২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

দুই ম্যানচেস্টারের ভিন্ন রজনী

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ ইউরোপীয় ক্লাব ফুটবলের শ্রেষ্ঠত্বের আসর উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লীগ ফুটবলে ভিন্নরকম রাত কেটেছে দুই ইংলিশ পরাশক্তি ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ও ম্যানচেস্টার সিটির। বুধবার রাতে অনুষ্ঠিত ম্যাচে ম্যানসিটি ভাগ্যগুণে জয় পেলেও কোনরকমে হার এড়িয়ে ড্র করেছে ম্যানইউ।

‘বি’ গ্রুপের অ্যাওয়ে ম্যাচ খেলতে রাশিয়া সফরে যায় ম্যানইউ। স্বাগতিক ক্লাব সিএসকেএ মস্কোর বিরুদ্ধে প্রথমে পিছিয়ে পড়ার পর অ্যান্থনি মার্শালের গোলে ড্র নিয়ে ফিরেছে রেড ডেভিলসরা। গ্রুপের আরেক ম্যাচে জার্মান ক্লাব উলফসবার্গ ২-০ গোলে হারায় হল্যান্ডের পিএসভি আইন্দহোভেনকে। এই জয়ে ৬ পয়েন্ট নিয়ে গ্রুপের শীর্ষে উলফলবার্গ। সমান ৪ পয়েন্ট করে নিয়ে গোলগড়ে ম্যানইউ দ্বিতীয় ও মস্কোর অবস্থান তিন নম্বরে। ‘ডি’ গ্রুপের ম্যাচে স্প্যানিশ ক্লাব সেভিয়ার বিরুদ্ধে ঘরের মাঠে ইতিহাদ স্টেডিয়ামে পিছিয়ে পড়েছিল ম্যানচেস্টার সিটি। তবে পরবর্তীতে আত্মঘাতী গোলে সমতা ও শেষ বাঁশি বাজার মুহূর্তে কেভিন ডি ব্রুইনের গোলে স্বস্তির জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে ম্যানুয়েল পেলেগ্রিনির দল। গ্রুপের আরেক ম্যাচে জার্মানির বরুসিয়া মনশেনগ্ল্যাডব্যাচের সঙ্গে নিজেদের মাঠে গোলশূন্য ড্র করে ইতালিয়ান ক্লাব জুভেন্টাস। এরপরও অবশ্য তিন ম্যাচে ৭ পয়েন্ট নিয়ে গ্রুপের শীর্ষে জুভরা। ৬ পয়েন্ট নিয়ে ম্যানসিটি দ্বিতীয় স্থানে। ৩ পয়েন্ট নিয়ে সেভিয়া আছে তিনে। নিজেদের প্রথম ম্যাচে পিএসভি আইন্দহোভেনের কাছে ২-১ গোলে হারার পর দ্বিতীয় ম্যাচে উলফসবার্গকে একই ব্যবধানে হারিয়ে ঘুরে দাঁড়ায় ম্যানইঊ। কিন্তু তৃতীয় ম্যাচে এসে ফের ধাক্কা খেয়েছে ওয়েন রুনির দল। প্রতিপক্ষের মাঠে ম্যাচের ১৫ মিনিটে পিছিয়ে পড়ে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। ডি বক্সের মধ্যে মার্শালের হাতে বল লাগলে পেনাল্টি পায় মস্কো। ফিনল্যান্ডের মিডফিল্ডার রোমান এরেমেঙ্কোর স্পটকিক অবশ্য দারুণ দক্ষতায় রুখে দেন ইউনাইটেড গোলরক্ষক ডেভিড ডি গিয়া। কিন্তু ফিরতি শটে বল জালে জড়ান আইভরিকোস্ট স্ট্রাইকার সেইডু ডুম্বিয়া। বিরতির পর ৬৫ মিনিটে সমতা ফেরায় অতিথিরা। অ্যান্টেনিও ভ্যালেন্সিয়ার ক্রসে ১২ গজ দূর থেকে দারুণ হেডে দলকে সমতায় ফেরান চলতি মৌসুমেই ওল্ডট্রাফোর্ডে যোগ দেয়া ফরাসি খেলোয়াড় মার্শাল।

শেষ মুহূর্তের গোলে সেভিয়াকে হারিয়ে স্প্যানিশ ক্লাবের বিরুদ্ধে ব্যর্থতার গ-ি থেকে বেরিয়ে এসেছে ম্যানচেস্টার সিটি। ইতিহাদ স্টেডিয়ামে যোগ করা সময়ে সিটির জয়সূচক গোলটি করেন কেভিন ডি ব্রুইনে। ইয়েভেন কোনোপ্লাইয়াঙ্কার গোলে ম্যাচে এগিয়ে যায় সেভিয়া। এরপর আত্মঘাতী গোলে সমতা ফেরায় ইংলিশ ক্লাব। নিজেদের প্রথম ম্যাচে জুভেন্টাসের কাছে ২-১ গোলে হারা ম্যানচেস্টার সিটি দ্বিতীয় পর্বে বরুসিয়া মনশেনগ্লাডব্যাচকে একই ব্যবধানে পরাজিত করে। পরশু রাতে তৃতীয় ম্যাচে নিজেদের মাঠে চাপের মুখে পড়ে পেলেগ্রিনির দল। বল দখলে রেখে একের পর এক আক্রমণ করতে থাকে সেভিয়া। ম্যাচের ৩০ মিনিটে ডি বক্সের মধ্যে থেকে ডান পায়ের শটে দলকে এগিয়ে নেন ইউক্রেনের মিডফিল্ডার ইয়েভেন কোনোপ্লাইয়াঙ্কা।

পিছিয়ে পড়ার ধাক্কা সামলে আক্রমণাত্মক ফুটবল শুরু করে সিটি। প্রথম সাফল্য আসে আত্মঘাতী গোলের সৌজন্যে। ৩৬ মিনিটে ডি বক্সের ডান দিক থেকে উইলফ্রেইড বোনির শট আডিল রামির পায়ে লেগে দিক পাল্টে জালে জড়ায়। ম্যাচটি যখন ড্রয়ের দিকে যাচ্ছিল তখনই চমক দেখান ব্রুইনে। ৯১ মিনিটে ডি বক্সের মধ্য থেকে আচমকা বাঁ পায়ের জোরালো শটে ম্যানসিটির হয়ে জয়সূচক গোলটি করেন বেলজিয়ামের এই মিডফিল্ডার।