২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

আবাহনী বনাম আবাহনী লড়াই আজ

  • ইস্ট বেঙ্গলের প্রতিপক্ষ করাচী ইলেকট্রিক

রুমেল খান, চট্টগ্রাম থেকে ॥ হাজার বছরের ইতিহাস বন্দরনগরী চট্টগ্রামের। এটি এশিয়ার সপ্তম এবং বিশ্বের দশম দ্রুততম ক্রমবর্ধমান শহর। পাহাড়, সমুদ্র, উপত্যকা, বন-বনানীর কারণে চট্টগ্রামের মতো ভৌগোলিক বৈচিত্র্য বাংলাদেশের আর কোন জেলার নেই। মজার ব্যাপার হচ্ছে- চট্টগ্রামের প্রায় ৪৮টি নামের খোঁজ পাওয়া গেছে!

চট্টগ্রামের মানুষ ভোজন রসিক হিসেবে পরিচিত। তেমনি তারা ক্রীড়াপ্রেমীও বটে। চট্টগ্রামে এখনও বেশকিছু প্রাচীন খেলা হয়ে থাকে। যেমন: জব্বারের বলীখেলা, গরুর লড়াই. তুম্বুরু, চুঁয়াখেলা, ঘাডুঘাডু, টুনি ভাইয়ের টুনি, তৈইক্যা চুরি, হাতগুত্তি, কইল্যা, কড়ি, নাউট্টা চড়াই, ডাংগুলি, নৌকাবাইচ ইত্যাদি। এখানকার ফুটবল ইতিহাস তেমন সমৃদ্ধ না হলেও বেশ পুরনোই। ১৯৩৭ সালের নবেম্বরে ইংল্যান্ডের বিশ্বখ্যাত আইলিংটন কোরিন্থিয়ান দল চট্টগ্রামে ফুটবল খেলতে এসেছিল। চট্টগ্রাম বাছাই একাদশের বিরুদ্ধে তারা একটি প্রীতি ম্যাচ খেলেছিল। সে ম্যাচে অবশ্য হেরেছিল চট্টগ্রাম বাছাই একাদশ। ৭৮ বছর পর এখানকার এমএ আজিজ স্টেডিয়ামে ২০ অক্টোবর কার্তিকের এক সন্ধ্যায় আবারও হারলো চট্টগ্রামের একটি ফুটবল দল নাম চট্টগ্রাম আবাহনী লিমিটেড। তাদের ২-১ গোলে হারালো ভারতের কলকাতার একটি দল কিংফিশার ইস্টবেঙ্গল ফুটবল ক্লাব। ম্যাচটি অবশ্য কোন প্রীতিম্যাচ ছিল না, ছিল আন্তর্জাতিক ক্লাব কাপ ম্যাচ। আর আসরটির নাম ‘শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্লাব কাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট।’ আয়োজক ও স্বাগতিক হিসেবে প্রথম ম্যাচেই হারা চট্টগ্রাম আবাহনী আজ আবারও মাঠে নামছে। এবার প্রতিপক্ষ তাদেরই ‘বড় ভাই’ ঢাকা আবাহনী লিমিটেড। সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় শুরু হচ্ছে ম্যাচটি। এর আগে বিকেল সাড়ে ৪টায় প্রথম ম্যাচে ইস্টবেঙ্গল মোকাবেলা করবে পাকিস্তানের করাচি ইলেকট্রিক ফুটবল ক্লাবের। মঙ্গলবার নিজেদের প্রথম ম্যাচে করাচি ইলেকট্রিক ৩-২ গোলে হার মানে ঢাকা আবাহনীর কাছে। দুটোই ‘বি’ গ্রুপের ম্যাচ (‘এ’ গ্রুপের কোন ম্যাচ এখনও মাঠে গড়ায়নি)।

যার নামে এই টুর্নামেন্ট, সেই শেখ কামালই গড়েছিলেন ঢাকা আবাহনী লিমিটেডকে (তখন নাম আবাহনী ক্রীড়া চক্র)। ১৯৭২ সালে প্রতিষ্ঠিত এই ক্লাবটিকে বলা হয়ে থাকে স্বাধীন বাংলাদেশের আধুনিক ফুটবলের প্রবর্তক। অগণিত শিরোপা জিতেছে ‘দ্য স্কাই ব্লু ব্রিগেড’রা। তবে গত পাঁচ বছর ধরে শিরোপা খরায় ভুগছে দলটি। দেশে কোন ট্রফি জিততে পারেনি। ভারতের মাটিতে ২০১০ সালে সর্বশেষ জিতেছে ‘বরদলুই ট্রফি’ (ভারতে গিয়ে নাগজি ট্রফিও জিতেছে ১৯৯০ সালে)। বরদলুই ট্রফি জেতার পর আরেকটি আন্তর্জাতিক ক্লাব কাপ ট্রফি জিততে মরিয়া তারা। অভীষ্ট লক্ষ্যের পানে উপনীত হতে ইতোমধ্যেই প্রথম বাধাটি (করাচি ইলেকট্রিক) অতিক্রম করতে পেরেছে তারা। আজ তাদের সামনে দ্বিতীয় বাধা চট্টগ্রাম আবাহনী। শেখ রাসেল ক্রীড়াচক্রের একঝাঁক খেলোয়াড়কে ধারে নিয়েছে চট্টগ্রাম আবাহনী। নিজেদের প্রথম ম্যাচে হারলেও চট্টগ্রাম আবাহনীর শক্তিমত্তাকে উড়িয়ে দেয়া সম্ভব নয়। ঢাকা আবাহনীও দিচ্ছে না। ‘আমরা সব প্রতিপক্ষকেই সমীহ করছি। চট্টগ্রামের দলটিকেও করছি। মাঠে যারা ভাল খেলবে, তারাই জিতবে। আমরা জয়ের লক্ষ্যেই মাঠে নামবো।’ ঢাকা আবাহনীর বর্ষীয়ান কোচ অমলেশ সেনের ভাষ্য। চট্টগ্রাম আবাহনীর কোচ শফিকুল ইসলাম মানিক বলেন, ‘প্রস্তুতি ও ফিটনেসের কমতির জন্যই প্রথম ম্যাচে হেরেছি। তবে এই হারে এখনও সব আশা শেষ হয়ে যায়নি। আশাকরি ঢাকা আবাহনীর সঙ্গে আমরা ভাল খেলব।’

দেশে-বিদেশে মোট ১৩৬ ট্রফি জেতা ইস্টবেঙ্গল দারুণ ফুরফুরে মেজাজে আছে প্রথম ম্যাচে জিতে। আজ তাদের প্রতিপক্ষ করাচি ইলেকট্রিক। ‘করাচি ভাল দল। ওদের ২-১ জন ভাল ফুটবলার আছে। তবে আমাদের দলের সব ফুটবলারের ওপরই আমার আস্থা আছে।’ ইস্টবেঙ্গলের কোচ বিশ্বজিৎ ভট্টাচার্যের প্রতিক্রিয়া। করাচি ইলেকট্রিকের কোচ মাজিদ শফিক। তিনি ব্রিটিশ বংশোদ্ভুত। তার কোচিংয়ে করাচি ইলেকট্রিক এফসি কাপের প্লে-অফ রাউন্ডে পৌঁছায়। এর আগে কোনও পাকিস্তানি ক্লাব এফসি কাপের প্লে-অফ রাউন্ডে পৌঁছাতে পারেনি। ‘প্রথম ম্যাচে আমরা অনেক ভুল করেছি। সেই ভুলগুলো শুধরে দ্বিতীয় ম্যাচে আমরা ভাল খেলে জিততে চাই।’