২১ আগস্ট ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ডেল্টা প্ল্যান বাস্তবায়নে সহযোগিতার আশ্বাস নেদারল্যান্ডসের

ডেল্টা প্ল্যান বাস্তবায়নে সহযোগিতার আশ্বাস নেদারল্যান্ডসের
  • প্রধানমন্ত্রীর উপস্থিতিতে গ্রান্ড হোটেলে আলোচনা অনুষ্ঠান

বিডিনিউজ ॥ পানি ব্যবস্থাপনা ও বন্যা প্রতিরোধের মাধ্যমে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে গৃহীত বদ্বীপ পরিকল্পনা (বাংলাদেশ ডেল্টা প্ল্যান ২১০০) বাস্তবায়নে সব ধরনের সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছে নেদারল্যান্ডস।

হেগের স্থানীয় সময় বুধবার সকালে গ্রান্ড হোটেল আমরাথ কুরহাউস দি হেগে ‘দ্য ডেল্টা প্ল্যান এ্যাপ্রোচ’ শীর্ষক এক অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের বদ্বীপ পরিকল্পনা বাস্তবায়নে সব ধরনের সহায়তার আশ্বাস দেন নেদারল্যান্ডসের অবকাঠামো ও পরিবেশ বিষয়কমন্ত্রী মেলানি শ্যুলজ ফ্যান হেগেন।

আলোচনায় পানি ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে ভূমি উদ্ধারের অভিজ্ঞতা তুলে ধরেন মেলানি শ্যুলজ ফ্যান হেগেন। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

নিজের দেশের নদীর পানি নিয়ন্ত্রণ এবং ঘন জনবসতিপূর্ণ এলাকার কথা উল্লেখ করে হেগেন বলেন, বাংলাদেশও বন্যাপ্রবণ। বাংলাদেশে বন্যা নিয়ন্ত্রণ ও নদীর নাব্য রক্ষার ওপর গুরুত্বারোপ করে যৌথ সহযোগিতামূলক পদক্ষেপের কথা বলেন নেদারল্যান্ডসের অবকাঠামো ও পরিবেশ বিষয়কমন্ত্রী। ‘পানিরও স্থান প্রয়োজন। পানিকে জায়গা দিতে হবে’ বলেন তিনি।

অভিজ্ঞতা বিনিময়ের জন্য বাংলাদেশ সরকারকে ধন্যবাদ জানিয়ে একসঙ্গে বদ্বীপ পরিকল্পনা বাস্তবায়নের আশা প্রকাশ করেন নেদারল্যান্ডসের মন্ত্রী হেগেন। তিনি বলেন, ‘একটা কথা আছে, সৃষ্টিকর্তা বিশ্ব সৃষ্টি করেছে। আর ডাচরা নেদারল্যান্ডস সৃষ্টি করেছে।’ নেদারল্যান্ডসের শিফল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরও এক সময় জলাভূমি ছিল জানিয়ে তিনি বলেন, শিফল বিমানবন্দর যেখানে অবস্থিত সেটি একসময় হারলেম লেকের অংশ ছিল। শিফল বিমানবন্দর সমুদ্রসীমার চার মিটার নিচে অবস্থিত বলেও প্রধানমন্ত্রীকে জানান হেগেন।

১৯৫৩ সালের ভয়াবহ বন্যার কথা মনে করিয়ে দিয়ে ৬০ বছরের ডেল্টা প্ল্যান গ্রহণের কথা বলেন তিনি। পরবর্তী ডেল্টা প্ল্যান গ্রহণের কথা উল্লেখ করে হেগেন বলেন, পানি ব্যবস্থাপনায় কিছু কিছু ক্ষেত্রে তারা পুরনো পদ্ধতির দিকে ফিরে যাচ্ছেন। বদ্বীপের ব্যবহার আরও বাড়ানোর ওপর গুরুত্বারোপ করে তিনি বলেন, বন্যা নিয়ন্ত্রণ করে অর্থনীতির বিস্তারটাই আমাদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ। অনুষ্ঠানে বদ্বীপ পরিকল্পনায় বাংলাদেশের নেয়া উদ্যোগগুলো তুলে ধরেন জেনারেল ইকোনমিক কমিশনের জয়েন্ট চীফ মফিদুল ইসলাম।

এর আগে সকালে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে হোটেলে সাক্ষাত করেন নেদারল্যান্ডসের বৈদেশিক বাণিজ্য ও উন্নয়ন সহযোগিতা বিষয়কমন্ত্রী লিলিয়ান প্লাউম্যান এবং মেলানি শ্যুলজ ফ্যান হেগেন।

দুপুরে প্রধানমন্ত্রী নেদারল্যান্ডসের বদ্বীপাঞ্চল এবং পোতাশ্রয় ফিউচার ল্যান্ড পরিদর্শন করবেন।

