২১ আগস্ট ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

জাগৃতি প্রকাশনীর লেখক আহসান কবিরকে হত্যার হুমকি

স্টাফ রিপোর্টার ॥ মুক্তচিন্তার এক লেখককে আবারও হত্যার হুমকি দেয়া হয়েছে। জাগৃতি প্রকাশনীর লেখক ও অভিনেতা আহসান কবিরকে এই হুমকি দেয়া হয়। এ ঘটনায় তিনি বাদী হয়ে বনানী থানায় সাধারণ ডায়েরি করেছেন। বনানী থানার তদন্তকারী কর্মকর্তা উপ-পরিদর্শক জাহাঙ্গীর আলম জানান, সোমবার রাতে নিরাপত্তাহীনতার কারণে জাগৃতি প্রকাশনীর লেখক আহসান কবির বনানী থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছেন।

৩১ অক্টোবর শাহবাগ আজিজ সুপার মার্কেটে জাগৃতি প্রকাশনীর স্বত্বাধিকারী ফয়সল আরেফিন দীপনকে হত্যা ও মোহম্মদপুরে কবি তারেক রহিম, শুদ্ধস্বর প্রকাশনীর স্বত্বাধিকারী আহমেদুর রশীদ টুটুল ও লেখক-গবেষক রণদীপম বসুর ওপর হামলার পর আনসার আল ইসলাম আল কায়েদা উপমহাদেশ শাখা টুইটারে একটা বিশ্লেষণ দেয়। বিশ্লেষণের শিরোনাম আহমেদুর রশীদ টুটুল ও ফয়সল আরেফিন দীপনের অপরাধসমূহ। সেখানে দীপনের অপরাধ দুটি। তাদের ভাষ্যমতে, একটা অপরাধ হল- অভিজিত রায়ের ‘বিশ্বাসের ভাইরাস ও অবিশ্বাসের দর্শন ছাপানো। সেখানে ইসলামকে ব্যঙ্গ করা হয়েছে বলে অভিযোগ করা হয়েছে। তিনি জানান, ফয়সল আরেফিন দীপনের দ্বিতীয় অপরাধ হিসেবে লেখা হয়, আলেম-ওলামাদের কটাক্ষ করে আহসান কবিরের রম্য লেখা ছাপানো।

আহসান কবির জিডিতে উল্লেখ করেন, আমার বইয়ে কোন ধর্মের পক্ষে বা বিপক্ষে কোন শব্দ বা বর্ণও লিখিনি। আহসান কবির জানান, দীপনের জাগৃতি প্রকাশনী থেকে তার ১৬টি বই প্রকাশিত হয়েছে। যার মধ্যে ৫/৬ টি উপন্যাস। বাকিগুলো রম্য রচনা। এগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য ‘গণতান্ত্রিক গ-ার’, ‘আপা ম্যাডাম ও থুথু বাবার দেশে’, ‘নিখোঁজ, নিহত নয়’, ‘তালিকাভুক্ত’ ইত্যাদি। তিনি জানান, হুমকি দেয়ার পর টুটুল সাধারণ ডায়েরি করেছিল। আর অভিজিতের বই প্রকাশ করার জন্য দীপনকেও মেরে ফেলা হলো। এখন আমার নাম নতুন করে যুক্ত হলো। তাই এই নিয়ে আমি চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। এ বিষয়ে আহসান কবির জানান, আমাকে ৩১ অক্টোবর স্কাইপ থেকে এ হুমকি দেয়া হয়। কাজের ব্যস্ততার কারণে অনলাইনে প্রবেশ করতে পারিনি। তাই সেদিন জানা সম্ভব হয়নি। সোমবার রাতে যখন জানতে পারলাম তখনই বনানী থানায় গিয়ে জিডি করি। পুলিশ সেটা তদন্ত করছে।