১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

মোবাইলেই ভ্যাট চেক করতে পারবেন ক্রেতারা

  • ভ্যাট জালিয়াতি প্রতিরোধে নতুন উদ্যোগ

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ কোন প্রতিষ্ঠান সরকারকে ভ্যাট দিচ্ছে কি-না সেটা গ্রাহকরা চেক করতে পারবেন। এমনই একটি মোবাইল এ্যাপস তৈরি করা হয়েছে। এই এ্যাপস ব্যবহার করে ইতোমধ্যেই ভ্যাট জালিয়াতি প্রতিরোধে সফলতাও পাওয়া গেছে। দেশের তিন তরুণ প্রোগ্রামার এই এ্যাপ তৈরি করেছে। সূত্র জানায়, প্রতিদিন বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে ক্রেতারা কেনাকাটা করতে যান। বিভিন্ন আইটেমের পরে ভ্যাট রাখা হয়। তবে এই ভ্যাট অনেক সময়ই সরকারী কোষাগারে জমা হয় না। সে কারণেই মোবাইল ভ্যাট এ্যাপ তৈরি করা হয়েছে। ভ্যাট নেয়ার জন্য প্রতিটি প্রতিষ্ঠানকে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড থেকে একটি ভ্যাট রেজিস্ট্রেশন নাম্বার দেয়া হয়, যেটাকে বলা হয় বিআইএন (বিন)। যার অর্থ বিজনেস আইডেন্টিফিকেশন নাম্বার। বিন নিয়ম অনুযায়ী ১১ ডিজিটের। তবে ২০১২ সালের আগে রেজিস্ট্রিকৃত প্রতিষ্ঠানে ১০ ডিজিট ছিল, যাদের ১১ ডিজিট নেয়ার কথা বলা হয়েছে। অনেকেই নতুন বিন নেয়নি। এসব প্রতিষ্ঠান রাজস্ব বোর্ড থেকে অনুমোদিতও না। তবে তারা ঠিকই গ্রাহকদের কাছ থেকে ভ্যাট নিচ্ছে, তবে সরকারকে দিচ্ছে না। এই ভ্যাট জালিয়াতি প্রতিরোধে তৈরি হয়েছে মোবাইল এ্যাপ।

দেশের তিনজন তরুণ এ্যাপ ডেভেলপার জুবায়ের, তূর্য, নিশান একটি স্মার্টফোন অ্যাপ তৈরি করেছে। কোন প্রতিষ্ঠানের বিলের রিসিট পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই ক্রেতারা বিল দেয়ার আগে, এই এ্যাপ থেকে ভ্যাট রেজিস্ট্রেশন নম্বরটি চেক করতে পারবেন। যদি ভুয়া হয়, তৎক্ষণাৎ এ্যাপ থেকে গ্রাহকরা পেয়ে যাবেন অভিযোগ ফর্ম। রিসিটের ছবিসহ ক্রেতারা অভিযোগ করতে পারবেন নিয়ন্ত্রণকারী কমিশনারেটকে। ক্রেতারা নিজের পছন্দমতো কমিশনারেটের কাছে অভিযোগ করতেও পারবেন। গত ২১ অক্টোবর এই এ্যাপ দিয়ে রাজধানীর পল্লবী এলাকায় নামকরা একটি প্রতিষ্ঠানকে ৯ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। তাদের ভ্যাট রেজিস্ট্রেশন ছিল ৯ ডিজিটের। তারা দীর্ঘদিন ধরে গ্রাহকদের সাথে প্রতারণা করে যাচ্ছিল। এই এ্যাপ দিয়ে গ্রাহকরা ভ্যাট জালিয়াতি প্রতিরোধ করতে পারবেন। একই সঙ্গে সরকারকে আর্থিক ক্ষতি থেকে বাঁচাতেও পারবেন বলে আশা করা হচ্ছে।