১৬ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ছোট লালনকন্যা শীতলের সম্ভাবনা

মুস্তারীন আহমেদ শীতলকে বলা যায় ছোট লালনকন্যা। তার কণ্ঠে লালনের গান আলোড়িত করছে চারিদিক। সবে একাদশ শ্রেণীর ছাত্রী। এই বয়সেই মুন্সীগঞ্জ তথা বিক্রমপুরে লালনের বাণী ছড়িয়ে দিচ্ছে সুরে আর ছন্দে। ‘আমি অপার হয়ে বসে আছি ওহে দয়াময়, পারে লয়ে যাও আমায়...,’ এসব গান শীতলের কণ্ঠে চারদিকে সৃষ্টি করছে মোহনীয় ইন্দ্রজাল। বিক্রমপুর কেবি ডিগ্রী কলেজে একাদশ শ্রেণীর মানবিক বিভাগের ছাত্রী। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ছাড়াও বিভিন্ন অনুষ্ঠানে গান গেয়ে নিজের অবস্থান জানান দিয়েছে। দরিদ্র পরিবারের সন্তান শীতলের বাবা হাসান আহম্মেদ ইছাপুরা বাজারে দরজির কাজ করেন। একমাত্র ভাইও বাবার সঙ্গে আছে। মা ফারহানা আহমেদ গৃহিণী। এক ভাই এক বোনের মধ্যে শীতল ছোট। মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেলার ইছাপুরা গ্রামে তাদের বসতি। ছোটবেলা থেকেই তার খানের প্রতি ঝোঁক। বাবা-মা ইছাপুরের অগ্নিবীণা ললিতকলা একাডেমিতে ভর্তি করে দেন আট বছর বয়সে। এই একাডেমির প্রতিষ্ঠাতা এজাজ হোসেন খানের থেকে সে তালিম নেয়। এখন লালনকন্যা ফরিদা পারভীনের কাছে দীক্ষা নিচ্ছে।

Ñমীর নাসিরউদ্দিন উজ্জ্বল, মুন্সীগঞ্জ থেকে