সন্ধ্যায় নেদারল্যান্ডসের রানি ম্যাক্সিমার সঙ্গে দেখা করবেন শেখ হাসিনা।

এরপর তিনি ডাচ প্রধানমন্ত্রী মার্ক রুটের সরকারী বাসভবনে দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে বাংলাদেশের নেতৃত্ব দেবেন। বৈঠকের পর একটি সমঝোতাস্মারক সই হওয়ার কথা রয়েছে। মার্ক রুটের দেয়া নৈশভোজেও শেখ হাসিনা অংশ নেবেন।

লালগালিচা সংবর্ধনা ॥ বাসস জানায়, নেদারল্যান্ডসের প্রধানমন্ত্রী মার্ক রুটের আমন্ত্রণে সে দেশে ৩ দিনের সরকারী সফরে মঙ্গলবার রাতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমস্টারডামে পৌঁছলে তাঁকে লালগালিচা সংবর্ধনা দেয়া হয়েছে।

বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি ভিভিআইপি ফ্লাইট প্রধানমন্ত্রী ও তাঁর সফরসঙ্গীদের নিয়ে নেদারল্যান্ডস স্থানীয় সময় রাত ৮টা ৩০ মিনিটে আমস্টারডাম শিফোল বিমানবন্দর সেন্টারে অবতরণ করে।

ডাচ অবকাঠামো ও পরিবেশমন্ত্রী মেলানি শুল্টজ ভান হায়েজেন, নেদারল্যান্ডসে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত শেখ মুহাম্মদ বেলাল এবং ঢাকায় নিযুক্ত ডাচ রাষ্ট্রদূত লেওনি মারগারেতা কুয়েলেনায়েরা বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানান।

আমস্টারডাম শিফোল বিমানবন্দর সেন্টারে উষ্ণ সংবর্ধনা দেয়ার পর প্রধানমন্ত্রীকে আনুষ্ঠানিক মোটর শোভাযাত্রায় নেদারল্যান্ডসের প্রশাসনিক রাজধানী হেগ নগরীতে গ্র্যান্ড হোটেল আমরাথ কুরহাউসে নিয়ে যাওয়া হয়। সফরকালে তিনি এ হোটেলে অবস্থান করবেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা হোটেলে পৌঁছার পর অল ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীসহ বিপুলসংখ্যক প্রবাসী বাংলাদেশীরা তাঁকে অভিনন্দন জানান।

আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের পক্ষে দুটি ছোট্ট শিশু হোটেল লাউঞ্জে প্রধানমন্ত্রীকে ফুলের তোড়া উপহার দেয়।

আমস্টারডাম যাওয়ার পথে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আবুধাবিতে ৫ ঘণ্টা যাত্রাবিরতি করেন।

নেদারল্যান্ডস সফরকালে প্রধানমন্ত্রী বুধবার বিকেলে ডাচ প্রধানমন্ত্রী মার্ক রুটের সঙ্গে তাঁর সরকারী বাসভবন ‘কাস্টহুউস’-এ দ্বিপাক্ষিক বৈঠক করেন। আলোচনার পর কয়েকটি দ্বিপাক্ষিক চুক্তি স্বাক্ষরিত হবে।

শেখ হাসিনা পরে তাঁর সম্মানে মার্ক রুটের দেয়া এক নৈশভোজ সভায় যোগ দেবেন। তিনি আজ রাজকীয় প্রাসাদে নেদারল্যান্ডসের রানী ম্যাক্সিমার সঙ্গে সাক্ষাত করেন।

শেখ হাসিনা হেলিকপ্টারে ডেল্টাইক আইল্যান্ড এবং জাহাজে বন্দর পরিদর্শন করেন। তিনি ডেল্টাইক আইল্যান্ডে সফরের ওপর একটি উপস্থাপনা প্রত্যক্ষ করেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী এএইচ মাহমুদ আলী, পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম, প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব আবুল কালাম আজাদ, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব হেদায়েত উল্লাহ আল মামুন, পররাষ্ট্র সচিব মোঃ শহীদুল হক, নৌপরিবহন সচিব শফিক আলম মেহেদী এবং প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম অন্যান্যের মধ্যে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে রয়েছেন।

এ ছাড়া এফবিসিসিআই, বিজিএমইএ এবং ডাচ্-বাংলা চেম্বার অব কমার্স এ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির নেতৃবৃন্দসহ বাংলাদেশের একটি ১৯ সদস্যের ব্যবসায়ী প্রতিনিধি দল নেদারল্যান্ডসে প্রধানমন্ত্রীর সফরসঙ্গী রয়েছেন।