১৩ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

চীনের আট জাতি ফুটবলে অংশ নেবে বাংলাদেশ

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ সাফ ফুটবলের প্রস্তুতি হিসেবে আগামী ২০ নবেম্বর থেকে চীনের ইউনান প্রদেশে শুরু হতে যাওয়া আট জাতি একটি ফুটবল টুর্নামেন্টে অংশ নেবে বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দল। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) সাধারণ সম্পাদক আবু নাইম সোহাগ। তাজিকিস্তান এবং অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে বিশ্বকাপ বাছাই ম্যাচের জন্য এই অক্টোবেরর শেষ সপ্তাহে জাতীয় দলের অনুশীলন ক্যাম্প শুরু হবে বলে জানিয়েছে বাফুফে।

পরিকল্পনা ছিল সাফ ফুটবলের প্রস্তুতি হিসেবে মালদ্বীপের ‘প্রমিজ কাপ’-এ অংশ নেবে বাংলাদেশ। কিন্তু বিশ্বকাপ বাছাইয়ের ব্যস্ত সূচীর কারণে এবার টুর্নামেন্টটি আয়োজন করছে না বাফুফে। তবে একই সময়ে চীনের কাছ থেকে বিকল্প প্রস্তাব পাওয়ায় সেখানেই অংশ নেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাফুফে।

চীনের ইউনান প্রদেশে অনুষ্ঠিতব্য এই টুর্নামেন্টটি শেষ হবে ৩০ নবেম্বর। যেখানে অংশ নেয়া দলগুলোর তালিকায় রয়েছে মালয়েশিয়া, মিয়ানমার, থাইল্যান্ড, শ্রীলঙ্কা, কম্বোডিয়া, আফগানিস্তান এবং লাওস। তবে তাদের ক্লাব না জাতীয় দল সেখানে প্রতিনিধিত্ব করবে কি না, তা স্পষ্ট করেনি আয়োজক কমিটি। কিন্তু টুর্নামেন্টটিতে যে বাংলাদেশের জাতীয় দল অংশ নিচ্ছে, তা নিশ্চিত করেছে বাফুফে।

কিরগিজস্তানের বিপক্ষে বিশ্বকাপ বাছাই ম্যাচের পর আবারও শুরু হতে যাচ্ছে ফুটবলারদের অনুশীলন ক্যাম্প। জাতীয় দলের ২৩ ফুটবলারের পাশপাশি এবারের ক্যাম্পে আরও ডাকা হবে ১৭ ফুটবলারকে। মোট ৪০ জনের দল নিয়ে সাভারের জিরানির বিকেএসপিতে এই ক্যাম্প শুরু হবে চলতি মাসের শেষ সপ্তাহে। ১২ নভেম্বর তাজিকিস্তানের বিপক্ষে বিশ্বকাপ বাছাইয়ের ফিরতি ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ। আর অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে মামুনুলদের হোম ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হবে ১৭ ন্েম্বর।

হকি খেলোয়াড়দের প্রথমে ‘হ্যাঁ’ পরে ‘না’!

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ দল বদলের দাবিতে বেশ কিছুদিন ধরেই জাতীয় হকি দলের খেলোয়াড়রা ক্যাম্প বর্জন করে আসছিলেন। এ অবস্থা থেকে উত্তরণের জন্য রবিবার রাতে কয়েকজন খেলোয়াড়ের সঙ্গে এক বৈঠকে বসেন ফেডারেশনের ঊর্ধতন কর্মকর্তারা। সহ-সভাপতি আবদুস সাদেকের গুলশানের বাসভবনে এই ‘গোপন’ বৈঠকে বসেন তারা। দুই পক্ষের মধ্যে আলোচনার পর খেলোয়াড়রা ক্যাম্পে যোগ দিতে রাজিও হন। অবশ্য রাতে রাজি হয়ে খেলোয়াড়রা সোমবার সকালেই আবার অস্বীকার করেন ক্যাম্পে যোগ দিতে!

রবিবার রাতের বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়েছিল, সোমবার বিকেলেই ক্যাম্পে যোগ দেবেন তারা। দলবদল না হওয়ায় খেলোয়াড়রা ক্ষতিগস্ত হচ্ছেন বলে ফেডারেশনের কাছে কিছু আর্থিক সুবিধা চেয়েছিলেন তারা। তাতেও রাজি হন ফেডারেশনের কর্মকর্তারা। কিন্তু খেলোয়াড়রা তাদের অবস্থান থেকে সরে আসায় অনেকটা বিপাকেই পড়েছে ফেডারেশন।

জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক ও ফেডারেশনের নির্বাহী কমিটির সদস্য মাহবুব এহসান রানা বলেন, ‘খেলোয়াড়রা কেনই বা আমাদের সঙ্গে বৈঠকে বসেছিল, ক্যাম্পে যোগ দিতে রাতে রাজি হয়ে আবার সকালে অস্বীকার করলই বা কেন- এটা কিছুতেই বোধগম্য হচ্ছে না। এটি তাদের অন্যায় আচরণ।’ তবে সিনিয়র খেলোয়াড়দের এক লাখ এবং জুনিয়রদের ৩০ হাজার টাকা করে দেয়ার যে গুজব উঠেছে, তা ঠিক নয় বলে জানান তিনি, ‘এটা সত্য, খেলোয়াড়রা আমাদের কাছে কিছু টাকা চেয়েছে। আমরা বলেছি, ফেডারেশনের সাধ্য অনুযায়ী তাদের কিছু টাকা দেয়া হবে। কিন্তু এক লাখ বা ৩০ হাজার টাকার প্রসঙ্গই বৈঠকে ওঠেনি। এটা একেবারেই ভিত্তিহীন।’ দল বদলের দাবিতে এর আগে গত সেপ্টেম্বরেও এসএ গেমস ক্যাম্প বর্জন করেছিলেন তারা। সার্ভিসেস দলগুলোর বাইরে থাকা জাতীয় দলের খেলোয়াড়দের বর্জনের কারণেই হকি ফেডারেশন বাধ্য হয়েই সেই ক্যাম্প স্থগিত করেছিল।