১৬ নভেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

‘অন্তরে আজ দেখবো যখন আলোক নাহিরে...’

মামুন-অর-রশিদ, রাজশাহী ॥ ‘চোখের আলোয় দেখেছিলেম চোখের বাহিরে। অন্তরে আজ দেখব, যখন আলোক নাহি রে...। ধরায় যখন দাও না ধরা হৃদয় তখন তোমায় ভরা, এখন তোমার আপন আলোয় তোমায় চাহি রে...’। কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর রচনা করেছিলেন তাঁর এ বিখ্যাত গানটি। সেই গানটি এখন বাস্তবে রূপ নিয়েছে জাফর-পারভীনের ঘরে।

আবু জাফর ও পারভীন খাতুন। দুই জনেই দৃষ্টি প্রতিবন্ধী। স্থানীয় প্রতিবন্ধী কল্যাণ সংস্থায় দুই জনের যাতায়াত। এ সূত্র ধরেই পরিচয়। পরিচয় থেকে সম্পর্ক আরও গাঢ় হয়। অবশেষে ভালবাসা। সেই থেকে দুই জনেই সিদ্ধান্ত নেয় ঘর বাঁধার। এখন তারা দম্পতি। রবিবার আবু জাফর ও পারভীন খাতুন বিয়ে করেন। বাগমারা প্রতিবন্ধী কল্যাণ সংস্থার উদ্যোগে এ বিয়ের আয়োজন করা হয়। সংস্থার প্রধান কার্যালয়ে এ বিয়ে সম্পন্ন করা হয়।

বর আবু জাফর (৩৭) বাগমারা উপজেলার শুভডাঙ্গা ইউনিয়নের বারুইপাড়া গ্রামের মৃত বরকতুল্লাহ প্রামাণিকের ছেলে ও কনে পারভীন খাতুন (২৭) বাসুপাড়া ইউনিয়নের মন্দিয়াল গ্রামের সেকেন্দার আলীর মেয়ে।

বাগমারা প্রতিবন্ধী কল্যাণ সংস্থার সভাপতি আশরাফুল আলম জানান, আবু জাফর বর্তমানে বাগমারা প্রতিবন্ধী কল্যাণ সংস্থার সহ-সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন। আর পারভীন খাতুন একই সংস্থার একজন সদস্য। তারা দুই জনেই বিয়ের ইচ্ছে প্রকাশ করায় বিয়ে দেয়া হয়েছে।

রবিবার বিয়ের সময় তাদের দুই পরিবারের কোন সদস্য উপস্থিত ছিল না। প্রতিবন্ধী কল্যাণ সংস্থার সভাপতিসহ বেশ কয়েকজন সদস্যদের নিয়ে এ বিয়ে দেয়া হয়। বিয়ের পরে মোবাইল ফোনে পরিবারের লোকজনের সঙ্গে কথা বলেন তারা দুই জনে। ৪০ হাজার টাকা দেনমোহরানায় বিয়ে দেয়া হয়। বিয়েতে বাগমারা প্রতিবন্ধী কল্যাণ সংস্থা উপহার হিসেবে একটি গরু দিয়েছে। আবু জাফর ও পারভীন খাতুন জানান, মন থেকেই তারা দুইজনে দুইজনকে ভালবাসেন। সেই ভালবাসা থেকেই বিয়ের সিদ্ধান্ত। সংসার জীবনে তারা যেন সুখী হন, সেজন্য সকলের কাছে দোয়া চেয়েছেন।

কিবরিয়া হত্যা মামলায় সাক্ষ্য গ্রহণ ফের পেছাল

স্টাফ রিপোর্টার, সিলেট অফিস ॥ সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এএমএস কিবরিয়া হত্যা মামলার সাক্ষ্য গ্রহণ ফের পিছিয়েছে। আদালতে পর্যাপ্ত আসামি উপস্থিত না থাকায় বিভাগীয় দ্রুত বিচার ট্রাব্যুনালের বিচারক মকবুল আহসান সাক্ষ্য গ্রহণ করেননি। বৃহস্পতিবার সাক্ষ্য গ্রহণের পরবর্তী তারিখ নির্ধারণ করেন বিচারক। আদালত সূত্র জানায়, কিবরিয়া হত্যা মামলার ৩২ আসামির মধ্যে ৮ জন জামিনে, ১৪ জন কারাগারে ও ১০ জন পলাতক রয়েছেন। কারাগারে থাকা ১৪ আসামির মধ্যে বুধবার হবিগঞ্জ পৌরসভার বরখাস্তকৃত মেয়র জিকে গউছসহ ৫ জন আদালতে হাজির ছিলেন। গত ২৮ ও ২৯ অক্টোবরও আদালতে পর্যাপ্ত আসামি উপস্থিত না থাকায় আলোচিত এই মামলায় সাক্ষ্য গ্রহণ সম্ভব হয়নি।

হবিগঞ্জ শহরে সংর্ঘষ ॥ আহত ৫০

নিজস্ব সংবাদদাতা, হবিগঞ্জ, ৪ নবেম্বর ॥ বুধবার সকালে শহরের শায়েস্তানগর কাঁচাবাজার সংলগ্ন স্থানে দুই এলাকাবাসীর মধ্যে সংর্ঘষ, পুলিশের লাঠিচার্জ, টিয়ারশেল নিক্ষেপ ও গুলি বর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। এতে সদর থানার ওসি নাজিম উদ্দিন এবং একাধিক পুলিশ কর্মকর্তা-কনস্টেবলসহ আহত হয়েছে ৫০ জন। ওই দিন সকালে শায়েস্তানগর ট্রাফিক পয়েন্ট এলাকার একটি দোকানে পান কিনতে যান মোহনপুর এলাকার বাসিন্দা রুবেল।

এ সময় পানের মূল্য বেশি না কম এ নিয়ে দোকান মালিকের সঙ্গে রুবেলের বাক-বিত- ও হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। এ খবর পেয়ে মোহনপুর এলাকা থেকে একদল লোক দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র হাতে ওই স্থানে হামলে পড়ে। এক পর্যায়ে টং দোকানের মালিককে বেদম প্রহার করে ওরা।