২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

রাজশাহীতে শিশুপুত্রের সামনে স্ত্রীকে বালিশ চাপা দিয়ে হত্যা ॥ স্বামী আটক

  • পরকীয়ায় বাধা

স্টাফ রিপোর্টার, রাজশাহী ॥ দুর্গাপুরে পরকীয়ায় বাধা দেয়ায় শিশুপুত্রের সামনেই বালিশ চাপা দিয়ে স্ত্রীকে হত্যা করেছে পাষ- স্বামী। শুক্রবার ভোরে এ ঘটনা ঘটে। পরে স্বামীকে আটক করে পুলিশে দিয়েছে এলাকাবাসী। নিহত গৃহবধূর নাম রওশন আরা (২৫)। তিনি দুর্গাপুর উপজেলার সাহাবাজপুর গ্রামের আবু বাক্কারের কন্যা।

নিহতের পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, ১০ বছর আগে নরসিংদী জেলা সদরের বাসিন্দা আব্দুল বাতেনের ছেলে আমজাদ আলীর সঙ্গে বিয়ে হয় দুর্গাপুরের সাহাবাজপুর গ্রামের আবু বাক্কারের কন্যা রওশন আরার। বিয়ের পর থেকে শ্বশুরবাড়িতে ঘরজামাই হিসেবেই থাকতেন আমজাদ আলী।

নিহত গৃহবধূর মা সেলিনা বেগম জানান, তিন বছর থেকে ঢাকায় গার্মেন্টসের এক মেয়ের সঙ্গে আমজাদ আলী পরকীয়ার সম্পর্ক গড়ে তোলে। আমজাদ সব সময় মোবাইল ফোনে ওই মেয়ের সঙ্গে কথা বলে এবং মাঝে মধ্যে দেখা করতে ঢাকায় যেত। বিষয়টি বুঝতে পেরে রওশন প্রতিবাদ করে। তারপর থেকে প্রায় সময় কারণে-অকারণে তাকে নির্যাতন করত স্বামী আমজাদ।

নিহতের মামা সাখাওয়াত হোসেন জানান, বৃহস্পতিবার বিকেলে আমজাদ বাড়ি বসে মোবাইল ফোনে ওই গার্মেন্টস কর্মীর সঙ্গে দীর্ঘ সময় ধরে কথা বলতে থাকে। এক পর্যায়ে রওশন আরা প্রতিবাদ করে। এ নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া হয়। সাখাওয়াত হোসেনের দাবি, এ ঝগড়ার জের ধরে শুক্রবার ভোরে নিজের ঘরে বালিশ চাপা দিয়ে গৃহবধূকে হত্যা করে তার স্বামী আমজাদ আলী।

এ সময় তাদের ছেলে রাশেদুল ইসলাম (৯) কান্নাকাটি শুরু করলে প্রতিবেশীরা এসে আমজাদ আলীকে আটক করে। পরে দুর্গাপুর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে আমজাদকে আটক করে। সকালে রওশন আরার লাশ উদ্ধার করে সুরতহাল রিপোর্ট শেষে ময়নাতদন্তের জন্য রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়। দুর্গাপুর থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) পরিমল কুমার চক্রবর্তী জানান, হত্যাকা-ের খবর পেয়ে অভিযুক্ত আমজাদকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে।