২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বেয়ার্নকে হারিয়ে রেসে ফিরল আর্সেনাল

বেয়ার্নকে হারিয়ে রেসে ফিরল আর্সেনাল

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ প্রথম দুই ম্যাচেই হার। নকআউট পর্বে খেলার স্বপ্ন ফিকে হয়ে গিয়েছিল আর্সেনালের। তুলনামূলক দুর্বল দুই প্রতিপক্ষের কাছে হারের পর অবশেষে রাঘব বোয়াল শিকার করে জয়ের ধারায় ফিরেছে গানার্সরা। সেই সঙ্গে শেষ ষোলোতে খেলার সম্ভাবনাও উজ্জ্বল করেছে আর্সেন ওয়েঙ্গারের দল।

মঙ্গলবার রাতে উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লীগ ফুটবলে সাবেক চ্যাম্পিয়ন বেয়ার্ন মিউনিখকে ২-০ গোলে পরাজিত করে ইংলিশ ক্লাব আর্সেনাল। ‘এফ’ গ্রুপের ম্যাচটিতে গানার্সদের হয়ে গোল করেন বদলি হিসেবে নামা অলিভিয়ের জিরুড ও মেসুত ওজিল। গ্রুপের আরেক ম্যাচে গ্রীসের ক্লাব অলিম্পিয়াকোস ১-০ গোলে হারায় ক্রোয়েশিয়ার ডায়নামো জাগরেবকে। সব ধরনের প্রতিযোগিতাতেই এর আগে হারেনি পেপ গার্ডিওলার দল। এই প্রথম হারলেও গ্রুপে অবশ্য শীর্ষেই আছে বেয়ার্ন। প্রথম জয় পেলেও গ্রুপের তলানিতেই আছে আর্সেনাল। ‘ই’ গ্রুপে ক্রোয়েশিয়ান মিডফিল্ডার ইভান রাকিটিচের জোড়া গোলে বার্সিলোনা ২-০ ব্যবধানে হারায় স্বাগতিক বেলারুশের ক্লাব বাটে বরিসভকে। লেভারকুসেনের বে অ্যারানায় গ্রুপের আরেক ম্যাচটি ছিল অনিন্দ্য সুন্দরে ভরপুর। জার্মান ক্লাব বেয়ার লেভারকুসেন ও ইতালির এ এস রোমার মধ্যকার রোমাঞ্চকর ম্যাচটি ৪-৪ গোলে ড্র হয়। পুরো ম্যাচটিই ছিল নাটকীয়তার ভরপুর। উত্থান-পতন, ক্লাইমেক্সÑ কী ছিল না ম্যাচে! প্রথম ২০ মিনিটের মধ্যেই দুই গোলে এগিয়ে যাওয়া লেভারকুসেনকেই ম্যাচ ড্র করতে হয়েছে শেষ ছয় মিনিটে আরও দুই গোল করে! গোল উৎসবের শুরু ম্যাচের চতুর্থ মিনিটে। পেনাল্টি থেকে লেভারকুসেনকে এগিয়ে দেন মেক্সিকান স্ট্রাইকার জ্যাভিয়ের হার্নান্দেজ। এই গোলের রেশ কাটতে না কাটতেই আরেকটি গোল আসে ১৯ মিনিটে। এ পর্যন্ত দেখে মনে হচ্ছিল, গ্রুপে আগের ম্যাচের মতো এবারও ধ্বসে পড়বে ‘রোমান সাম্রাজ্য’। বাটে বরিসভের বিরুদ্ধে গ্রুপের দ্বিতীয় ম্যাচে আধঘণ্টার মধ্যেই ৩ গোল খেয়েছিল রোমা। তবে এবার সেটি হতে দেননি ফ্রান্সেসকো টট্টির অনুপস্থিতিতে রোমার নেতা ড্যানিয়েলে ডি রোসি। ৩০ ও ৩৮ মিনিটে তার দুই গোলে বিরতির সময় ম্যাচে সমতা বিরাজ করে।

