২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

হাল্কা শীতে কোটির ফ্যাশন

ওয়েস্টকোট বা কোটি যাই বলি না কেন সধারণত পশ্চিমাদের পোশাক হলেও বর্তমানে সারাবিশ্বে এর জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি পেয়েছে। একটা সময় ছিল যখন কোটি কেবলমাত্র ব্লেজার, স্যুট কিংবা ওভার কোটের নিচেই বেশি শোভা পেত। মূলত শীতের হাত থেকে রক্ষা পেতেই ব্যবহৃত হতো। কিন্তু এখনকার সময়ে কোটির ফ্যাশনে ঘটেছে বিশাল পরিবর্তন। ফ্যাশনের অন্যতম উপাদান হিসেবে কোটি তরুণ-তরুণীদের কাছে ভীষণ জনপ্রিয়। মিস্টার পারফেকশন হিসেবে খ্যাত আমির খান, বলিউড কিং শাহরুখ খান থেকে শুরু করে হলিউডের এ্যাকশন কিং টম ক্রুজসহ সবাই কম-বেশি তাদের মুভিতে কোটির ব্যবহার করেছেন। তাদের মধ্য থেকে আমির খান তার অভিনীত মুভি যেমন- মান, গাজনি ও ধুম-৩ এ সবচেয়ে বেশি কোটির ব্যবহার করেছেন।

দরজায় কড়া নাড়ছে শীত। শীতে অনেকেই ফ্যাশনের অনুষঙ্গ হিসেবে মাফলার, জ্যাকেট, উলের ক্যাপ প্রভৃতি ব্যবহার করে থাকেন। মূলত শীতের হাত থেকে রক্ষা পেতেই এসব বাড়তি কাপড়ের অয়োজন। তবে কাপড়টি অবশ্যই ফ্যাশনেবল হওয়া চাই। ঠিক তেমনি একটি পোশাক কোটি। কোটিও হতে পারে হালকা শীতে ফ্যাশনের অন্যতম অনুষঙ্গ।

ফরমাল, ক্যাজুয়াল, পাঞ্জাবি, শাড়ি, সালোয়ার-কামিজ, টপস-স্কার্ট, ফ্লোর টাচ লং সিøভ অথবা আনারকলি পোশাকের সঙ্গেও ব্যবহৃত হচ্ছে কোটি। কোটির ডিজাইন এবং মানে এসেছে বৈচিত্র্য। ফ্যাশনের বাজারে ছেলেদের গোলগলা এবং ভি-গলা এই দুই ধরনের কোটিতে প্রচলিত রয়েছে। কোটিগুলো সাধারণত এক রঙা কিংবা চেক চেক হতে পারে। কোটির সঙ্গে যদি গলায় সিল্কের মাফলার অথবা কোটির পকেটে যদি একটা সিল্কের রুমাল গুঁজে দেয়া যায়, তবে এই হালকা শীত নিবারণের সঙ্গে ফ্যাশনও হবে মনের মতো। কোটির বৈচিত্র্যটা রয়েছে মেয়েদের বেলায়ও। ফ্যাশন ভেদে মেয়েদের কোটি ছোট-বড় হয়ে থাকে। রঙ এবং কাজের বেলায়ও মেয়েদের কোটি বাড়তি দৃষ্টি কাড়ে। মূলত টিন এজ বয়সী মেয়েদের ক্ষেত্রে কোটির ব্যবহার সবচেয়ে বেশি পরিলক্ষিত হয়। কোটির কথা বললে অনেকের মনে যে রূপটা ভেসে ওঠে তা হলোÑ হাতাকাটা, দৈর্ঘ্যে ছোট, মোটা কাপড়ের ওপর নক্সা, সামনের দিকে কাটা এক পোশাক। বর্তমানে মেয়েদের কাছে সামনের দিকে কাটা কোটি এবং টিউনিকের মতো ডিজাইন করা কোটির বেশ প্রচলন রয়েছে। এ সমস্ত কোটিতে কখনো ব্লক-প্রিন্ট আবার কখনো বা জারদৌসি অথবা জরির কাজের আঁচর পড়ছে। কোনটিতে আবার সিম্পল লেস এবং ব্রাশ পেইন্টের ব্যবহারও লক্ষ্য করা যায়। স্বাচ্ছন্দ্যবোধ এবং ফ্যাশনকে মাথায় রেখে আমাদের ফ্যাশন ডিজাইনাররা বিভিন্ন বয়সী নারীদের জন্য প্রতিনিয়ত নিত্যনতুন কোটি ডিজাইন করে যাচ্ছেন।

বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়পড়ুয়া শিক্ষার্থী ঊর্মি মুসকান বলেন, ছোটবেলা থেকেই কোটির প্রতি আমার বাড়তি ঝোঁক আছে। ছোট অবস্থায় যে জামাই পরতাম না কেন কোটি পরাটা আমার কাছে বাধ্যতামূলক ছিল। এখন অবশ্য সেভাবে কোটি পরা হয় না। তবে শীতকাল আসলে বিভিন্ন ধরনের এবং ফ্যাশনেবল কোটি আমার ফ্যাশন তালিকায় প্রথম দিকে থাকে।

কোথায় পাবেনÑ

কোটি মূলত ঢাকাসহ সারাদেশেরে বিপণিবিতানগুলোতে পাওয়া যাবে। ঢাকার বঙ্গবাজার, নিউমার্কেট, গুলশান ডিসিসি মার্কেট, ইস্টার্ন প্লাজা, ইস্টার্ন মল্লিকা, বসুন্ধরা সিটি, যমুনা ফিউচার পার্ক, রাপা প্লাজা, সুবাস্তু আর্কেডসহ বিভিন্ন শপিংমলে বিভিন্ন ধাঁচের কোটি পাওয়া যায়। এছাড়াও বিভিন্ন দেশী ব্র্যান্ডের শোরুম থেকে নিজের পছন্দসই কোটি বেছে নিতে পারেন আজই। এসকল কোটিগুলো গুণগত মান ভেদে ১২০০ টাকা থেকে ৪৫০০ টাকা পর্যন্ত হয়ে থাকে।

নাসিফ শুভ

ছবি : তাহসিন

মডেল : সেলিম, রাসেল ও নীহারিকা

নির্বাচিত সংবাদ
এই মাত্রা পাওয়া