২৩ অক্টোবর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

শিল্পকলায় হেমন্ত সন্ধ্যায় ‘দুই যে ছিলো এক চাকর’ মঞ্চস্থ

শিল্পকলায় হেমন্ত সন্ধ্যায় ‘দুই যে ছিলো এক চাকর’ মঞ্চস্থ
  • সংস্কৃতি সংবাদ

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বিশ্বখ্যাত নাট্যকার কার্লো গোলডোনি। প্রায় ৩০০ বছর আগে তিনি লিখেছিলেন ‘দ্য সার্ভেন্ট অব টু মাস্টারস’ শীর্ষক কমেডি। ২০১২ সালে এই প্রযোজনাটিকে বাংলায় রূপান্তর ও নির্দেশনা দিয়ে মঞ্চে আনেন তারিক আনাম খান। নাট্যদল নাট্যকেন্দ্রর ১২তম এই প্রযোজনাটির শিরোনাম দেয়া হয় ‘দুই যে ছিলো এক চাকর’। হাস্যরসের মাধ্যমে শ্রমজীবী মানুষের জীবনের গল্প উপস্থাপিত হয়েছে নাটকটিতে। কুশীলবদের সুচারু অভিনয়ে যুক্ত নাচ ও গান। ঘটানো হয়েছে দেশজ ও পাশ্চাত্য সঙ্গীতের মেলবন্ধন। মঙ্গলবার হেমন্ত সন্ধ্যায় শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালার প্রধান মিলনায়তনে মঞ্চস্থ হলো নাটকটি।

নাটকের কাহিনী গড়ে উঠেছে কিছু মানুষের লোভ-লালসা মিথ্যা আর মুখোশের আড়ালে লুকিয়ে থাকা নানা টানাপোড়েন নিয়ে। চান্দগাঁও শহরের গোফরান আলী চৌধুরী তার মেয়ে আনারকলির বিয়ে ঠিক করেছিলেন তুরানের ধনাঢ্য ব্যবসায়ী দস্তগীরের সঙ্গে। এদিকে এক দ্বন্দ্ব যুদ্ধে মারা যায় আব। যার ফলে গোফরান চৌধুরী তার কন্যা আনারকলির সঙ্গে ওই শহরের সম্ভ্রান্ত প-িত হেকিম জং বাহাদুরের ছেলে সেলিম জং বাহাদুরের বিবাহে সম্মতি দেন। সেলিম ও আনারকলি একে অপরকে ভালবাসে। বিয়ের চূড়ান্ত কথাবার্তার দিন হঠাৎ ঘটনাক্রমে আভির্ভূত হয় আব্দুল্লাহ দস্তগীর। সে এখন দাবি করে আনারকলিকে। শুরু হয় টানাপোড়েন। আসলে আব্দুল্লাহ দস্তগীরের ছদ্মবেশে হাজির হয়েছে তারই বোন মেহেরুন্নিসা। মেহেরুন্নিসা ভালবাসতো শাহবাজ আলী খাঁকে। তার ভাই দস্তগীর সেটা মেনে নেয়নি। দ্বন্দ্বযুদ্ধে শাহবাজের হাতে মারা যায় মেহেরুন্নিসার দস্তগীর। মেহেরুন্নিসা টাকা-পয়সাগুলো উদ্ধারের জন্য এসেছে। সঙ্গে নিয়ে আসে চাকর তৈমুর মিয়াকে। ঘটনা মোড় নেয় নতুন বাঁকে। ঘুরতে ঘুরতে এই শহরেই আসে শাহবাজ আলী খাঁ। মেহেরুন্নিসা আর শাহবাজ দু’জনেই নিয়েছে ছদ্মবেশ। বেশি পয়সার শাহবাজের চাকরের চাকরিও নিয়ে নেয় তৈমুর। শুরু হয় দুই চাকরির টানাপোড়েন। ঘটতে থাকে নতুন নতুন বিপত্তি আর ঘটনা।

নাটকটির বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন- সাদিকা ইয়াসমিন শান্তনা, হাবিব মাসুদ খান, লুসি তৃপ্তি গোমেজ, শরীফ হোসেন ইমন, সাইফউদ্দিন আহমেদ, ইউসুফ হাসান অর্ক, সঙ্গীতা চৌধুরী, আরিফ প্রমুখ।

