১২ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

সৈয়দপুর রেল কারখানায় কালের সাক্ষী প্রাচীন স্টিম ইঞ্জিন

সৈয়দপুর রেল কারখানায়  কালের সাক্ষী  প্রাচীন স্টিম ইঞ্জিন

স্টাফ রির্পোটার, নীলফামারী॥' রেলগাড়ি ঝমাঝম, পা পিছলে আলুর দম।' এখনো রেলগাড়ি দেখলেই নানা বয়সীরা আপনা-আপনি আওড়ে চলে এমন অনেক ছড়া। ট্রেন দেখলেই মানুষের মনে আছে 'কুউ-উ-উ' করে তীব্র হুইসেল আর কালো ধোঁয়ার কন্ডুলি পাকিয়ে হিস হিস শব্দে চলা কয়লার ইঞ্জিনের কথা। সে সময় ব্রডগেজ (বড়লাইন) মিটারগেজ(ছোট লাইন) এবং ন্যারোগেজে ট্রেন চলতো এই কয়লা ইঞ্জিন দিয়েই। আজ সেই দিন হারিয়ে গেছে। সময়ের বিবর্তনে কয়লা চালিত স্টিম ইঞ্জিনের জায়গা দখল করেছে ডিজেল ইঞ্জিন। সংযোজিত হয়েছে অত্যাধুনিক কমিউটার ও ডেমু ট্রেন। বিশ্বে বিশেষ করে চীন জাপান,জার্মানিতে চলছে তিনশত কিলোমিটার গতির হাই সুপার ট্রেন।

সেই কয়লার চালিত স্টিম ইঞ্জিন হারিয়ে গেলেও সেটি কালের স্বাক্ষি হিসাবে সংরক্ষন করে রাখা হয়েছে সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানার ভবনের সামনে। বিশেষ করে ছুটির দিন গুলোতে বিভিন্ন স্থান থেকে দর্শনার্থীরা স্টিম ইঞ্জিন দেখতে ছুটে আসে। আজ শুক্রবার সেখানে দর্শনার্থীরা ভিড় করছে।

এই স্টিম ইঞ্জিন গুলো সর্ম্পকে জানা যায় ১৯০১ সালে ইংল্যান্ডের ভলক্যান ফাউন্ড্রি কো¤পানি লিমিটেড এই ইঞ্জিনগুলো তৈরি করেছিল। উতসুক পথিকও কৌতূহল নিয়ে বার বার ফিরে তাকায় নীরবে দাঁড়িয়ে থাকা সেই প্রাচীন স্টিম ইঞ্জিনের পানে।