২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বছর পূর্তিতে ১৭ দফা সুপারিশ বাস্তবায়নের দাবি

  • বড়াইগ্রাম সড়ক দুর্ঘটনা

সংবাদদাতা, নাটোর, ২০ অক্টোবর ॥ বড়াইগ্রামে শোকাবহ পরিবেশের মধ্য দিয়ে ভয়াবহ সড়ক দুর্ঘটনায় নিহতদের স্মরণে শোকসভা ও মিলাদ মাহফিল এবং ১৭ দফা সুপারিশমালা বাস্তবায়ন ও স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণের দাবিতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। মঙ্গলবার দুপুরে দুর্ঘটনাস্থলে বড়াইগ্রাম পৌরসভার আয়োজনে মিলাদ মাহফিল ও শোক সভার আয়োজন করা হয়। এ সময় নিহতের স্মরণে এক মিনিট নীরবতা পালন এবং নিহতদের আত্মার মাগফিরাত কামনা কওে মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়। এদিকে দুর্ঘটনা রোধে প্রশাসনের ১৭ দফা সুপারিশমালা বাস্তবায়নের পাশাপাশি দুর্ঘটনাস্থলে স্মৃতিস্তম্ভ এবং বনপাড়া-হাটিকুমরুল মহাসড়ককে চার লেনে উন্নিত করার দাবিতে মানববন্ধন করেছে বিভিন্ন সংগঠন। নিহতের স্মরণে শোকসভা শেষে দুর্ঘটনাস্থলে বড়াইগ্রাম প্রেসক্লাব, পৌরসভাসহ বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন এই মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করে। এ সময় বক্তব্য দেন বড়াইগ্রাম পৌরসভার মেয়র ইসাহাক আলীসহ অন্যরা। এ সময় বক্তারা অভিযোগ করে বলেন, দুর্ঘটনার এক বছর হলেও এখন পর্যন্ত এই মহাসড়কে দুর্ঘটনা কমেনি। তাছাড়া প্রশাসনের পক্ষ থেকে ১৭ দফা সুপারিশ দেয়া হলে আজও তা বাস্তবায়ন না হওয়া ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

সিলেটে শ্যালিকা ও মানিকগঞ্জে শিশু ধর্ষিত

স্টাফ রিপোর্টার সিলেট অফিস ॥ জেলার জৈন্তাপুরে শ্যালিকা ধর্ষণের ঘটনায় লম্পট দুলাভাই পুলিশের হাতে আটক হয়েছে। জানা যায়, শ্যালিকাকে দুলাভাই জমির আলী ওরফে নিজাম ১৬ অক্টোবর বিকেলে শ্বশুরবাড়ি পৌঁছে দেয়ার কথা বলে সিলেট শহরের এক হোটেলে নিয়ে আসে। সেখানে আটকে রেখে রাতভর নিজাম শ্যালিকাকে ধর্ষণ করে। ১৭ অক্টোবর সকাল ৭টায় হোটেল থেকে বের হয়ে উপজেলার হরিপুর বাজারে শ্যালিকাকে ছেড়ে দিয়ে চলে যায়। এদিকে শ্যালিকা বাড়ি ফিরে ঘটনাটি মা-বাবাকে জানালে মেয়ের বাবা বাদী হয়ে জৈন্তাপুর মডেল থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগের প্রেক্ষিতে মঙ্গলবার পুলিশ কাঞ্জর গ্রাম থেকে লম্পট দুলাভাই জমির আলী ওরফে নিজামকে আটক করে।

নিজস্ব সংবাদদাতা মানিকগঞ্জ থেকে জানান, হরিরামপুরে ৬ বছরের শিশুকে ধর্ষণ করেছে মুদি দোকানি বাবু সাহা। মঙ্গলবার সকাল ৯টার দিকে স্থানীয়রা ওই মুদি দোকানদারকে গণপিটুনি দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করেছে।

পুলিশ জানায়, নির্যাতনের শিকার শিশুটি বাকিপুর গ্রামে নানার বাড়িতে থাকে। সকালে বাড়িতে কেউ না থাকায় বাবু সাহা শিশুটিকে ধর্ষণ করে। শিশুটির চিৎকারে স্থানীয়রা এগিয়ে এসে বাবুকে গণপিটুনি দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করে।