১৫ অক্টোবর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ঝুঁকি মোকাবেলায় নিতে হবে কৌশল

  • দু’দিনের এশিয়ান ব্যাংকিং সামিট শুরু

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ এশিয়া অঞ্চলের দেশগুলোর আর্থিক খাতের ঝুঁকি ব্যবস্থাপনা জোরদার করতে ঢাকায় শুরু হয়েছে দুদিনের ‘এশিয়ান ব্যাংকিং সামিট ২০১৫’। রাজধানীর লা মেরিডিয়ান হোটেলের গ্র্যান্ড বলরুমে এই সামিটের আয়োজন করেছে সংযুক্ত আরব-আমিরাত ভিত্তিক আর্থিক সেবা প্রতিষ্ঠান নিমাই ম্যানেজমেন্ট কনসালট্যান্টস।

মঙ্গলবার শুরু হওয়া এ সামিটের উদ্বোধনীতে বাংলাদেশের ঝুঁকি ব্যবস্থাপনা নিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গবর্নর সীতাংশু কুমার সুর চৌধুরী বলেন, আর্থিক খাতে কিছু কিছু ঝুঁকির আবির্ভাব হচ্ছে। এসব ঝুঁকি ব্যাংকগুলোকে তাদের কৌশল দিয়ে মোকাবিলা করতে হবে। সুর চৌধুরী আরও বলেন, ঝুঁকি ব্যবস্থাপনা জোরদার করতে সাম্প্রতিককালে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ ব্যাংক অনেক কিছু সংস্কার করেছে। কারণ আন্তর্জাতিক আর্থিক সংস্থার সদস্য হিসেবে বাংলাদেশ ব্যাংকও এসব নিয়মকানুন বাস্তবায়ন করে থাকে। তিনি বলেন, এসব নিয়মকানুন ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোতে নিশ্চিত করা গেলে ঝুঁকি ব্যবস্থাপনা প্রক্রিয়া গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। তবে বর্তমান অর্থনৈতিক প্রেক্ষাপটে সবচেয়ে বড় ইস্যু হচ্ছে ব্যাংকের কার্যক্রম স্বাভাবিক রাখা। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন আইএফআইসি ব্যাংকের চেয়ারম্যান সালমান এফ রহমান ও মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক লিমিটেডের ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুর রউফ। সালমান এফ রহমান বলেন, সব ধরনের ব্যবসাতেই ঝুঁকি আছে। তবে ব্যাংক ব্যবসার জন্য ঝুঁকি সবচেয়ে বেশি। টেক্সাটাইল, পাট ও আবাসন শিল্পের ঝুঁকি ব্যবস্থাপনা করা না গেলে এ খাত টিকে থাকতে পারবে না। পরিচালন, আমানত, পরিদর্শন, মূলধন তারল্য ও অংশীদারিত্বে ঝুঁকি বৃদ্ধি নিয়ে একটি তথ্যচিত্র বিশ্লেষণ করেন ব্যাংক অব আমেরিকার সাবেক এক্সিকিউটিভ ও দিব্যা চান্দ্রা রিস্ক প্রিন্সিপালের উপদেষ্টা আম্বি ভেঙ্কটেশ্বরন।

‘আঞ্চলিক অর্থনৈতিক প্রবণতা ও আমাদের প্রস্তুতি’ শীর্ষক প্যানেল আলোচনা করেন নিমাই ম্যানেজমেন্ট কনসাল্ট্যান্টসের ফাউন্ডার পার্টনার পঙ্কজ মুন্দ্রা, নিমাই ম্যানেজমেন্ট কনসাল্ট্যান্টস, দিব্যা চান্দ্রা রিস্ক প্রিন্সিপালের উপদেষ্টা আম্বি ভেঙ্কটেশ্বরন, স্কয়ার সার্কেলস’র সিইও ও লিড ট্রেইনার সতীশ মান্ডোরা, নিমাই’র ম্যানেজিং পার্টনার নিসর্গ দুগাড় এবং রয়্যাল ব্যাংক অব স্কটল্যান্ড, ভারতের প্রাক্তন সিইও মীরা স্যানাল, বিআইএসির চিফ এক্সিকিউটিভ এম এ রুমী আলী। এ সময় মীরা স্যানাল বলেন, বাংলাদেশ ২০২১ সালের জন্য একটি স্পষ্ট এবং সুদূরপ্রসারী ভিশন তৈরি করেছে। এশিয়ান ব্যাংকিং সামিট এমন একটি অনন্য সুযোগ সৃষ্টি করেছে যেখানে ব্যাংকিং এবং আর্থিক সেবা প্রতিষ্ঠানের অংশীদাররা একে অপরের কাছ থেকে শিখতে পারবেন, আলোচনা করতে পারবেন এবং জাতীয় লক্ষ্যসমূহ অর্জনে সফলতা লাভ করা যায় সে ব্যাপারে পরিকল্পনার ছক করতে পারবেন। বিশ্বব্যাপী ম্যাক্রো-ইকোনমিক অস্থিতিশীলতা এবং বাজার-তারল্যের পরিপ্রেক্ষিতে এই সামিটে রিস্ক ম্যানেজমেন্টের ওপর জোর দেয়াটা অত্যন্ত সময়োপোযোগী হয়েছে।

এম এ রুমী আলী বলেন, এটা নিশ্চিত এই সামিটের মাধ্যমে জ্ঞান এবং ব্যাংক ডাটা বৃদ্ধি পাবে যা আরও শক্তিশালী একটি আর্থিক ব্যবস্থা তৈরিকে ধাবিত করবে, যা আমাদের সকলের সাধারণ লক্ষ্য, বর্তমানকে রক্ষা করা এবং সুন্দর আগামী গড়ে তোলার জন্য সাহায্য করবে। আঞ্চলিক ব্যাংকিংয়ে অর্থনৈতিক ধারা, ঝুঁকি ব্যবস্থাপনা, প্রযুক্তি নিরাপত্তা রিস্ক ম্যানেজমেন্ট, আইটি সিকিউরিটি এবং কমপ্লায়েন্স ইস্যু নিয়ে দুদিনের এশিয়ান ব্যাংকিং সামিট শেষ হবে আজ বুধবার।