১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

কুড়িগ্রাম হাসপাতালে নবজাতক নিয়ে তোলপাড়

স্টাফ রিপোর্টার, কুড়িগ্রাম ॥ সদর হাসপাতালে নবজাতক শিশু বদলের অভিযোগে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। কর্তব্যরত চিকিৎসক ও নার্সদের বিরুদ্ধে এ ঘটনায় গুরুতর অভিযোগ ওঠায় স্বাস্থ্য প্রশাসনে তোলপাড় শুরু হয়েছে। গঠন করা হয়েছে তদন্ত কমিটি। তিন দিনের মধ্যে তদন্ত রিপোর্ট জমা দিতে বলা হয়েছে তিন সদস্য বিশিষ্ট কমিটিকে।

কুড়িগ্রাম পৌরসভার নাজিরা মিয়াপাড়া গ্রামের গোলাম মোস্তফা হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক বরাবর লিখিত অভিযোগে বলেন, তার স্ত্রী সুফিয়া বেগমকে প্রসূতি ওয়ার্ডে ভর্তি করার পর শনিবার সকাল পৌনে ১০টার দিকে অপারেশন থিয়েটারে নেয়া হয়। রোগীর সিজার করার পর নার্সরা জানায়, সুফিয়ার ছেলে সন্তান হয়েছে। পরিবারের লোকজনের কাছে ছেলে সন্তানকে হস্তান্তরও করা হয়। শিশুটি অসুস্থ বোধ করলে শিশু বিশেষজ্ঞ ডাঃ বিউটি বেগমকে দেখানো হয়। ৪০ মিনিট পর ডাঃ অমিত কুমার বসু ও নার্সরা এসে জানায়, ছেলে সন্তানটি তার নয়। তার মেয়ে হয়েছে। পরে নার্সরা ছেলে সন্তানটি আরেক প্রসূতি কাকলীকে দিয়ে দেয়। এ ঘটনায় সন্দেহের সৃষ্টি হয়। হাসপাতাল জুড়ে বিভ্রান্তি ছড়িয়ে পড়ে। এত বড় ভুল কিভাবে হলো এ প্রশ্ন ঘুরপাক খায় সর্বত্র।

সুফিয়া বেগম জানান, অপারেশন থিয়েটারে পর পর পাঁচ প্রসূতিকে নেয়া হয়। তবে সবার আগে তার সিজার হয়। তিনি জ্ঞান ফিরে জানতে পারেন তার ছেলে সন্তান হয়েছে। এর আগে তার তিনটি মেয়ে সন্তান আছে। এ নিয়ে সংসারে অশান্তি চলছিল। কিন্তু তার সে সুখ বেশিক্ষণ থাকেনি। নার্সরা তার মাথায় আকাশ ভাঙ্গে। তারা জানায়, ছেলে নয়-তার মেয়ে সন্তান হয়েছে। সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডাঃ অজয় কুমার রায় এ সংক্রান্ত অভিযোগ প্রাপ্তির কথা স্বীকার করেছেন।