২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

আইএস বিরোধী অভিযান ॥ সরে যাচ্ছে কানাডা

  • ইরাক-সিরিয়া থেকে সরিয়ে নেয়া হবে যুদ্ধবিমান

কানাডার নবনির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো নিশ্চিত করে বলেছেন, তিনি ইরাক ও সিরিয়ায় ইসলামিক স্টেটের (আইএস) বিরুদ্ধে বিমান হামলা থেকে কানাডীয় ফাইটার জেট প্রত্যাহার করে নেবেন। খবর বিবিসি ও এএফপির।

সাধারণ নির্বাচনে ট্রুডোর লিবারেল পার্টি সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জনের কয়েক ঘণ্টা পর তার এ সিদ্ধান্তের কথা মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামাকে জানান তিনি। ট্রুডো তার নির্বাচনী প্রতিশ্রুতির অংশ হিসেবে সিএফ-এইটিন জেটগুলো দেশে ফিরিয়ে আনার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। বিমানগুলো ২০১৬ সালের মার্চ পর্যন্ত ঐ অঞ্চলে মোতায়েন থাকার কথা। কিন্তু তিনি বিমানগুলো প্রত্যাহারের কোন সময়সূচী প্রকাশ করেননি। তার লিবারেল পার্টি সোমবার অনুষ্ঠিত সাধারণ নির্বাচনে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করেছে এবং এ সঙ্গে শেষ হচ্ছে স্টিফেন হারপারের অধীন কনজারভেটিভ পার্টির প্রায় এক দশকের শাসন। সাবেক হাইস্কুল শিক্ষক ট্রুডো প্রয়াত প্রধানমন্ত্রী পিয়েরে ট্রুডোর জ্যেষ্ঠপুত্র।

প্রেসিডেন্ট ওবামার সঙ্গে প্রথম টেলিফোন সংলাপে নবনির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী ট্রুডো বলেন, ফাইটার জেটগুলা প্রত্যাহার করে তিনি তার নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি পালন করবেন। তিনি মঙ্গলবার অটোয়াতে সাংবাদিকদের বলেন, আমরা দায়িত্বশীলতার সঙ্গে আমাদের কাজ চালিয়ে যাব এবং আইএসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে কানাডার ভূমিকা কতটা গুরুত্বপূর্ণ তা উপলব্ধি করেই সে দায়িত্ব পালন অব্যাহত রাখব, এ ব্যাপারে আমি প্রতিশ্রুতিশীল। তিনি এএফপিকে বলেন, তারপরও তিনি ইরাকের উত্তরাঞ্চলে কানাডীয় সামরিক প্রশিক্ষকদের রাখবেন।

তিনি এ বছরের শেষ নাগাদ ২৫ হাজার সিরীয় শরণার্থীকে গ্রহণের অঙ্গীকার ব্যক্ত করেছেন। তার পূর্বসূরি স্টিফেন হারপার এ ধরনের পদক্ষেপ গ্রহণ বাতিল করে দেন। ট্রুডো এক সরস ও বুদ্ধিদীপ্ত মন্তব্যে বলেন, প্রেসিডেন্ট ওবামা আমার মাথায় পক্ক কেশের অভাব রয়েছে বলে ঠাট্টা করেছেন। কিন্তু আমি বলি, অচিরেই তা হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে আমার।

হোয়াইট হাউস মঙ্গলবার এক বিবৃতিতে বলেছে, প্রেসিডেন্ট ওবামা জাস্টিন ট্রুডোর সঙ্গে জলবায়ুনীতি সংক্রান্ত বিষয়ের ওপর কাজ করবেন বলে প্রত্যাশা করছেন। ট্রুডো কার্বন নিঃসরণ হ্রাসের লক্ষ নিয়ে কাজ করবেন বলে অঙ্গীকারাবদ্ধ। তিনি কিছু পরিবেশগত সমস্যা সমাধানেও কাজ করতে আগ্রহী রয়েছেন বলে খবরে বলা হয়েছে।

কানাডার নির্বাচনে বিজয়ী পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো নবেম্বরে তার সরকারের প্রথম মন্ত্রিসভা ঘোষণা করার বিষয়ে মঙ্গলবার প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেছেন। তিনি মন্ত্রিসভায় সমান সংখ্যক নারী-পুরুষ রাখারও প্রতিশ্রুতি দেন।

নির্বাচনী প্রচার চালানোর সময় ৪৩ বছর বয়সী এ নেতা তার মন্ত্রিসভা গঠনে নারী-পুরুষের সমতা রক্ষার প্রতিশ্রুতি দেন এবং তার সরকারের মন্ত্রিসভায় এটি রক্ষা করা হবে বলে মঙ্গলবার অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন।

তিনি এক সাংবাদিক সম্মেলনে বলেন, ‘আমি অনেক আনন্দের সঙ্গে জানাচ্ছি যে, নির্বাচনে আমাদের প্রতিশ্রুতি দেয়া সবকিছু পুরোপুরি বাস্তবায়ন করা হবে।’

আগামী ৪ নবেম্বর কানাডার নতুন মন্ত্রিসভার সদস্যদের নাম ঘোষণা করা হবে। আগের প্রশাসনের ক্ষমতা হস্তান্তরের পর ওই একই দিন ট্রুডো আনুষ্ঠানিকভাবে দেশের প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব নেবেন।

কানাডার বিদায়ী প্রধানমন্ত্রী স্টিফেন হারপারের ৩৮ সদস্য বিশিষ্ট মন্ত্রিসভায় ১২ নারী সদস্য ছিলেন।