১৯ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

শিক্ষামন্ত্রীকে না জানিয়ে কিছু করা যাবে না- আবারও নির্দেশ জারি

স্টাফ রিপোর্টার ॥ এখন থেকে মন্ত্রীকে না জানিয়ে কোন আইন, বিধি, নীতিমালা ও বদলির আদেশ প্রকাশ বা ওয়েবসাইটে দেয়া যাবে না বলে আবারও নির্দেশ জারি করেছেন শিক্ষামন্ত্রী। শিক্ষা আইন নিয়ে বিতর্কের প্রেক্ষিতে তিনি এ নির্দেশ জারি করেন। গত ২৬ অক্টোবর গোপনীয়ভাবে নিজের একান্ত সচিব নাজমুল হক খানের স্বাক্ষরে এই লিখিত নির্দেশ জারি করেন মন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। যা মন্ত্রণালয়ের সব দফতর প্রধানদের পাশাপাশি সচিবকে অবহিত করতে তার একান্ত সচিবকে অনুলিপি দেয়া হয়।

শিক্ষা আইনের খসড়ার ওপর মতামত নেয়ার জন্য সম্প্রতি ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হয়। যাতে প্রশ্ন ফাঁসের সাজার মেয়াদ রাখা হয় চার বছর। সাজার মেয়াদ কম থাকায় এ নিয়ে বিভিন্ন মহলের মধ্যে সমালোচনার সৃষ্টি হয়। পরে তা প্রত্যাহার করে নেয়া হয়।

মন্ত্রীর ওই নির্দেশে বলা হয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে কোন পরিপত্র, নীতিমালা, আইন জারি, ওয়েবসাইটে প্রদর্শন এবং মন্ত্রণালয়ের নিয়ন্ত্রণাধীন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, অধিদফতর/দফতর ও শিক্ষা বোর্ডসমূহে প্রথম শ্রেণীর যে কোন পদে পদায়নের ক্ষেত্রে মন্ত্রী পর্যায়ে অনুমোদন গ্রহণের জন্য মন্ত্রী সদয় নির্দেশ প্রদান করেছেন। সে মোতাবেক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সংশ্লিষ্ট সকলকে অনুরোধ করা হলো।

এর আগে চলতি বছর একাদশ শ্রেণীতে অনলাইনে শিক্ষার্থী ভর্তি নিয়ে জটিলতা সৃষ্টি হয়। অভিযোগ রয়েছে, শিক্ষা সচিব একক সিদ্ধান্তে অনলাইনে ভর্তির সিদ্ধান্ত দেন। ওই সময়ও শিক্ষামন্ত্রীকে না জানিয়ে কোন সিদ্ধান্ত নেয়া যাবে না বলে নির্দেশ দিয়েছিলেন মন্ত্রী। নতুন করে নির্দেশের ফলে সচিব পর্যায়ে যেসব ফাইল অনুমোদন হতো এখন বাধ্যতামূলকভাবে তা মন্ত্রীর কাছে পাঠাতে হবে। মন্ত্রী সায় দিলেই কেবল তা পাবে অনুমোদন।