিছিয়ে আছে ঢাকা। বল হাতে খুলনার মুস্তাফিজুর রহমান ২ উইকেট নিয়েছেন। খুলনার শেখ আবু নাসের স্টেডিয়ামে ঢাকা মেট্টোও বিপাকেই আছে। তবে প্রথম দিনেই গুঁড়িয়ে যায়নি। ৩ উইকেট করে নেয়া রংপুরের সনজিত সাহা ও তানভির হায়দারের বোলিং তোপে পড়ে ১৯৯ রানেই ৭ উইকেট হারায় ঢাকা মেট্টো। দিন শেষ হওয়ার আগে আরও ১২ রান যোগ করে। আসিফ আহমেদ ৫৬ ও শামসুর রহমান ৫১ রান করেন।

দ্বিতীয় স্তর ॥ চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে সফরকারী রাজশাহী বিপাকে পড়ে গেছে। চট্টগ্রামের ইফতেখার সাজ্জাদ (৫/৬৩) এতটাই দুর্দান্ত বোলিং করেছেন যে, তার বোলিংয়ের সামনে রাজশাহীর ব্যাটসম্যানরা কুলিয়ে উঠতে পারেননি। তাই প্রথম দিনেই দলটি ২০৮ রানে গুটিয়ে গেছে। নাজমুল হোসেন শান্ত সর্বোচ্চ ৬৩ রান করেন। এরপর ব্যাট করতে নেমে কোন উইকেট না হারিয়ে তামিম ইকবালের অপরাজিত ৩৫ ও নাফিস ইকবালের অপরাজিত ৭ রানে বিনা উইকেটে ৪৩ রান করে ফেলেছে চট্টগ্রাম। ১৬৫ রানে এখনও পিছিয়ে আছে তামিমের দল। বগুড়ার শহীদ চান্দু স্টেডিয়ামে বরিশালের করুণদশা হয়েছে। লীগের চতুর্থ রাউন্ডে খুলনার পর বরিশালেরই সবচেয়ে খারাপ দিন গেছে। সিলেটের বিপক্ষে ১৫৫ রানের বেশি করতেই পারল না। নাসুম আহমেদ একাই ৪ উইকেট নিয়েছেন। আল আমিন সর্বোচ্চ ৩৬ রান নিতে পেরেছেন। এরপর প্রথম ইনিংসে খেলতে নেমে ১ উইকেট হারিয়ে ৪৫ রান করে সিলেট। ১১০ রানে পিছিয়ে রয়েছে সিলেট। ইমতিয়াজ হোসেন অপরাজিত ২৫ রান করেন।

স্কোর ॥ চতুর্থ রাউন্ড-প্রথম দিন শেষে

প্রথম স্তর ॥ ঢাকা-খুলনা ম্যাচ

খুলনা প্রথম ইনিংস ১১৭/১০; ৩৯.৪ ওভার (ইমরুল ২৭, নুরুল ২৬, বক্কর ১৩*, রাজ্জাক ১৩; মাসুম ৪/১১, শরীফ ২/৩৫, মানিক ২/৪৫)।

ঢাকা প্রথম ইনিংস ৭৭/৩; ২৪.১ ওভার (জয়রাজ ৪৯*, মজিদ ১০, মাইশুকুর ৮*; মুস্তাফিজ ২/৩৪)।

ঢাকা মেট্টো-রংপুর ম্যাচ

ঢাকা মেট্টো প্রথম ইনিংস ২১১/৭; ৯২ ওভার (আসিফ ৫৬, শামসুর ৫১, মেহেদী ২২, মেহরাব জুনিয়র ২০, আরাফাত ৯*, জাবিদ ৮*; সনজিত ৩/৪৩, তানভির ৩/৭৩)।

দ্বিতীয় স্তর ॥ চট্টগ্রাম-রাজশাহী ম্যাচ

রাজশাহী প্রথম ইনিংস ২০৮/১০; ৭২ ওভার (শান্ত ৬৩, জুনায়েদ ৩৩, শাখির ২৮, মুশফিক ২৪; ইফতেখার ৫/৬৩, রানা ২/৪৮)।

চট্টগ্রাম প্রথম ইনিংস ৪৩/০; ১৪ ওভার (তামিম ৩৫*, নাফিস ৭*)।

বরিশাল-সিলেট ম্যাচ

বরিশাল প্রথম ইনিংস ১৫৫/১০; ৫৫ ওভার (আল আমিন ৩৬, কবির ২১*, সালেহ ২১, শাহিন ১৭; নাসুম ৪/৩২, খালেদ ২/২৮, কাপালী ২/৩৩)।

সিলেট প্রথম ইনিংস ৪৫/১; ২০ ওভার (ইমতিয়াজ ২৫*, সায়েম ১১, জাকির ৯*)।

নির্বাচিত সংবাদ