২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

খালেদা জিয়ার ভুলে বিএনপি এখন দিশেহারা ॥ নাসিম

স্টাফ রিপোর্টার, সিরাজগঞ্জ ॥ আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম ২০১৯ সালের নির্বাচনে বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্য আগাম দোয়া ও ভোট চেয়ে বলেছেন আওয়ামী লীগই দেশের উন্নয়ন করে। বিএনপি জামায়াত ক্ষমতায় এলে দেশের সম্পদ লুটপাট করে। তিনি বলেন, ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে অংশ না নেয়া ছিল খালেদা জিয়ার সবচেয়ে বড় রাজনৈতিক ভুল। যে ভুলের মাসুল আজ তাকে ও তার দলকে দিতে হচ্ছে। নির্বাচনে না আসায় তার দল বিএনপি এখন ছিন্নভিন্ন-দিশেহারা। দেশের সংবিধান অনুযায়ী আগামী ২০১৯ সালে নির্ধারিত সময়ে নির্বাচন হবে। আর নির্বাচন ঠেকানোর চেষ্টা করলে জনগণ তা প্রতিহত করবে। তিনি মঙ্গলবার বিকেলে সিরাজগঞ্জের কাজীপুর উপজেলার যমুনার দুর্গমচর নাটুয়ারাপাড়া ডিগ্রী কলেজ মাঠে এক বিশাল জনসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন।

এর আগে তিনি হেলিকপ্টারযোগে ঢাকা থেকে রওনা হয়ে প্রথমে কাজীপুরের মনসুর নগর ইউনিয়নের কুমারিয়াবাড়িতে সাড়ে চার কোটি টাকা ব্যয়ে ১০ শয্যা বিশিষ্ট মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। পরে তিনি নাটুয়ারপাড়ায় আরও একটি ১০ শয্যা বিশিষ্ট মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। এরপর প্রায় দেড় কোটি টাকা ব্যয়ে পুলিশ ফাঁড়ি ও নাটুয়ারপাড়া কলেজের ত্রিতল ভবনের উদ্বোধন শেষে জনসভায় যোগ দেন। মোহাম্মদ নাসিম হেরিকপ্টার থেকে নেমে কখনও সিএনজি চালিত অটো রিক্সায়, আবার কখনও হেঁটে অথবা মোটরবাইকে চড়ে ভিত্তিপ্রস্তর অনুষ্ঠান ও জনসভায় যান। বাদ্যযন্ত্র বাজিয়ে, নানা রঙে সেজে রং-বেরঙের তোরণ নির্মাণ করে চরের মানুষ তাকে বরণ করে। শিশু-কিশোর, নারী-পুরুষ সবাই তাদের নেতাকে কাছে পেয়ে যেন উৎসবে মেতে উঠেছিল।

নাটুয়ারপাড়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় সভাপতিত্ব করেন সভাপতি ইসহাক উদ্দিন। জনসভায় আরও বক্তব্য রাখেন, সাবেক এমপি তানভীর শাকিল জয়, পরিবার পরিকল্পনা অধিদফতরের মহাপরিচালক নুর হোসেন তালুকদার, স্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদফতরের প্রধান প্রকৌশলী ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আহমেদুল কবীর, পুলিশ সুপার মোঃ মিরাজ উদ্দিন আহম্মেদ, উপজেলা চেয়ারম্যান মোজাম্মেল হক বকুল, কাজীপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শওকত হোসেন, সাধারণ সম্পাদক খলিলুর রহমান সিরাজী প্রমুখ।

জনসভায় খালেদা জিয়াকে সুস্থ ধারার রাজনীতিতে ফিরে আসার আহ্বান জানিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি নির্বাচন প্রতিহতের নামে বিএনপি-জামায়াত নিরীহ মানুষ খুন, জ্বালাও- পোড়াও করে জনগণের জানমালের ক্ষতিসাধন করেছেন। আর এ কারণেই জনগণ তাদের থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে। ২০১৯ সালের নির্বাচন হবে। সংবিধান অনুযায়ী শেখ হাসিনার অধীনেই নির্বাচন হবে। এর কোন বিকল্প নেই। সেই নির্বাচনে আবারও জনগণের রায় নিয়ে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসবে ইনশা আল্লাহ।