২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বৃষ্টির অভাবে বরেন্দ্র অঞ্চলে আমনের ফলন বিপর্যয়

স্টাফ রিপোর্টার, রাজশাহী ॥ চলতি আমন মৌসুমে গোদাগাড়ী ও তানোরসহ বরেন্দ্রের জমির ধান নিয়ে বিপাকে পড়েছেন কৃষক। সময়মতো প্রয়োজনীয় বৃষ্টিপাত না হওয়ার কারণে অপেক্ষাকৃত উঁচু এলাকার বৃষ্টিনির্ভর ৩০ শতাংশ জমির ধান কৃষকরা ঘরে তুলতে পারবেন না বলে আশঙ্কা করছেন। তবে গভীর নলকূপের আওতায় চাষাবাদকৃত জমির ধান কৃষকরা ভালভাবে পাচ্ছেন। এছাড়া পানির অভাবে ৩০ শতাংশ জমির ধান নষ্ট ও ৪০ শতাংশ জমির আমন আবাদে ফলন কম হবে বলে মাঠ পর্যায়ের কৃষি কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

তানোর উপজেলার মু-ুমালা পৌর এলাকার দায়িত্বে থাকা উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা সমশের আলী জানান, তানোর এলাকায় আমন আবাদের ওপরে মাঠ পর্যায়ে প্রতিবেদন তৈরি করা হয়েছে। ওই প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে যে, এলাকায় যেসব জমিতে গভীর নলকূপের পানি পৌঁছাতে পারে কেবল সেসব জমির ধান কৃষকরা সুষ্ঠুভাবে ঘরে তুলতে পারবে। আর এ জমির পরিমাণ মোট আমন চাষের মাত্র ৩০ শতাংশ। এছাড়া আরও ৪০ শতাংশ জমির ধান পানির অভাবে ফলনে ক্ষতিগ্রস্ত হবে। আর বাকি ৩০ শতাংশের ধান কৃষকরা ঘরে তুলতেই পারবেন না। শুধু রাজশাহীর তানোর উপজেলাই নয়, আশপাশের কয়েক উপজেলার একই অবস্থা।

কৃষি কর্মকর্তা সমশের আলী আরও জানান, এ বিষয়ে তিনি লিখিত প্রতিবেদনও উর্ধতন কর্তৃপক্ষের কাছে পাঠিয়েছেন। রাজশাহী জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের তথ্যানুযায়ী, জেলায় চলতি বছর আমন চাষ হয়েছে ৭২ হাজার ৩২৬ হেক্টর জমিতে। রাজশাহী জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপপরিচালক কৃষিবিদ হযরত আলী জানান, বৃষ্টি কম হওয়ায় কৃষকদের খরচ বেড়ে গেছে। কোথাও না কোথাও থেকে তারা সেচ দিয়ে জমিতে দিচ্ছেন। কম বৃষ্টির কারণে ফসল উৎপাদনে কোন প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হবে না বলে তিনি জানান।

খুলনায় ৬ দফা দাবিতে পেশাজীবীদের মহাসমাবেশ

স্টাফ রিপোর্টার, খুলনা অফিস ॥ সোমবার দুপুরে খুলনা মহানগরীর শহীদ হাদিস পার্কে পেশাজীবীদের মহাসমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

৮ম জাতীয় বেতন স্কেলে আন্তঃক্যাডার বৈষম্য নিরসন, পেশাজীবীদের মর্যাদা সমুন্নত রাখা ও ইউএনও কর্তৃক উপজেলা পর্যায়ের কর্মকর্তাদের বেতন বিলে স্বাক্ষরের সিদ্ধান্ত বাতিলসহ ৬দফা দাবিতে বিসিএস সমন্বয় পরিষদ (২৬ ক্যাডার), নন ক্যাডার ও ফাংশনাল সার্ভিস, খুলনা এই মহাসমাবেশের আয়োজন করে। সংগঠনের খুলনা শাখার আহ্বায়ক ডাঃ শেখ বাহারুল আলমের সভাপতিত্বে সমাবেশে প্রফেসর নাসরিন আক্তার, কৃষিবিদ তাছাদ্দেক হোসেন, ফারুক এ আজম, প্রফেসর আব্দুল মান্নান, প্রকৌশলী কামাল উদ্দীন আহমেদ, ডাঃ শেখ হাফিজুর রহমান, ডাঃ জাকির হোসেন, ডাঃ মেহেদী নেওয়াজ, ডাঃ অরুণ কান্তি ম-ল, এসএম তৌহিদুজ্জামানসহ স্থানীয় ও কেন্দ্রীয় নেতারা বক্তৃতা করেন। সমাবেশে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে বহু প্রতিনিধি অংশগ্রহণ করেন।