২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ইসরাইলী-ফিলিস্তিনী সঙ্কট নিরসনে আশাবাদী নন বান

  • নিরাপত্তা পরিষদের রুদ্ধদ্বার জরুরী বৈঠক

ইসরাইলী-ফিলিস্তিনী সঙ্কটের সমাধান নিয়ে কোন আশা দেখছেন না বলে বুধবার নিরাপত্তা পরিষদকে জানিয়েছেন জাতিসংঘ মহাসচিব বান কি মুন। দুই জাতির মধ্যে তিন সপ্তাহ ধরে চলমান উত্তেজনাকর পরিস্থিতি শান্ত করতে ইসরাইলি ও ফিলিস্তিনী নেতাদের সঙ্গে বৈঠকের পর জর্দানের রাজধানী আম্মান থেকে এক ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে নিরাপত্তা পরিষদের রুদ্ধদ্বার জরুরী বৈঠকে দেয়া ভাষণ দিচ্ছিলেন। খবর এএফপির।

জাতিসংঘ মহাসচিব মঙ্গলবার ওই অঞ্চল সফর করে ইসরাইলী ও ফিলিস্তিনীদের এই ঝুঁকিপূর্ণ পরিস্থিতি থেকে সরে আসার আহ্বান জানান। এ অবস্থায় ফিলিস্তিনীদের তৃতীয় ইন্তিফাদা বা গণ-অভ্যুত্থান শুরুর আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহু এবং ফিলিস্তিনী নেতা মাহমুদ আব্বাসের সঙ্গে বৈঠকের পর বান ওই অঞ্চলে শান্তির সম্ভাবনা নিয়ে তার পরিষ্কার মূল্যায়ন ব্যক্ত করেন। ওই বৈঠকে উপস্থিত থাকা কূটনীতিকরা এ কথা জানিয়েছেন। ব্রিটিশ দূত বৈঠকের পর সাংবাদিকদের বলেন, মহাসচিব আমাদের যা বলেছেন, তাতে আমরা হতাশ। বান কাউন্সিলের ভাষণে স্পষ্ট করে জানান, ওই দুই নেতার সঙ্গে বৈঠকের পর তিনি শান্তি নিয়ে আশাবাদী নন। তবে তিনি বলেছেন, উত্তেজনা প্রশমনের জন্য চাপ দিয়ে দু’পক্ষকে বিপজ্জনক পরিস্থিতি থেকে ফিরিয়ে আনতে সময় নষ্ট করার সুযোগ নেই। তিনি এই বিশৃঙ্খলা অবসানে কোন প্রস্তাব দেননি। তবে এক বছরের বেশি সময় ধরে শান্তি প্রচেষ্টা বন্ধ থাকার পর অর্থপূর্ণ আলোচনায় ফিরে আসার পক্ষে কথা বলেন। রামাল্লায় আব্বাসের সঙ্গে বৈঠকের পর বান বলেন, অর্থপূর্ণ আলোচনায় সম্ভব করার অবস্থা তৈরিতে সব ধরনের প্রচেষ্টায় আমাদের সমর্থন সবসময়ই থাকবে। আমাদের সবচেয়ে জরুরী চ্যালেঞ্জ হলো সহিংসতার এই সাম্প্রতিক ঢেউ বন্ধ ঠেকানো এবং আর কোন মৃত্যু পরিহার করা। ওই অঞ্চলে ভয় এবং অবিশ্বাস এমন পর্যায়ে পৌঁছেছে যে, জেরুজালেমে এক ব্যক্তিগত নিরাপত্তা কর্মী সন্ত্রাসী মনে করে বুধবার এক ইসরাইলীকে গুলি করে হত্যা করেছে। চলতি মাসের প্রথম দিকে শুরু হওয়া এই সহিংসতায় এ পর্যন্ত ৪৭ ফিলিস্তিনী, একজন আরব ইসরাইলী এবং আট ইসরাইলী নিহত হয়েছে। জর্দান সফরের আগে বান এই সহিংসতায় নিহতদের পরিবারের সঙ্গে দেখা করেন। এদিকে অধিকৃত পূর্ব জেরুজালেমে পবিত্র আল-আকসা মসজিদের আশপাশে সহিংসতা দমনে ফিলিস্তিনীদের আন্তর্জাতিক পর্যবেক্ষক বাহিনী মোতায়েনের আবেদনের পর আন্তর্জাতিক সুরক্ষার বিষয়ে জাতিসংঘ মহাসচিব তার আইনী বিশেষজ্ঞদের তৈরি একটি প্রতিবেদনও তিনি উপস্থাপন করেন।