২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

সিআইএ প্রধান ব্রেনানের ই-মেইল হ্যাকড

  • ইসরাইলের প্রতি মার্কিন নীতির প্রতিবাদে ফিলিস্তিনপন্থ’ী কিশোরের সাইবার হামলা

মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএ’র পরিচালক জন ব্রেনানের ব্যক্তিগত এ্যাকাউন্ট হ্যাকের বিষয়টি তদন্ত করে দেখছে এফবিআই ও সিক্রেট সার্ভিস। যদিও ওই ই-মেইলে কোন গোপন তথ্য ছিল না বলে আইন প্রয়োগকারী কর্মকর্তারা নিশ্চিত করেছেন। মার্কিন দৈনিক নিউইয়র্ক পোস্ট সোমবার প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রের এক ফিলিস্তিনপন্থী কিশোর ব্রেনানের ব্যক্তিগত এওএল এ্যাকাউন্ট এবং ডিপার্টমেন্ট অব হোমল্যান্ড সিকিউরিটির (ডিএইচএস) প্রধান জে জনসনের কমকাস্ট এ্যাকাউন্ট হ্যাক করার দাবি জানিয়েছে। খবর সিএনএন ও ইয়াহু নিউজের।

সিএনএনের সঙ্গে সোমবার দেয়া এক সাক্ষাতকারে ওই হ্যাকার মার্কিন হাই স্কুলের ছাত্র বলেছে, আইন প্রয়োগকারী সংস্থা এখনও তাকে ধরতে পারেনি। সোমবার সিআইএ এক বিবৃতিতে বলেছে, তারা এই প্রতিবেদন সম্পর্কে অবগত আছে। ডিএইচএসের এক মুখপাত্র এক বিবৃতিতে বলেছেন, আমরা জনসনের নিরাপত্তা সংক্রান্ত কোন তথ্য নিয়ে আলোচনা করি না। বিষয়টি আমরা যথাযথ কর্তৃপক্ষের কাছে হস্তান্তর করেছি। তবে এফবিআই এ বিষয়ে কোন মন্তব্য করতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে। ওই কিশোর হ্যাকার নিজেকে অমুসলিম এবং আমেরিকান হাই স্কুলের ছাত্র বলে পরিচয় দিয়েছে। তার উদ্দেশ্য হলো রাজনৈতিক। মার্কিন পররাষ্ট্র নীতির বিরোধিতা করা, সরকারকে লজ্জা দেয়া এবং ফিলিস্তিনীদের প্রতি সমর্থন জানাতে সে এটা করেছে। ইসরাইলের নতুন করে ফিলিস্তিনীদের বিরুদ্ধে আগ্রাসন এবং তেলআবিবের প্রতি মার্কিন নীতির প্রতিবাদে এ সাইবার হামলা চালানো হয়েছে বলে জানিয়েছে সে। কিশোরটি বলেছে, ফিলিস্তিনীদের প্রতি মার্কিন পররাষ্ট্রনীতির প্রতিবাদ জানাতে এবং ফিলিস্তিনীদের সমর্থনে এ কাজ করার উৎসাহ পেয়েছে সে। এছাড়া ব্রেনানের ই-মেইল থেকে হাতিয়ে নেয়া তার সিকিউরিটি ক্লিয়ারেন্সের জন্য দেয়া ৪৭ পাতার দরখাস্তের অংশবিশেষও প্রকাশ করেছে সে। সিএনএনকে কিশোরটি বলেছে, জন ও জে উভয়ই উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা, তাই তাদের ই-মেইল হ্যাক করা হলে তারা লজ্জা পাবেন। সত্যি বলতে কি মার্কিন সরকার নিরীহ মানুষ হত্যা করছে এবং নিরীহ মানুষ হত্যার জন্য ইসরাইলকে তহবিল যোগাচ্ছে। তাই ওই দুই মার্কিন কর্মকর্তার ই-মেইল হ্যাক করা হয়েছে।

দিল্লীতে তরুণী ধর্ষণের অভিযোগে ট্যাক্সিচালক দোষী সাব্যস্ত

ভারতের একটি আদালত মঙ্গলবার গত বছর ডিসেম্বরে রাজধানী দিল্লীতে এক তরুণীকে ধর্ষণের দায়ে দোষী সাব্যস্ত করেছেন মার্কিন পরিবহন সংস্থা ‘উবের’-এর চালক শিবকুমার যাদবকে। মথুরার বাসিন্দা শিবকুমারের সাজা ঘোষণা করা হবে ২৩ অক্টোবর। ধর্ষণের ৪০ ঘণ্টা পর দিল্লী পুলিশ ওই ট্যাক্সিচালক শিবকুমার যাদবকে উত্তরপ্রদেশের মথুরা থেকে গ্রেফতার করে। পুলিশ জানিয়েছে, শিবকুমার যাদব মথুরারই লোক। একইসঙ্গে তদন্তে সবরকম সহযোগিতা করার জন্য উবেরকে নোটিস পাঠায় দিল্লী পুলিশ। দক্ষিণ দিল্লীর বসন্তবিহার এলাকায় উবের চালক ধর্ষণ করে গুরগাঁওয়ের একটি বেসরকারী সংস্থায় কর্মরত ২৫ বছরের ওই তরুণীকে। তারপর তরুণীকে নির্দিষ্ট গন্তব্য ইন্দ্রলোক এলাকায় পৌঁছেও দেয় ওই ট্যাক্সিচালক। ট্যাক্সিচালক শিবকুমার ওই তরুণীকে হুমকি দেয় যে, ঘটনার কথা জানালে প্রাণে মেরে ফেলা হবে। -এএফপি