২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

শরণার্থী প্রবেশ ঠেকাতে ইইউ প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান তুরস্কের

শরণার্থী আগমন বন্ধের বিনিময়ে ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) সদস্যপদ গ্রহণের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেছে তুরস্ক। আঙ্কারা প্রস্তাবটিকে উৎকোচ বলে আখ্যায়িত করেছে। ইউরোপীয় নেতারা শরণার্থী ঠেকানোর জন্য ২শ’ ২০ কোটি পাউন্ডের বিনিময়ে দেশটির সহযোগিতা কেনার প্রস্তাব দেয়ার কয়েক ঘণ্টা পর তুরস্ক তা প্রত্যাখ্যান করে। খবর টেলিগ্রাফ অনলাইনের।

ইউরোপীয় নেতারা শনিবার রাতে ভিসা ও নগদ অর্থ প্রদান এবং সদস্যপদের ব্যাপারে আঙ্কারার সঙ্গে নতুন করে আলোচনা শুরুর যে প্রস্তাব দিয়েছেন তাকে হাস্যকর বলে উল্লেখ করেছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেফ তাইপ এরদোগান। ইউরোপের প্রত্যাশা অভিবাসীদের স্রোত ঠেকাতে পারেন একমাত্র এরদোগান। প্রেসিডেন্ট এরদোগান বলেন, ব্রাসেলস তার সহযোগিতা চাইলে তুরস্ককে ইইউর পুরো সদস্যপদ দিতে হবে। তিনি বলেন, ইইউর প্রস্তাব আন্তরিক বলে মনে হয়নি। তিনি বলেন, পাশ্চাত্য ও ইউরোপের নিরাপত্তা ও স্থিতিশীলতা নির্ভর করে আমাদের নিরাপত্তা ও স্থিতিশীলতার ওপর। তারা এখন বিষয়টা মেনে নিয়েছে, আর তাই যদি হয় তা হলে তুরস্ককে কেন ইইউতে নিতে চাইছেন না তারা? সমস্যা স্পষ্ট। তারা আন্তরিক নন। জার্মান চ্যান্সেলর এ্যাঞ্জেলা মেরকেল আঙ্কারার সঙ্গে একটি কার্যকর চুক্তি স্বাক্ষর প্রক্রিয়া ত্বরান্বিত করার পক্ষে এ সপ্তাহে তুরস্ক সফরের প্রস্তুতি নিলে এরদোগান সদস্যভুক্তির ব্যাপারে এ দরকষাকষি শুরু করেন।

কূটনৈতিক সূত্র জানায়, মিসেস মেরকেল চুক্তি স্বাক্ষরে একটা চূড়ান্ত ভূমিকা নেবেন। কিন্তু বিশ্লেষকরা সতর্ক করে দিয়ে বলেছেন, তুরস্ক ও কয়েকটি ইইউ রাষ্ট্রের মধ্যে এখনও রাজনৈতিক প্রতিবন্ধকতা রয়েছে সংশ্লিষ্ট বিষয়ে। ইউরোপীয় পরিষদের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড টাস্ক বলেছেন, তুরস্কের সঙ্গে একটি চুক্তি অর্থবহ হবে যদি শরণার্থীদের আগমন প্রবাহের বিষয়টি অন্তর্ভুক্ত করা হয়। সেপ্টেম্বর থেকে এর মধ্যেই প্রায় ৩ লাখ ৫০ হাজার শরণার্থী ও অভিবাসী তুরস্ক থেকে গ্রীস পৌঁছানোর চেষ্টা করেছে। জনমত জরিপে দেখা যায়, সংখ্যাগরিষ্ঠ তুর্কী জনগণ এখন সিরীয় শরণার্থীদের তুরস্কে প্রবেশের বিরোধী।