২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই ঘন্টায়    
ADS

এশিয়া কাপের মূলপর্বে চোখ মামুনুলের

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ ম্যাচের ৮৭ মিনিট পর্যন্ত এগিয়ে থেকেও হোম ম্যাচে জিততে জিততেও জেতা হয়নি। ৮৮ মিনিটে প্রতিপক্ষ গোল শোধ করে ফেললে হতাশার ড্রই লেখা হয়ে যায় ভাগ্যে। এবার এ্যাওয়ে ম্যাচ, একই প্রতিপক্ষ। এবার রেজাল্ট কি হবে? ‘এবার রেজাল্ট আমাদের অনুকূলেই রাখার চেষ্টা করব।’ কথাটা মামুনুল ইসলামের। বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দলের এই অধিনায়ক। ফিফা বিশ্বকাপ বাছাইয়ের এশিয়া জোনের ‘বি’ গ্রুপের এ্যাওয়ে ম্যাচ খেলতে আজ তাজিকিস্তানের উদ্দেশে বিমানযোগে ঢাকা ছাড়বে বাংলাদেশ দল। বৃহস্পতিবার বাফুফে ভবনে বসে উপরোক্ত মন্তব্য করেন এই এ্যাটাকিং মিডফিল্ডার। উল্লেখ্য, এটি একদিকে যেমন বিশ্বকাপ বাছাই, সেই সঙ্গে এএফসি এশিয়ান কাপেরও যৌথ বাছাই। তাই বিশ্বকাপ বাছাইয়ে যে কয়টি ম্যাচ বাকি আছে বাংলাদেশের তার সবটিতেই ভাল করে অন্তত এশিয়ান কাপের মূলপর্বে যাওয়ার আকাক্সক্ষা ব্যক্ত করেছেন মামুনুল। তিনি আরও বলেন, ‘প্রায় এক সপ্তাহ ধরে ট্রেনিং করছি। দলের কন্ডিশন ভাল। হাতে এখনও ৫-৬ দিন সময় আছে। সেখানকার আবহাওয়ার সঙ্গে মানিয়ে নেয়ার জন্য আমরা আগেভাগেই যাচ্ছি। কিছুদিন আগেই কিরগিজস্তানে ঠা-া আবহাওয়াতে খেলে এসেছি। তাই আশা করছি সেই অভিজ্ঞতা এই ম্যাচে কাজে লাগবে। তাই আশা করছি তাজিকিস্তানের ঠা-া আবহাওয়ায় খেলতেও সমস্যা হবে না।’ ১২ নবেম্বর তাজিকিস্তানের দুশানবেরে রিপাবলিকান সেন্ট্রাল স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হবে বাংলাদেশ-তাজিকিস্তান ম্যাচটি। স্টেডিয়ামের মাঠটি এস্ট্রো টার্ফের। তাই মামুনুলরা ঢাকাতে প্রস্তুতিটাও সেরেছেন বাফুফের আর্টিফিসিয়াল টার্ফে। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘এতদিন আমরা বাফুফের টার্ফে অনুশীলন করেছি। কমলাপুর স্টেডিয়ামের টার্ফটা পেলে আরও ভাল হতো। কিন্তু সেটি পুরোপুরি প্রস্তুত না হওয়াতে সেখানে অনুশীলন করা সম্ভব হয়নি। দেশের বাইরে আমরা এর আগেও টার্ফে খেলেছি। সেটি ক্লাবের হলেও ভাল ফল করেছি। আশা করছি এবারও এর ব্যতিক্রম হবে না।’ দলের উন্নতি প্রসঙ্গে মামুনুলের ভাষ্য, ‘আমরা বিশ্বকাপ বাছাইয়ের বেশিরভাগ ম্যাচ হারলেও আমাদের দলে কিন্তু প্রতিনিয়ত উন্নতি হচ্ছে। আসলে জয় না আসলে উন্নতিটা চোখে পড়ে না। আমরা যারা মাঠে খেলি আমরা বুঝতে পারি কতটুকু উন্নতি হচ্ছে।’ তাজিকিস্তান দল প্রসঙ্গে মামুনুলের মূল্যায়ন, ‘গোল না পেলে দোষটা সব সময় আক্রমণভাগের ওপরই পড়ে। কিন্তু একটা ম্যাচে ভাল ফল তখনই আসে যখন দলের সবাই নিজেদের সেরাটা দিতে পারে।