২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বিচিত্র অভিজ্ঞতা

গৌরব জি. পাথাং

আমাদের দেশের গণপরিবহনগুলোয় মানুষের ভোগান্তির শেষ নেই। বাসে কিংবা মিনিবাসে বেশিরভাগই দাঁড়িয়ে যাতায়াত করতে হয়। অনেক সময় বাসের ভেতর দাঁড়িয়ে থাকার মতো জায়গা থাকে না। তারপরও কন্ডাক্টরের ডাক, আয়েন আয়েন, বাস খালি। সেখানে মজার ঘটনাও ঘটে। যেমন- এক লোক জিজ্ঞেস করে, সিট আছে? কন্ডাক্টর বলে, সিট আছে, আয়েন। বাসে উঠে লোকটি দেখে সিট খালি নেই। তখন রেগে গিয়ে বলে, সিট খালি কোথায়? বসতে জায়গা দাও না কেন? কন্ডাক্টর বলে, আপনি তো শুধু জিজ্ঞেস করেছেন, সিট আছে? আমি বলেছি, সিট আছে। আপনি দেখতে পাচ্ছেন না? এখানে কন্ডাক্টরের দোষ কী? আমরাই তো জেনে শুনে ভিড়ের মধ্যে উঠি, সিট খালি নেই জেনেও উঠি। এই সব পরিবহনে ভাড়া নিয়ে অনেক তর্ক ও মারামারি হয়। বাসের ভেতর বিভিন্ন ধরনের হকার ও বিক্রেতার আগমনে কান ঝালাপালা হয়ে যায়। ভিক্ষুকের ভিক্ষা করার নতুন নতুন পদ্ধতির আক্রমণে অস্বস্তিতে পড়তে হয়। কোন কোন ভিক্ষুক ছোট কাগজ আপনার উপর রেখে যাবে, কেউ কেউ চকোলেট রেখে যাবে। আর তার বিনিময়ে আপনাকে টাকা দিতে হবে। বাসের ভেতর আরেকটা বিরক্তিকর পরিবেশ সৃষ্টি হয়। আর তা হলোÑ গোপন রোগ ভাল করে দেয়ার জন্য বিভিন্ন বিজ্ঞাপনের ছোট ছোট কাগজ। অনেক সময় বিব্রতকর অবস্থায় পড়তে হয়। একবার বাবা ও মেয়ে বাসে বসে যাচ্ছিলেন। হঠাৎ মেয়ের কোলে সেই ছোট কাগজটা রেখে গেল। এমন অবস্থায় বাবা ও মেয়ে উভয়ই অস্বস্তিবোধ করেছিলেন। বাসে ধূমপানের নিয়ম না থাকলেও অনেকেই মানে না। ঠেলাঠেলি, ধাক্কাধাক্কি, ঘামের দুর্গন্ধ, আতরের গন্ধ, বমির গন্ধ বাসের ভিতরের পরিবেশ নষ্ট করে দেয়। বাসগুলো এখনও নারীবান্ধব হয়ে উঠতে পারেনি। নারীদের সুযোগ-সুবিধা দিতে পারেনি। অনেক ক্ষেত্রেই নারীদের জায়গা হয় ইঞ্জিনের ওপর। বাসগুলো হাত তুললেই যেখানে সেখানে থেমে যায়। কেউ কেউ চলন্ত গাড়ি দেখেও হাত তুলে পার হয়ে যেতে থাকে। ফলে গাড়ি থামতে বাধ্য হয়। তা দেখে মনে হয়, আমরা সবাই ট্রাফিক পুলিশ। হাত তুললেই থামতে বাধ্য হয়। বাসগুলো নির্দিষ্ট স্টপেজে থামে না। লোকেরাও স্টপেজের কয়েক কদম আগে থামলেও নামতে চায় না, হাঁটতে চায় না।

সিএনজি কিংবা অটোরিকশাগুলো নিয়ম অনুসারে মিটারে টাকা বা ভাড়া নেয়ার কথা থাকলেও, নিতে চায় না। আর আপনি যদি মিটারের ভাড়ায় যেতে চান, তবে কোন অটোরিকশাই পাবেন না। অগত্যা আপনি তাদের ইচ্ছামতোই যাবেন। যাবার পথে তারা আপনাকে সতর্ক করে বলবে, পুলিশ জিজ্ঞেস করলে বলবেন মিটারের ভাড়ায় এসেছি। এই অটোরিকশাচাকলরা এমনি করে আমাদের অন্যায় করতে শিখাচ্ছে।

রামপুরা, ঢাকা থেকে