১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

রাজশাহীতে দুই মাথাওয়ালা গরু - টাকা দিয়ে দেখছে লোকজন

রাজশাহীতে দুই মাথাওয়ালা গরু - টাকা  দিয়ে দেখছে লোকজন

মামুন-অর-রশিদ, রাজশাহী থেকে ॥ চিড়িয়াখানায় যেভাবে মানুষ বাঘ, ভল্লুক, সিংহ, হরিণ কিংবা অন্যসব প্রাণী দেখতে ভিড় করে, তেমনিভাবে কৌতূহলী মানুষ একটি গরু দেখছে লাইন ধরে। গরুটির বিশেষত্ব হলো এটির দুটি মাথা। এই দুই মাথার গরু দেখতে তাই ভিড় মানুষের। কৌতূহলী মানুষ এখন গরুটি দেখছে ১০ টাকা ফি দিয়ে। রাজশাহীর তানোর উপজেলার আয়ড়ায় সার্বজনীন শারদীয় দুর্গাপূজা ম-পের পাশে আলাদা প্যান্ডেল করে সেখানে রাখা হয়েছে গরুটি।

জন্মের পর দেড় বছর ধরে মাথার ওপর আরেকটি মাথা নিয়ে বেঁচে আছে একটি গরু। তানোরে দোগাছি গ্রামের কৃষকের গোয়ালে জন্ম নেয়া গরুটি দেখতে মানুষ ভিড় জমান প্রতিনিয়িত। পূজা উপলক্ষে বসা মেলায় গরুটিও নিয়ে আসা হয়েছে প্রদর্শনের জন্য।

উপজেলার দোগাছি গ্রামের কৃষক মইনউদ্দীনের গোয়ালে ১৭ মাস আগে জন্ম নেয়া গরুটি এখন মানুষের বিনোদনের খোরাক মিটাচ্ছে। সোমবার বিকেলে সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, গরুটি দেখতে মানুষের ভিড়। ভিড় ঠেলে প্যান্ডেলের কাছে গিয়ে দেখা যায় লাল বর্ণের গরুটি। গরুটির ঠিক মাথার ওপর আরেকটি মাথা রয়েছে। অপেক্ষাকৃত অতিরিক্ত মাথাটি একটু ছোট। জানা গেল এভাবেই জোড়া মাথা নিয়ে ঘুরে বেড়ায় গরুটি। গরুটির দুই মাথায় তিন চোখ, ২ মুখ ৪ শিং রয়েছে। গরুটি অন্যান্য গরুর মতোই বেড়ে উঠছে। মানুষের প্রতিনিয়ত ভিড় থাকায় এর মালিক গত ২ মাস থেকে গরুটি দেখার জন্য ১০ টাকা করে ফি নির্ধারণ করেছেন। সোমবার গরুটি নিয়ে তিনি মু-ুমালার আয়ড়া শারদীয় দুর্গাপুজা ম-পে হাজির হন। গরুটি এখন ১০ টাকা করে খরচ দিয়ে দেখছেন কৌতূহলী মানুষ।

গরুর মালিক মইনউদ্দিন জানান, গরুটির দুই মুখের মধ্যে একটি মুখ দিয়ে খাবার খায়। অন্য মুখ দিয়ে শ্বাস-প্রশ্বাস গ্রহণ করে। দুই চোখ ছাড়াও তার মাথার ওপরের অতিরিক্ত চোখ দিয়েও দেখতে পায়। মইনউদ্দিন জানান, তিনি গরিব মানুষ। এই গরুটিই তার সম্বল। গরুটি জন্মের পর থেকে মানুষের ভিড় লেগেই আছে। তাই দর্শন ফি ১০ টাকা ধার্য করা হয়েছে। এ ফি দিয়েই গরুটি দেখেন মানুষ। মানুষ বিনোদনও পাচ্ছে গরুটি দেখে।

গরুটি জন্মের পর মইনউদ্দিন ভেবেছিলেন হয়তো এটি বাঁচবে না। তবে তার ধারণা সঠিক ছিল না। দিব্বি বেঁচে আছে। অন্য গরুর মতোই বেড়ে উঠছে। খাবারে কোন অনীহা নেই। মুখের সামনে যা পায় সব খায়। তবে মাথার ওপর চামড়া ভেদ করে বের হওয়া মাথাটি তার অতিরিক্ত বোঝা। ওই মাথাটিও নড়াচড়া করে। সেখানে শিং বেরিয়েছে। ওই মাথায় রয়েছে একটি চোখ। সে চোখেও দেখতে পায় বলে জানালেন মইনউদ্দিন।

কৌতূহলবশত গরুটি দেখতে আসা স্থানীয় যুবক জানান, এমন গরু তিনি আগে দেখেননি। দুই মাথাওয়ালা গরুর কথা শুনেই নিজের চোখে দেখতে এসছেন। তার মতো অনেকে আসছেন গরু দেখতে। মোবাইল ফোনে ছবিও তুলছেন অনেকে। গরুটি প্রদর্শনের ব্যবস্থা করে আয়ও করছেন মালিক মইনউদ্দিন।

এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে রাজশাহী প্রাণীসম্পদ অধিদফতরের উপ-পরিচালক (অবসরপ্রাপ্ত) শাহ জামাল বলেন, এমনি কখনও কখনও হতে পারে। তিনি বলেন, গাভীর পেটে যখন ভ্রƒণ তৈরি হয় তখন শুক্রাণু ও ডিম্বাণুর সমন্বয়ে প্রথমে জাইগোট তৈরি হয়। এরপর জাইগোট ভাগ হয়ে সেল ডিভিশনে পরিণত হয়। এরপর সেলগুলো কখনও একত্রিত হয়ে যায়। আবার কখনও ভাগ হয়ে দুটি অঙ্গে পরিণত হয়। ফলে জমজ বাছুরও হতে পারে আবার যে কোন একটি অঙ্গে জোড়া লেগে যেতে পারে। এ গরুটির ক্ষেত্রে তাই হয়েছে। তিনি বলেন, জন্মের পর যদি গরু কিংবা কোন প্রাণী ঠিকমতো খাবার গ্রহণ করতে পারে তাহলে বেঁচে থাকবে। অতিরিক্ত অঙ্গ যেমন গরুটির মাথা অপারেশন করে অপসারণ করা যায় তবে এটি রিস্কি। অপারেশনে বেশিরভাগ সময় সফল নাও হতে পারে।