২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ফেরার লড়াইয়ে রুবেল-তাসকিন

ফেরার লড়াইয়ে রুবেল-তাসকিন
  • নবেম্বরের শুরুতেই আসছে জিম্বাবুইয়ে জাতীয় ও অনুর্ধ-১৯ দল

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ এক বছর বন্ধ থাকার পর এবার আবারও শুরু হচ্ছে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগ (বিপিএল) টি২০ আসর। ২০১২ ও ২০১৩ সালে প্রথম দু‘টি আসর অনুষ্ঠিত হয়েছিল। তৃতীয় এ আসরের ইতোমধ্যেই ‘প্লেয়ার্স বাই চয়েস’ প্রক্রিয়ায় ক্রিকেটারদের দলে ভিড়িয়েছে অংশগ্রহণকারী ৬ ফ্র্যাঞ্চাইজি। তবে বিপিএলের তৃতীয় আসরের আগে দেশের ক্রিকেটাররা নিজেদের ঝালিয়ে নেয়ার সুযোগ পাবেন জিম্বাবুইয়ের বিরুদ্ধে সিরিজ খেলার মধ্য দিয়ে। চলতি মাসে অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দলের সফর নিরাপত্তার শঙ্কায় স্থগিত হওয়াতে জিম্বাবুইয়ের বিরুদ্ধে সিরিজ আয়োজন করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। ইতোমধ্যেই চূড়ান্ত হয়ে গেছে সফরসূচী। আগামী ২ নবেম্বর বাংলাদেশের মাটিতে পা রাখবে জিম্বাবুইয়ে ক্রিকেট দল ৩ ওয়ানডে ও ২ টি২০ খেলার জন্য। প্রায় একই সময়ে আসবে জিম্বাবুইয়ে অনুর্ধ-১৯ দলও। ৭ নবেম্বর ঢাকায় আসার পর চার ওয়ানডের সিরিজ খেলবে তারা বাংলাদেশ অনুর্ধ-১৯ দলের বিরুদ্ধে।

জিম্বাবুইয়ের বিরুদ্ধে খেলা নিয়ে সংশয় আছে দেশের অন্যতম দুই পেসার রুবেল হোসেন ও তাসকিন আহমেদের। তবে ফেরার জন্য লড়াই চালিয়ে যাচ্ছেন এ দুই নির্ভরযোগ্য পেসার। উভয় ক্রিকেটারই সর্বশেষ আন্তর্জাতিক সিরিজে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে খেলেননি। জিম্বাবুইয়ের বিরুদ্ধে মাঠে ফেরার সম্ভাবনা ফিফটি-ফিফটি থাকলেও বিপিএলে খেলবেন সেটা প্রায় নিশ্চিত। এবার রুবেল সিলেট সুপারস্টারর্সের হয়ে মাঠে নামবেন আর তাসকিন খেলবেন চিটাগাং ভাইকিংসের হয়ে। এ বিষয়ে রুবেল বলেন, ‘আমি তো চেষ্টা করছি। সিডিউল অনুযায়ী আমার ফিজিও যেভাবে আমাকে বলেন আমি ওইভাবেই চেষ্টা করে যাচ্ছি। আমি আমার সেরা চেষ্টাই করছি। যেন জিম্বাবুয়ে সিরিজটা আমি খেলতে পারি। খেলার সম্ভাবনা আসলেই ফিফটি ফিফটি। কারণ এখনও একটু ব্যথা আছে। কিভাবে ইনজুরি থেকে ফেরা যায় সেটা নিয়ে ভাবছি। সামনে বিপিএল আছে, জিম্বাবুয়ে সিরিজ আছে। এই দুইটাই বড় জিনিস। আমার নজর এদিকেই। আমি আশাবাদী যে জিম্বাবুয়ে সিরিজটা খেলতে পারব।’ তাসকিনও আপ্রাণ চেষ্টায় আছেন জিম্বাবুইয়ে সিরিজেই দলে খেলায় ফেরার জন্য। এ বিষয়ে এ তরুণ পেসার বলেন, ‘আল্লাহর রহমতে অবস্থা এখন অনেক ভাল। বিপিএলটাই মূলত লক্ষ্য ছিল। বিপিএল নিয়ে কোন সন্দেহ নেই। ওইটা খেলতে পারব। বিপিএলের আগে হঠাৎ করে জিম্বাবুয়ে সিরিজ হচ্ছে তো আশা রাখি বাকিটা আল্লাহর ইচ্ছা। আমি আমার সেরা চেষ্টা করব জিম্বাবুয়ে সিরিজের আগে ফিট হওয়ার। জিম্বাবুয়ে সিরিজ খেলার অনেক ইচ্ছা আছে। সুস্থ থাকাটাও অনেক গুরুত্বপূর্ণ ফাস্ট বোলারের জন্য। আমি চেষ্টা করব অবশ্যই জিম্বাবুয়ে সিরিজে দলে ফেরার জন্য।’ জিম্বাবুইয়ের বিরুদ্ধে সিরিজের সময়সূচী নির্ধারণ হয়ে গেছে। ২ নবেম্বর বাংলাদেশে আসবে জিম্বাবুইয়ে জাতীয় দল। ৫ নবেম্বর একমাত্র প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে তারা ফতুল্লায়। এরপর ৭, ৯ ও ১১ নবেম্বর তিনটি দিবারাত্রির ওয়ানডে খেলবে তারা। সিরিজের দুই ম্যাচের টি২০ হবে ১৩ ও ১৫ নবেম্বর। সবগুলো ম্যাচই দেশের ‘হোম অব ক্রিকেট’ মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হবে। জিম্বাবুইয়ে জাতীয় দল আসার ৫ দিন পরেই (৭ নবেম্বর) বাংলাদেশে পা রাখবে তাদের যুব দল। বাংলাদেশ যুব দলের বিরুদ্ধে তারা ৪ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ খেলবে চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে। ১০, ১২, ১৪ ও ১৬ নবেম্বর ম্যাচগুলো অনুষ্ঠিত হবে। বিপিএলের আগে তাই আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতামূলক ক্রিকেট খেলার দারুণ সুযোগ ক্রিকেটারদের। ২২ নবেম্বর শুরু হওয়ার কথা রয়েছে বিপিএল।