২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

দেশে সড়ক দুর্ঘটনা শূন্যতে নামিয়ে আনা সম্ভব ॥ ইলিয়াস কাঞ্চন

স্টাফ রিপোর্টার ॥ চলতি বছর সড়ক দুর্ঘটনায় নিহতের সংখ্যা কমার সম্ভাবনা রয়েছে উল্লেখ করে নিরাপদ সড়ক চাই (নিসচা) চেয়ারম্যান চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন বলেছেন, কয়েক বছর আগেও সড়ক দুর্ঘটনা প্রতিরোধে মানুষের ধারণা ছিল অন্য রকম। দুর্ঘটনা প্রতিরোধে কোন সামাজিক আন্দোলন হতে পারে সে ধারণাও ছিল না অনেকের। সচেতনতা সৃষ্টি করে সে ধারণা থেকে বের হয়ে আসতে সময় লেগেছে। বর্তমানে বিশ্বের অনেক দেশে সড়ক দুর্ঘটনা শূন্যের কোঠায়, সুইডেনে সড়ক দুর্ঘটনা শূন্য শতাংশ। বাংলাদেশেও সড়ক দুর্ঘটনা শূন্যতে নামিয়ে আনা সম্ভব। তবে সচেতনতা সৃষ্টিতে সরকার নানাভাবে সহযোগিতা করলেও তা পর্যাপ্ত নয়। কিন্তু মানুষের সচেতনতায় দেশে সড়ক দুর্ঘটনা কমেছে, প্রতিবছরই কমছে। আশা করা যাচ্ছে, গত বছরের তুলনায় এ বছর সড়ক দুর্ঘটনায় নিহতের সংখ্যা আরও কমবে।

মঙ্গলবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) সাগর-রুনি মিলনায়তনে জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস-২০১৫ এবং জাহানারা কাঞ্চনের ২২তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন এসব কথা বলেন। প্রসঙ্গত দীর্ঘ ২২ বছর ধরে নিসচা ২২ অক্টোবরকে নিরাপদ সড়ক দিবস হিসেবে পালন করে আসছে। সড়ক দুর্ঘটনায় স্ত্রী জাহানারা কাঞ্চনের মৃত্যুর পর চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন সামাজিক এ আন্দোলন গড়ে তোলেন। দিবসটির এ বছরের প্রতিপাদ্য ‘চালক-মালিক, যাত্রী-পথচারী ভাই ভাই, সড়ক দুর্ঘটনা মুক্ত বাংলাদেশ চাই’।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, নিসচা প্রতিবছরের ন্যায় এ বছরও ব্যাপক কর্মসূচী গ্রহণ করেছে। দিবসটি উপলক্ষে বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির সামনে থেকে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার পর্যন্ত র‌্যালি ও র‌্যালি শেষে সমাপনী সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে। র‌্যালিতে প্রধান হিসেবে উপস্থিত থাকবেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল এমপি। একই দিন দুপুরে নিসচা নেতৃবৃন্দ বনানীতে মরহুমা জাহানারা কাঞ্চনের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে কবর জিয়ারত ও পুষ্পস্তবক অর্পণ করবেন। এছাড়া বিকেলে নিসচা প্রধান কার্যালয়ে মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে।

লিখিত বক্তব্যে ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন, সারাবিশ্বে সড়ক দুর্ঘটনা ৫০ শতাংশে কমিয়ে আনার লক্ষ্যে জাতিসংঘ ইতোমধ্যে ২০১১ সাল থেকে ২০২০ সাল পর্যন্ত সময়কে সড়ক নিরাপত্তা দশক ঘোষণা করেছে। বিশ্বে সড়ক দুঘর্টনায় প্রতিবছর ১ লাখ ৮৬ হাজার ৩০০ শিশুর মৃত্যু হয়, যাদের বয়স ১৮ এর নিচে। জাতিসংঘের এক হিসাবে সড়ক দুঘর্টনায় দৈনিক গড়ে ৫০০ শিশুর মৃত্যু ঘটছে। সড়ক দুর্ঘটনায় চলতি বছর নিহতের সংখ্যা ৪ হাজার ছাড়াবে না বলেও এ সময় প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন কাঞ্চন।