২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

দুই বিদেশী হত্যায় পোশাক খাতে প্রভাব পড়বে না ॥ মুহিত

স্টাফ রিপোর্টার, সিলেট অফিস ॥ দেশে দুই বিদেশী হত্যাকাণ্ড নিয়ে দূতাবাসগুলো বাড়াবাড়ি করছে উল্লেখ করে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেছেন, তাদের রেড এ্যালার্ট জারি বাড়াবাড়ি এবং এটা ভুল। বৃহস্পতিবার দুপুরে সিলেটের দক্ষিণ সুরমায় গণগ্রন্থাগারের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন। অর্থমন্ত্রী বলেন, আতঙ্কিত হওয়ার মতো কোন পরিবেশই হয়নি। আমেরিকায় প্রতিবছর অনেক বেশি মানুষ মারা যায়। তাদের মধ্যে অনেক বাঙালীও থাকে। যখন আমেরিকায় বাঙালী হত্যার ঘটনা ঘটে তখন তারা কোথায় থাকে? প্রশ্ন রাখেন মুহিত। দুই বিদেশী হত্যার কারণে পোশাক খাতে বিদেশীরা বিমুখ হচ্ছেÑ এমন প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, এটা একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা। এটা টেম্পরারি ডিফিকাল্টি। এটা হতে পারে না। এ বিষয়টাকে ইস্যু করা হচ্ছে। দেশে এমন কোন পরিস্থিতি হয়নি যে তার প্রভাব গার্মেন্টস সেক্টর বা অর্থনীতিতে পড়বে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত দক্ষিণ সুরমা গণগ্রন্থাগারের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন সমাবেশে বলেন, বই হচ্ছে ইতিহাস ও জ্ঞানের ভা-ার। একটি গ্রন্থাগার শুধু এলাকা বা দেশ নয়, পৃথিবীর সম্পদ।

এদিকে বৃহস্পতিবার সিলেট নগরীর ধোপাদীঘিরপারের হাফিজ কমপ্লেক্সে সিলেট কয়লা আমদানিকারক গ্রুপের প্রতিনিধি দল ও ব্যবসায়ীদের সঙ্গে এক মতবিনিময় সভায় অর্থমন্ত্রী বলেন, অর্থনীতি যেভাবে এগিয়ে যাচ্ছে তাতে বাংলাদেশ ২০২১ সালের আগেই মধ্যম আয়ের দেশ হিসেবে আত্মপ্রকাশ করবে। তিনি ব্যবসায়ীদের অর্থনৈতিক উন্নয়নে ঐক্যবদ্ধভাবে দেশকে এগিয়ে নেয়ার আহ্বান জানান। মন্ত্রী বলেন, বর্তমান শেখ হাসিনার সরকার ব্যবসাবান্ধব হওয়ায় ব্যবসা-বাণিজ্য প্রসারিত হচ্ছে। সরকার ব্যবসায়ীদের চাহিদা মোতাবেক সব ধরনের সুবিধা দিয়ে যাচ্ছে। তিনি আরও বলেন, সিলেটের ব্যবসায়ীদের যেকোন সমস্যা নিরসনে সরকার আন্তরিকতার সঙ্গে কাজ করবে।

মতবিনিময় সভায় সিলেট কয়লা আমদানিকারক গ্রুপের প্রতিনিধি দল কয়লা আমদানি-রফতানির নানাবিধ সমস্যা তুলে ধরে অর্থমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করে স্মারকলিপি প্রদান করেন। কয়লা আমদানিকারক গ্রুপের নেতৃবৃন্দ বলেন, বর্তমানে আইআরসি নবায়নকালে অযৌক্তিক ও হয়রানিমূলকভাবে পূর্বে ভ্যাট আরোপ না করেই একসঙ্গে ৫-৬ বছরের বকেয়া ভ্যাট দাবি করা হচ্ছে, যা ব্যবসায়ীদের ওপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে। ২০১৪ সালে এক আদেশে কয়লা আমদানির ওপর থেকে উৎসে আয়কর পরিশোধের বিধান বাতিল করা হয়। বর্তমানে আয়কর রিটার্ন জমাদানকালে আমদানিকারকদের ওপর ওই হারে করারোপ করা হলে এ বিপুল পরিমাণ আয়কর পরিশোধ করা সম্ভব হবে না। সভায় গ্রুপের পক্ষ থেকে কয়লা আমদানির ওপর ৩% অগ্রিম আয়কর আরোপের অনুরোধ জানানো হয়। মতবিনিময় সভায় গ্রুপের ব্যবসায়ী প্রতিনিধি দলের সদস্যরা আরও বলেন, সম্প্রতি বিজিবি কর্তৃপক্ষ কর্তৃক পুনরায় আমদানিকৃত ট্রাক পরিমাপের কারণে স্বাভাবিক আমদানি-রফতানি কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে। প্রতিদিন যেখানে ২০০ গাড়ি কয়লা আমদানি হতো সেখানে বিজিবি কর্তৃক আমদানিকৃত ট্রাক পুনরায় পরিমাপের কারণে মাত্র ২০ গাড়ি কয়লা আমদানি হচ্ছে। এতে আমদানিকারক ব্যবসায়ীরা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন এবং সরকারের রাজস্ব আয় কমে যাচ্ছে। নেতৃবৃন্দ আরও বলেন, ভারতীয় রফতানিকারকগণ সময়মতো কয়লা এক্সপোর্ট করতে না পারায় ট্রাক ডিমারেজ দিতে হচ্ছে। এভাবে কয়লা রফতানি করতে রফতানিকারকগণ অপারগতা প্রকাশ করেছেন। ফলে যেকোন সময় কয়লা আমদানি বন্ধ হয়ে যেতে পারে। সভায় অর্থমন্ত্রী কয়লা আমদানির ক্ষেত্রে সমস্যাগুলো সমাধানের আশ্বাস দেন। সিলেট কয়লা আমদানিকারক গ্রুপের সভাপতি ফালাহ উদ্দিন আলী আহমদের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মোঃ আতিকুর রহমানের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় উপস্থিত ছিলেনÑ দি সিলেট চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি সালাহ উদ্দিন আলী আহমদ, দিলওয়ার হোসেন, কলন্দর আলী, শ্রী চন্দন সাহা, এমএ হান্নান প্রমুখ।

নির্বাচিত সংবাদ