২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ক্যালিসই কেকেআরের প্রধান কোচ

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লীগের (আইপিএল) দল কলকাতা নাইট রাইডার্সের (কেকেআর) প্রধান কোচ হিসেবে নিয়োগ পেলেন জ্যাক ক্যালিস। বলিউড কিং শাহরুখ খানের দলের পক্ষ থেকেই বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে। এর ফলে ট্রেভর বেলিসের উত্তরসূরি হিসেবে কেকেআরের দায়িত্ব পালন করবেন দক্ষিণ আফ্রিকার অলরাউন্ডার ক্যালিস। গত ৪ বছর ধরেই দলটির প্রধান কোচ হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছিলের বেলিস। সম্প্রতি ইংল্যান্ড জাতীয় ক্রিকেট দলের কোচের দায়িত্ব নিয়েছেন তিনি। এর ফলেই দক্ষিণ আফ্রিকার সাবেক তারকা ক্রিকেটার ক্যালিসকে বেলিসের স্থলাভিষিক্ত করে কলকাতা নাইট রাইডার্স কর্তৃপক্ষ।

কেকেআরের সঙ্গে জ্যাক ক্যালিসের যাত্রাটা সেই ২০১১ সালে। খেলোয়াড় হিসেবে দলটির সঙ্গে সম্পর্ক শুরু করেন ক্যালিস। এরপর গত বছরই বদলে যায় তার পারফরমেন্সের জায়গা। দলের ব্যাটিং পরামর্শক হিসেবেও কাজ করেন ইতিহাসের অন্যতম সেরা এই অলরাউন্ডার। ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লীগের দুইবারের চ্যাম্পিয়ন কেকেআর। ২০১২ সালে প্রথমবার চ্যাম্পিয়ন হয় শাহরুখ খানের দল। এরপর ২০১৪ সালে টি-টুয়েন্টি টুর্নামেন্টের সবচেয়ে জনপ্রিয় এই আসরের শিরোপা জিতে তারা। শুধু তাই নয়, ২০১৪ সালে আইপিএলের শিরোপা জয়ের পাশাপাশি চ্যাম্পিয়ন্স লীগ টি-টোয়েন্টি আসরেও রানার্সআপ হওয়ার গৌরব অর্জন করে তারা। আর ক্লাবকে আইপিএলে চ্যাম্পিয়ন করার পাশাপাশি চ্যাম্পিয়ন্স লীগে রানার্স আপ করার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন জ্যাক ক্যালিস। এবার যেন তারই স্বীকৃতি পেলেন এই দক্ষিণ আফ্রিকান। গুরুত্বপূর্ণ এই দায়িত্ব পেয়ে রোমাঞ্চিত ক্যালিস। তবে দলকে পরিবার হিসেবেই দেখেন তিনি। এ বিষয়ে ক্যালিস বলেন, ‘ভারতে আমার পরিবার বলতে কেকেআরকেই বুঝি। ২০১১ সাল থেকে দলটির সঙ্গে যে সম্পর্ক রয়েছে, তা আমার জীবনের সবচেয়ে উপভোগ্য অভিজ্ঞতাগুলোর একটি। আমি নতুন চ্যালেঞ্জ গ্রহণের জন্য অপেক্ষায় রয়েছি।’ তার ওপর দায়িত্ব প্রদান করে ক্লাব কর্তৃপক্ষও সন্তুষ্ট। ক্যালিসকে প্রধান কোচ করার ঘোষণা দিয়ে কেকেআরের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক ভিঙ্কি মাইসোর বলেন, ‘জ্যাক ক্যালিস দলের প্রধান কোচের দায়িত্ব নেয়ায় আমরা খুবই খুশি। ড্রেসিংরুমে সে শ্রদ্ধা-সম্মানের পরিবেশ সৃষ্টি করতে পারে এবং দলের কর্মকর্তাদের পছন্দ করে। ক্যালিসকে প্রধান কোচ বানানোর ক্ষেত্রে ওটাই আমাদের অনুপ্রাণিত করেছে।’