২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

লক্ষ্মীপুরে পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে ডাকাত সর্দার নিহত

নিজস্ব সংবাদদাতা, লক্ষ্মীপুর, ২২ অক্টোবর ॥ লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার চরশাহী গ্রামে গুলিবিদ্ধ হয়ে আব্দুর রহিম (৩৫) নামে এক যুবক ঘটনাস্থলেই নিহত হয়েছে। বৃহস্পতিবার ভোরে এ ঘটনা ঘটে। পুলিশের দাবি ডাকাতির প্রস্তুতি চেষ্টায় সেখানে কিছুসংখ্যক ডাকাত জড়ো হয়। পুলিশের অবস্থান টের পেয়ে ডাকাত দল পুলিশকে লক্ষ্য করে বেশ কয়েক রাউন্ড গুলি ছোড়ে। এতে পুলিশও পাল্টা গুলি ছোড়ে। এ সময় উভয়পক্ষের গুলিবিনিময়ে সে গুলি বিদ্ধ হয় । পুলিশ ও ডাকাত দলের সঙ্গে প্রায় ঘণ্টাব্যাপী বন্দুকযুদ্ধে ডাকাত সর্দার আব্দুর রহিম গুলিবিদ্ধ হয়ে গুরুতর আহত হয়। একই সময়ে দু’পক্ষের সংঘর্ষে তিন পুলিশ সদস্য আহত হয়। এদের মধ্যে আব্দুর রহিমকে হাসপাতালে নেয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। নিহতের পিতা হেদায়েত উল্যা প্রকাশ ফজল মিয়া। তার বাড়ি সদর উপজেলার দূর্গাপুর গ্রামে। আহত পুলিশ সদস্য মাহবুবুর রহমান, মহসিন ও ইব্রাহীমকে লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়।

আব্দুর রহিম একজন কুখ্যাত ডাকাত। পুলিশ লাশটি উদ্ধারের পর ভোর পাঁচটার দিকে সদর হাসপাতালে পাঠায়। পুলিশ জানিয়েছে, নিহতের মরদেহ লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতাল মর্গে ও অপর আহত পুলিশ সদস্যদের একই হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সে নারী ও শিশু নির্যাতন মামলায় যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত এবং আরও ডাকাতিসহ ৪টি মামলার পলাতক আসামী।

চন্দ্রগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হুমায়ুন কবির জানান, স্থানীয় চরশাহী ইউনিয়নের তিনার বাড়ির সামনে ডাকাত রহিম বাহিনী ডাকাতি প্রস্তুতি নিচ্ছে এমন খবর পেয়ে পুলিশ অভিযান চালায়। এ সময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে ডাকাতরা বেশ কয়েক রাউন্ড গুলি চালায়, পুলিশও পাল্টা গুলি চালায়। এ সময় উভয়পক্ষের মধ্যে প্রায় ঘণ্টাব্যাপী পুলিশের বন্দুকযুদ্ধ হয়। এতে পুলিশের ১৫ রাউন্ড গুলিসহ উভয়পক্ষের প্রায় অর্ধশত রাউন্ড গুলিবিনিময় চলে বলে তিনি জানান। এতে ডাকাত সর্দার আবদুর রহিম গুলিবিদ্ধসহ তিন পুলিশ আহত হন। পরে হাসপাতালে নেয়ার পর ডাকাত রহিম চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায়।