পাঁচ বেসরকারী টিভির আইন লঙ্ঘন ॥ বুঝে কিংবা না বুঝে প্রায়শই আইন লঙ্ঘন করছে বেসরকারী টিভি চ্যানেলগুলো। বিশেষ করে ধূমপানের দৃশ্য প্রচারের ক্ষেত্রে হরহামেশই ঘটছে বিধি লঙ্ঘন। সেই সূত্রে এবার পাঁচটি বেসরকারী চ্যানেলের বিরুদ্ধে আইন লঙ্ঘনের অভিযোগ এনেছে তথ্য মন্ত্রণালয়। ধূমপান ও তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহার নিয়ন্ত্রণ (সংশোধন) আইন ২০১৩ লঙ্ঘনের অভিযোগ আনা হয়েছে চ্যানেলগুলোর বিরুদ্ধে। মন্ত্রণালয় থেকে চ্যানেলগুলোকে আইন লঙ্ঘনের কারণ জানতে চাওয়া হয়েছে। আইন লঙ্ঘনকারী অভিযুক্ত এই পাঁচটি চ্যানেল হলো- এটিএন বাংলা, আরটিভি, এনটিভি, মাছরাঙা ও বাংলা ভিশন। এসব চ্যানেলে প্রচারিত নাটকে ধূমপানের দৃশ্য প্রদর্শন করা হয় বলে তথ্য মন্ত্রণালয়ে অভিযোগ জানায় এনভায়রনমেন্ট কাউন্সিল নামে একটি বেসরকারী সংস্থা। অভিযোগের প্রেক্ষিতে চ্যানেলগুলোর কাছে যথাযথ উত্তর জানতে চেয়েছে তথ্য মন্ত্রণালয়।

পাঁচ দিনের চাইনিজ ফুড ফেস্টিভ্যাল ॥ মঙ্গলবার থেকে রাজধানীর সোনারগাঁও হোটেলে শুরু হলো পাঁচ দিনব্যাপী চাইনিজ ফুড ফেস্টিভ্যাল। রকমারি ও নানা স্বাদের শতাধিক ধরনের চীনা খাদ্য উপস্থাপন করা হয় উৎসবে। যৌথভাবে এই চীনা খাদ্য উৎসবের আয়াজন করেছে প্যান প্যাসিফিক সোনারগাঁও হোটেল, চায়না রেডিও ইন্টারন্যাশনাল, ইডাচু লিমিটেড চায়না ও ঢাকাস্থ চীনা দূতাবাস।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকাস্থ চীনা রাষ্ট্রদূত মা মিংকিয়াং। প্রথম দিনের উৎসবে সৃষ্টিশীল রন্ধনশিল্পের ওপর একটি কর্মশালা ও সাংস্কৃতিক পরিবেশনা অনুষ্ঠিত হয়।

আগামী ৭ নবেম্বর পর্যন্ত চলবে পাঁচ দিনব্যাপী এই ফুড ফেস্টিভ্যাল। ভোজনরসিকরা সর্বনিম্ন সাড়ে হাজার টাকায় এই বুফে ডিনারে অংশ নানা রকমের চীনা খাদ্যের স্বাদ নিতে পারবেন। এ উৎসবে অংশ নেবেন চীনের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন সাতজন শেফ।

চিত্রকর্ম প্রদর্শনী প্রকৃতির সঙ্গে সংস্কৃতি ॥ শুক্রবার থেকে আলিয়ঁস ফ্রঁসেজ দো ঢাকার লা গ্যালারিতে শুরু হচ্ছে চিত্রশিল্পী বিপদ ভঞ্জন সেন কর্মকারের চতুর্থ একক চিত্রকর্ম প্রদর্শনী। ওই দিন বিকেল সাড়ে ৫টায় প্রকৃতির সঙ্গে সংস্কৃতি শীর্ষক উদ্বোধন হবে। আলিয়ঁসের ক্যাফে-লা- ভেরান্দায় উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন বিশিষ্ট চিত্রশিল্পী সমরজিৎ রায় চৌধুরী। প্রদর্শনীতে ঠাঁই পাবে ৪০টি চিত্রকর্ম। প্রদর্শনী চলবে ১৯ নবেম্বর পর্যন্ত। সোম থেকে বৃহস্পতিবার বেলা ৩টা থেকে রাত নয়টা এবং শুক্র ও শনিবার সকাল ৯টা থেকে বেলা ১২টা এবং বিকেল ৫টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত প্রদর্শনী খোলা থাকবে। রবিবার সাপ্তাহিক বন্ধ।

নির্বাচিত সংবাদ