১৩ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

চাষী নজরুলের ‘অন্তরঙ্গ’ চলচ্চিত্রের অডিও এ্যালবামের প্রকাশনা

সংস্কৃতি ডেস্ক ॥ প্রয়াত পরিচালক চাষী নজরুল ইসলামের শেষ চলচ্চিত্র ‘অন্তরঙ্গ’ মুক্তি পাচ্ছে আগামী ৬ নবেম্বর। চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন ইমন ও আলিশা প্রধান। ‘অন্তরঙ্গ’ চলচ্চিত্রে প্রধান খলনায়ক চরিত্রে অভিনয় করছেন অমিত হাসান। এ ছাড়া এর মাধ্যমে চলচ্চিত্রে অভিষেক ঘটতে চলছে আলিশা প্রধানের। চলচ্চিত্রটির প্রযোজকও তিনি। শুক্রবার ঢাকার স্প্রেকটা কনভেনশন সেন্টারে চলচ্চিত্রটির অডিও সিডি প্রকাশনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু, পরিচালক আমজাদ হোসেন, সোহানুর রহমান সোহান, চাষী নজরুল ইসলামের স্ত্রী জোৎস্না কাজী, অভিনেতা অমিত হাসান, ওমর সানী, ইমন, অভিনেত্রী আলিশা প্রমুখ। অনুষ্ঠানে পরিচালক চাষী নজরুল ইসলামের স্ত্রী জোৎস্না কাজী জানান, চলচ্চিত্রটি নির্মাণের শেষ দিকে এসে চাষী গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন। চলচ্চিত্রের সম্পাদনার কাজেও তিনি থাকতে পারেননি। তিনি চলচ্চিত্র পরিবারের সদস্যদের অনুরোধ করেন, প্রয়াত পরিচালকের প্রতি শেষ শ্রদ্ধা জানাতে সবাই যেন সিনেমা হলে গিয়ে সিনেমাটি দেখে আসে। শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক অমিত হাসান বলেন, চাষী যখন ‘অন্তরঙ্গ’ চলচ্চিত্রের শূটিং শুরু করতে যাচ্ছিলেন, তার সহকর্মীদের অনেকেই তির্যক মন্তব্য করেছিলেন। সবাই বলেছিলেন, চাষী নজরুল বাণিজ্যিক চলচ্চিত্র বানিয়ে সফলতা নাও পেতে পারেন। কিন্তু চলচ্চিত্রটি মুক্তির পর হলে আসুন, এটি দেখুন। চাষী নজরুল কত বড় মাপের পরিচালক ছিলেন, তা জানুন। চাষীর দীর্ঘদিনের সহকর্মী পরিচালক আমজাদ হোসেন বলেন, চাষীর প্রতি শেষ শ্রদ্ধা জানাতে শিল্পীদের পাশাপাশি দর্শককেও অনুরোধ জানাই, হলে এসে এটি দেখুন। সিনেমাটি দেখে আলোচনা আর সমালোচনা করুন। চাষী নজরুল ইসলাম ইমন ও আলিশাকে নিয়ে ‘ভুল যদি হয়’ শিরোনামে আরেকটি চলচ্চিত্র নির্মাণ করেছিলেন। অনুষ্ঠানে প্রযোজক ও অভিনেত্রী আলিশা বলেন, ২০১৩ সালের নবেম্বরে শুরু করেছিলাম। এ বছর ৬ নবেম্বর চলচ্চিত্রটি মুক্তি পেতে যাচ্ছে । আমি অবশ্যই অনেক বেশি আনন্দিত। এটা যেহেতু পরিচালক চাষী নজরুল ইসলামের পরিচালিত শেষ চলচ্চিত্র, তাই এর সঙ্গে অনেক আবেগ জড়িয়ে আছে সবার। মডেল, ছোট পর্দার অভিনেত্রী থেকে বড় পর্দায় নিয়ে আসার জন্য চাষী নজরুলের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান এই নবাগতা।

অনুষ্ঠানে তথ্যমন্ত্রী বলেন, বিব্রতভাব নিয়েই আমরা কাজ করছি। সমালোচনাকে গ্রহণ করতে হয়। আমার ধারণা, সমালোচনার সহিষ্ণুতা একটা ইতিবাচক পথ দেবে। সমালোচনাকে মাথা পেতে নিয়ে কিভাবে জগতের পুনরুজ্জীবন করবো, এটা নিয়ে সবারই সম্মিলিত প্রচেষ্টা গ্রহণ করা দরকার। এটাও স্বীকার করে নিলেন যে, চলচ্চিত্রাঙ্গনের উন্নয়নের জন্য নানাবিধ পদক্ষেপ নেয়া হলেও তার ছোঁয়া এখনও অতটা লাগেনি। আরও বললেন, নতুন ঘর তৈরি করা সহজ, ভাঙ্গা ঘর মেরামত করা কঠিন কাজ। আমি যখন তথ্য মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব নিই, তখন আমাকে বলা হলো, আপনাকে চলচ্চিত্র, রেডিও, টিভিকে গুছিয়ে দিতে হবে। এই কাজটি আমি একা যে পারবো না নিশ্চিতভাবে আমি বুঝি। আমাদের এই প্রস্তুতি ক্ষণে সোহানুর রহমান সোহান, আমজাদ হোসেন, অমিত হাসান, ওমর সানিরা আমাদের সমালোচনা করবেন, পরামর্শ দেবেন। তিনি বলেন, ঈদের চলচ্চিত্র পাইরেসি হয়ে গেল। প্রযোজক আমাকে বলেনি। আমি দুঃখ পেয়েছি। কিন্তু কেবল অপারেটররা তা পাইরেটেড করে দেখাচ্ছে, এটা তো ঠিক না। চলচ্চিত্রের পুনরুজ্জীবনের স্বার্থে নবীন-প্রবীণদের একযোগে কাজ করার আহ্বান জানিয়ে মন্ত্রী তরুণদের প্রতি আরও বেশি মনোযোগী হতে সিনিয়রদের অনুরোধ করেন।