২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় নীলগিরির নীলে একদিন

বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসজীবন মানেই ক্লাস, পরীক্ষা, এ্যাসাইনমেন্টে ব্যস্ত সময় পার করা। এগুলো শেষ করে আবার ব্যাগ কাঁধে ঝুলিয়ে হলে যাওয়া। বিশ্ববিদ্যালয়ের আড্ডার স্থানগুলোতে যেন ব্যতিক্রম নেই। সেই জব্বারের মোড়, টিএসসি, লাইব্রেরি, নদীর পাড়, বিজয় একাত্তর, মরণসাগর, কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার, হতাশার মোড়, ছাত্রীনিবাসের সামনের রোড, কে আর মার্কেট, সন্ধ্যাভর গ্রুপিং অথবা দুই যুগল মিলে আড্ডা। সারাদিনের ব্যস্ততা শেষে রাতে ক্লান্তি এসে জড়ো হয় শরীরে। পরদিন ক্লাস টেস্ট অথবা এ্যাসাইনমেন্ট থাকলে টুকটাক পড়াশোনা। এরপর গভীর ঘুম। এটাই বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাস জীবনের আনন্দ। মাঝে মধ্যে এটা আবার একঘেয়েমিতে রূপ নেয়। আর ওই একঘেয়েমি জীবনে কর্মচাঞ্চল্য ফিরিয়ে আনতে আয়োজন করা হলো শিক্ষা সফরের। স্থানটি হল বান্দরবনের নৈসর্গিক সৌন্দর্যের আঁধার নীলগিরি। নীলগিরির অপরূপ সৌন্দর্যে মাতে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের কৃষি অনুষদের শিক্ষার্থীরা।

নীলগিরি সমন্ধে : সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ২২০০ ফুট উচ্চে অবস্থানের কারণে নীলগিরি পর্যটন কেন্দ্র সর্বদা মেঘমত আর এটাই এই পর্যটন কেন্দ্রের বিশেষ আকর্ষণ। একবিংশ শতাব্দীর শুরু থেকে নীলগিরি ধীরে ধীরে দেশব্যাপী মানুষের কাছে পর্যটন কেন্দ্র হিসাবে পরিচিত লাভ করতে শুরু করে। এই পুরো পর্যটন কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করেছিল বাংলাদেশ সেনাবাহিনী এবং তারাই এর পরিচালনা করে থাকেন। এই পর্যটন কেন্দ্রটি বান্দরবান জেলা সদর থেকে ৫০ কিলোমিটার দূরে কাফ্রুপাড়াসংলগ্ন পাহাড় চূড়ায় অবস্থিত। বান্দরবানের আলীকদম থেকে থানচিগামী রাস্তা ধরে পাহাড়ি পথে নীলগিরি পৌঁছানো যায়।

¡ আবুল বাশার মিরাজ

মেধাবী মুখ

সুইডিশ আর্টস কাউন্সিলের ফেলোশিপ লাভ

অনন্যার স্বত্বাধিকারী মনিরুল হক সুইডিশ আর্টস কাউন্সিল গোথেনবার্গ গ্রন্থমেলায় অংশগ্রহণের জন্য ফেলোশিপ অর্জন করেছেন। গত ২৩-২৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৫ তারিখে অনুষ্ঠিত মেলায় তিনি বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব গোথেনবার্গ গ্রন্থমেলা চলাকালীন মনিরুল হক প্রকাশনা বিষয়ক নানা সেমিনার-সিম্পোজিয়ামে অংশ নেন। সেই সঙ্গে নানা দেশের প্রকাশক ও লেখকদের সঙ্গে প্রকাশনা বিষয়ে অভিজ্ঞতা বিনিময় করেন। আর্টস কাউন্সিল এ বছর ১৯টি দেশের ২১ জন প্রকাশকে এই ফেলোশিপ দিয়ে সম্মানিত করেছে। অনন্যার প্রকাশিত গ্রন্থের সংখ্যা এক হাজার সাতশ’ পঞ্চাশ এর কাছাকাছি।