১৯ আগস্ট ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

হীরার গহনা নয়, কাজের বুয়া

হীরার গহনা নয়, কাজের বুয়া

ভারতীয় উপমহাদেশে আবহমানকাল থেকে বিভিন্ন উৎসবে অনেক স্বামীর তরফ থেকে স্ত্রীকে শাড়ি গহনা কিংবা দামী উপহার দেয়ার রেওয়াজ প্রচলিত আছে। কিন্তু ভারতের শহরাঞ্চলে অনেকের কাছে বর্তমানে শাড়ি এমনকি হীরার গহনার চেয়ে কাজের বুয়াকে অনেক বেশি মূল্যবান উপহার মনে করা হচ্ছে। ভারতের একটি অনলাইন বিজ্ঞাপনে সম্প্রতি এই বার্তা তুলে ধরা হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, দিওয়ালি উপলক্ষে আপনার স্ত্রীকে একজন কাজের বুয়া উপহার দিন। বিজ্ঞাপনের একপাশে স্বামী-স্ত্রীর অন্তরঙ্গ ছবি অন্যপাশে সুসজ্জিত একজন গৃহকর্মীর ছবি।

মাঝখানে লেখা, ‘হীরা মূল্যহীন। আপনার স্ত্রীকে গৃহকর্মী উপহার দিন।’ তবে বিজ্ঞাপন নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ সাইটগুলোতে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনা হচ্ছে। অনেকে এ ধরনের বিজ্ঞাপনকে স্রেফ দাসত্বের বিজ্ঞাপন হিসেবে বর্ণনা করেছেন। আর যে ওয়েবসাইট এই বিজ্ঞাপনটি প্রচার করেছে তারা এখন ব্যাপক সমালোচনার মুখে।

সেখানে একজনের মন্তব্য-নারী গৃহকর্মী উপহার দেয়া যায়? আরেকজনের মন্তব্য-মানুষ তাহলে পণ্য হয়ে গেল। দারুণ আইডিয়া।

আবার অনেকে এই বিজ্ঞাপনটিকে অত্যন্ত ইতিবাচক হিসেবে দেখছেন। তারা বলছেন, ভারতের শহরাঞ্চলে গৃহকর্মী অত্যন্ত প্রয়োজনীয় বিষয়। এই ধরনের অনলাইন বিজ্ঞাপন সহজে গৃহকর্মী খুঁজে পেতে সাহায্য করবে। কিন্তু বিজ্ঞাপনের ভাষা এবং উপস্থাপনা ভুল বার্তা দিচ্ছে।

এই ওয়েবসাইটের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা অনুপম সিনহাল বলছেন, তারা কাউকে আঘাত কিংবা ছোট করার জন্য এ বিজ্ঞাপন দেননি। হালকাভাবে এই বিজ্ঞাপন তুলে ধরা হয়েছে বলে দাবি সিনহালের। বিজ্ঞাপন নিয়ে এই ওয়েবসাইট এর আগেও বিতর্ক তৈরি করেছিল। ধর্মীয় পরিচয় কিংবা আঞ্চলিক পরিচয়ের ভিত্তিতে গৃহকর্মী পছন্দ করার বিজ্ঞাপন দেয়া হয়েছিল। সিনহাল বলেন, ধর্মীয় কিংবা আঞ্চলিক পরিচয়ে গৃহকর্মী নিয়োগের বিজ্ঞাপন নিয়ে তার প্রতিষ্ঠান একমত নয়। কিন্তু যারা গৃহকর্মী নেয়, তাদের অনেকেই এসব বিজ্ঞাপন চায় বলেই সেটি বিজ্ঞাপনে উল্লেখ করা হয়। ভারতে এর আগে নানান বিজ্ঞাপন টুইটারে ব্যাপক আলোচনার জন্ম দিয়েছিল। এ বছরের মে মাসে ভারতে একজন মা তার সমকামী সন্তানের জন্য পাত্র চেয়ে বিজ্ঞাপন দিয়েছিল। অনেকে সে বিজ্ঞাপনকে ইতিবাচক হিসেবে দেখলেও অনেকে সেটির কড়া সমালোচনা করে। বিবিসি অবলম্বনে।

এই মাত্রা পাওয়া