২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ব্যবসায় সূচকে দুই ধাপ পেছানোয় ঢাকা চেম্বারের উদ্বেগ

ব্যবসায় সূচকে দুই ধাপ পেছানোয় ঢাকা চেম্বারের উদ্বেগ

স্টাফ রিপোর্টার ॥ ডুয়িং বিজনেস শীর্ষক সূচকে বাংলাদেশের দুই ধাপ অবনমনে উদ্বেগ প্রকাশ করে ঢাকা চেম্বার অব কর্মাস অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (ডিসিসিআই) সভাপতি হোসেন খালেদ বলেছেন, ব্যবসার উন্নয়ন এবং ব্যবসায়িক খরচ কমাতে বিদুৎ সংযোগ অপরিহার্য হয়ে পড়েছে। তবে বিদ্যুৎ সংযোগ দিলেই হবে না, তা হতে হবে কোয়ালিটি সম্পন্ন।

শনিবার ঢাকা চেম্বার অব কর্মাস অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি বোর্ড রুমে ‘ডুয়িং বিজনেস-২০১৬’ শীর্ষক বৈশ্বিক সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান পর্যালোচনা বিষয়ক এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।

উৎপাদনশীল খাতে বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়ার আহ্বান জানিয়ে হোসেন খালেদ বলেন, বিদ্যুৎ সংযোগের ক্ষেত্রে উৎপাদশীল খাতকে প্রাধান্য দিতে হবে। এ মুহূর্তে বিদ্যুৎ দিলে শুধু চট্টগ্রামেই ৩ হাজার শিল্পকারখানা দ্রুত চালু করা যাবে।

তিনি আরও বলেন, বিশ্বব্যাংকের করা এ রিপোর্টটি বাংলাদেশের জন্য অত্যন্ত ইতিবাচক। আশা করি সরকার রিপোর্টটিকে ইতিবাচক হিসাবেই দেখবে। কোন কোন জায়গায় আমাদের সমস্যা আছে এবং কোন কোন জায়গায় আমাদের ভালো করতে হবে তা প্রতিবেদনটিতে উঠে এসেছে। এখন সরকারকে মনোযোগ দিয়ে এ পতিবেদন পর্যবেক্ষণ করতে হবে এবং কিছু পদক্ষেপ নিতে হবে। তিনি বলেন, অন্যান্য দেশের মত বাংলাদেশর অর্থনীতিও ক্ষুদ্র ও মাঝারী ব্যবসায়ীদের ওপর নির্ভরশীল। ক্ষুদ্র ও মাঝারী শিল্পের উন্নয়নে সরকারকে আরও বেশি মনযোগ প্রদান করতে হবে। ব্যবসার সর্বত্র খরচ বৃদ্ধি পাচ্ছে উল্লেখ করে তিনি ব্যবসায়ীদের অপ্রয়োজনীয় খরচ হ্রাসের আহ্বান জানান।

সূচকে বাংলাদেশের অবনমন প্রসঙ্গে হোসেন খালেদ বলেন, সরকারকে দোষারোপ করার কিছু নেই। সরকার অনেকগুলো নতুন পদ্ধতি হাতে নিয়েছে। উপরের মহলের স্বদ্বিচ্ছা থাকলেও মধ্যমদিকে এসে মনযোগটা তেমন থাকে না। সার্বিক পরিস্থির উন্নয়নের জন্যে ব্যবসায়িক মাধ্যমগুলোকে ডিজিটাইজেশন করতে হবে।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, ব্যবসা-বাণিজ্যের পরিবেশ বিচারে বাংলাদেশ দুই ধাপ পিছিয়েছে। বিশ্বের ১৮৯ টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান এখন ১৭৪ নম্বরে। গত বছর এ সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান ছিল ১৭২ তম। ডুয়িং বিজনেস ২০১৬ এর ছয়টি সূচকে পিছিয়েছে বাংলাদেশ। ব্যবসা শুরুর সূচক ছাড়াও নিবন্ধীকরণ সম্পদ, ঋণপ্রাপ্তি, ক্ষুদ্র বিনোয়গকারী রক্ষা ও কর পরিশোধ সূচকগুলোতে পিছিয়েছে বাংলাদেশ। এছাড়া পাঁচটি সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান অপরিবর্তিত রয়েছে।

বিশ্বব্যাংকের অঙ্গসংস্থা আন্তর্জাতিক অর্থবিষয়ক কর্পোরেশন (আইএফসি)’র ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, ১৮৯ টি দেশের ৬০ শতাংশ দেশ ব্যবসার নীতিতে উন্নতি করেছে। এ তালিকার প্রথম অবস্থানে রয়েছে সিঙ্গাপুর। তালিকার শীর্ষে থাকা অন্য দেশগুলো হচ্ছে নিউজিল্যান্ড, ডেনমার্ক, দক্ষিণ কোরিয়া, হংকং, যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র, সুইডেন, নরওয়ে ও ফিনল্যান্ড।

দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে ভারত ডুয়িং বিজনেস সূচকে ১২ ধাপ এগিয়েছে। দেশটি ১৪২ তম স্থান থেকে ১৩০তম স্থানে উঠে এসেছে। তালিকায় ১০ ধাপ পিছিয়েছে পাকিস্তানের বর্তমান অবস্থান ১৩৮ তম। ভুটানের অবস্থান ১২৫ তম। দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে সবচেয়ে ভালো অবস্থানে রয়েছে নেপাল। ৫ ধাপ পিছিয়ে দেশটির অবস্থান ৯৯তম।

সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ডিসিআইয়ের উর্ধ্বতন সহ-সভাপতি হুমায়ুন রশিদ, সহ সভাপতি সোয়েব চৌধুরি, বিইউআইএলডি’র ফেরদৌস আরা বেগম প্রমুখ।