বিরতির পর আরও চমক দেখায় অতিথিরা। ৫৫ মিনিটে মিরালেম পিয়ানিচের দুর্দান্ত ফ্রিকিকে প্রথমবারের মতো ম্যাচে এগিয়ে যায় রোমা। ৭৩ মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন ইয়াগো ফাল্কে। ২-০ গোলে পিছিয়ে পড়া রোমা ৪-২ গোলে এগিয়ে। ম্যাচ শেষ হতে বাকি মাত্র ছয় মিনিট। অথচ এই সময়েই স্বাগতিকরা দেখালো ফুটবল জাদু। স্কোরলাইনটাকে ৮৪ মিনিটে দুর্দান্ত বাঁকানো শটে কেভিন কেম্পল করে ফেলেন ৩-৪। দুই মিনিট পরই আডমির মেহমেডির গোলে ৪-৪। ম্যাচ শেষে লেভারকুসেনের জার্মান কোচ রজার স্মিডট বলেন, এটা সাধারণ কোনো ফুটবল ম্যাচের সীমা ছাড়িয়ে অন্য কিছু।

গ্রুপের আরেক ম্যাচে রাকটিচের দুর্দান্ত নৈপুণ্যে মেসিবিহীন বার্সিলোনা সহজেই হারায় বরিসভকে। এই জয়ে শেষ ষোলোর পথে আরেকধাপ এগিয়ে থাকলো ক্যাটালানরা। ম্যাচে বার্সার জয়ের নায়ক হলেও বরিসভের মাঠে প্রথম একাদশে সুযোগ পাননি রাকিটিচ। ১৮ মিনিটে সার্জিও রবার্টোর চোটের কারণে মাঠে নামেন তিনি। গোলশূন্য প্রথমার্ধের পর দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই রাকিটিচের চমক। নেইমারের বাড়িয়ে দেয়া বল ধরে জোরালো শটে গত মৌসুমের ট্রেবলজয়ীদের এগিয়ে দেন ৪৮ মিনিটে। ৬৪ মিনিটে আবারও নেইমারের সহযোগিতায় গোল করেন রাকিটিচ। ব্রাজিলিয়ান অধিনায়কের পাস নিয়ন্ত্রণে নিয়ে এগিয়ে আসা বরিসভ গোলরক্ষককে বোকা বানিয়ে ঠা-া মাথায় বর্তমান চ্যাম্পিয়নদের জয় নিশ্চিত করেন ক্রোয়েট তারকা। লন্ডনের বিখ্যাত এমিরেটস স্টেডিয়ামে আর্সেনালের বিরুদ্ধে তেমন চমক দেখাতে পারেননি লেভানডোস্কি, মুলার, লামরা। বরং স্বাগতিকদের সানচেজ, ওজিল, ওয়ালকটরা দ্রুতগতির ফুটবল দিয়ে পর্যুদস্ত করেন বাভারিয়ানদের। ৭৭ মিনিটে বদলি অলিভিয়ের জিরুডের গোলে এগিয়ে যায় আর্সেনাল। ম্যাচের অন্তিম মুহূর্তে (৯৪ মিনিট) ওজিলের অদ্ভুতুড়ে গোলে ব্যবদান দ্বিগুণ করে ওয়েঙ্গারের দল। এ সময় হেক্টর বেলেরিনের ক্রসে পা স্পর্শ করেন জার্মান তারকা ওজিল। বেয়ার্ন গোলরক্ষক ম্যানুয়েল নিউয়ের তা ফিরিয়েও দেন। ফিরতি বলে অক্সলেড চেম্বারলেইনের শট চলে যায় বারের অনেক ওপর দিয়ে। অথচ রেফারি বাঁশি বাজিয়ে দেন...গাল! কেননা নিউয়ের ফিরিয়ে দেয়ার আগেই যে বলটা অতিক্রম করেছে গোললাইন! রাশিয়ান ক্লাব জেনিট সেইন্ট পিটার্সবার্গ টানা তিন জয় পেয়েছে। এবার তাদের শিকার ফরাসী ক্লাব অলিম্পিক লিও।