২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

জয়টাই জরুরী সংবাদ সম্মেলনে মাশরাফি

জয়টাই জরুরী  সংবাদ সম্মেলনে মাশরাফি
  • শতভাগ ফিট নন ‘নড়াইল এক্সপ্রেস’

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ যে কোন দলের জন্যই প্রথম ম্যাচটায় জয় জরুরী। বাংলাদেশের জন্যও জরুরী। সেই জয়টি চান বাংলাদেশ অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা। তবে আজ প্রথম ওয়ানডেতে খেলার আগে মাশরাফি যে পুরোপুরি ফিট নন, তা নিজেই জানিয়ে দিয়েছেন। শুক্রবার সংবাদ মাধ্যমের সঙ্গে ওয়ানডে সিরিজ নিয়ে কথা বলেছেন মাশরাফি। তার সার সংক্ষেপ এখানে তুলে ধরা হলো।

প্রস্তুতি ম্যাচে হার প্রসঙ্গ-

মাশরাফি ॥ শুধু অধিনায়ক ছিলাম বলেই নয়, যে কোন ম্যাচ হারতে খুব খারাপ লাগে। কিন্তু অনুশীলনের উদ্দেশ্য যেটা ছিল, পূরণ হয়েছে। মুশফিক অনেকটা সময় ব্যাটিং করেছে। লিটন ছিল কিছু সময়, ইমরুলও ফিফটি করেছে। রুম্মন পুরো করতে পারেনি। আমি ৭ ওভার বোলিং করেছি। ওভারঅল যেটা আমরা করতে চেয়েছিলাম, সেটা হয়েছে। কিন্তু ম্যাচটি হেরে গেছি, সে জন্য কিছুটা হতাশ।

ফিট প্রসঙ্গÑ

মাশরাফি ॥ আমি আসলে সব মিলিয়ে ৩৫ ওভার ফিল্ডিং করেছি কালকে। ৫০ ওভার করতে পারলে ভাল হতো। তবে প্রথম ম্যাচ থেকে চাপ নেয়া কঠিন। কিছুটা চাপ দিয়েছি নিজের ওপর। কারণ প্রথম ওয়ানডেতে পুরো ম্যাচ খেলতে হলে নিজেকে চাপ দিতেই হতো। বিকল্প ছিল না। এমনিতে ম্যাচের আগে সবসময় যেমন থাকি, তেমন না থাকলেও আমি আত্মবিশ্বাসী। এখনও আমি শতভাগ নই। কারণ আরেকটু রিকভারি হলে বা আরকেটু ট্রেনিং করে আসতে পারলে আমার জন্য ভাল হতো। কিন্তু বাংলাদেশের খেলা। নিজের কাছে যখন মনে হয় পারব, তখন আমি ঝুঁকিটা নেই। আশা করি আমি টিকে থাকতে পারব।

প্রতিপক্ষের দুর্বলতা-সবলতা প্রসঙ্গÑ

মাশরাফি ॥ দুটিই গুরুত্বপূর্ণ। প্রতিপক্ষের দুর্বলতা দেখে দল সাজানো, একই সঙ্গে নিজের শক্তি জায়গাও গুরুত্বপূর্ণ। আমি পছন্দ করি দুটিই সমন্বয়ে দল সাজাতে। মূল উদ্দেশ্য অবশ্যই জয়। তবে আমি এই মুহূর্তে মনে করি, তাদের দুর্বলতা বেশি গুরুত্বপূর্ণ হবে। উইকেট আরেকটা ব্যাপার তার সঙ্গে। আমাদের শক্তির জায়গা বাদ দিয়ে আমরা অবশ্যই খেলতে চাইব না। সেটা করবও না। কিন্তু একই সঙ্গে তারা কোন্ ধরনের বোলার বা বোলিংয়ে দুর্বল, সেটাও আমাদের খেয়াল রাখতে হবে।

প্রস্তুতি ম্যাচ হারে ভাবনা প্রসঙ্গÑ

মাশরাফি ॥ পুরো ম্যাচটা হেরেছি, এটাই আমার কাছে ভাবনার বিষয়। বাংলাদেশ দলের হয়ে খেলতে নেমে, যার কাছেই হারি না কেন বিশেষ করে, ২০০৭ সালের পর থেকে যখন আমরা বিশ্বাস করেছি যে জিততে পারি, আমি অন্তত বিশ্বাস করেছি যে নিজেদের দিনে সবাইকে হারাতে পারি, সেখান থেকে আজকে এই পর্যায়ে আসা। আমার কাছে মনে হয় কালকে (বৃহস্পতিবার) ম্যাচটি হেরেছি, এটাই চিন্তার। তারা ২৮০ রান তাড়া করেছে ভাল ব্যাট করে। হাল্কাভাবে নেয়ার কোন সুযোগ নেই। গত জিম্বাবুইয়ে সিরিজ থেকে আমরা যেভাবে খেলে আসছিলাম, যেভাবে খেলে জিতেছি, সেভাবে খেলেতে চাই। ম্যাচ খেলার আগে এসব আলোচনাই নেতিবাচক হবে। সবাই আত্মবিশ্বাস নিয়ে খেলবে, সেভাবেই খেলতে চাই। আমরা যেখানে এসেছি, তখন আমরা ভাবতে পারিনি যে সাত নম্বরে আসব। এখান থেকে হারানোর চিন্তা করাটাও নেতিবাচক হবে। যেভাবে খেলছিলাম সেভাবে খেলাটাই গুরুত্বপূর্ণ।

হোয়াইটওয়াশ প্রসঙ্গÑ

মাশরাফি ॥ হোয়াইটওয়াশ শব্দটি ব্যবহার করার জন্য ধন্যবাদ, নট বাংলাওয়াশ। সবাই এটাই প্রত্যাশা করছে অবশ্যই। আমাদের ক্রিকেটারদের এমন ভাবনা ঠিক হবে না। কালকে প্রথম ম্যাচটি গুরুত্বপূর্ণ, সব সিরিজের বা টুর্নামেন্টের প্রথম ম্যাচ সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। যে জিম্বাবুইয়ে সিরিজ থেকে আমাদের জয়ের ধারা শুরু, সেখানে ৩২ রানে আমাদের ৪ উইকেট পড়ে গিয়েছিল। সাকিব-মুশফিক তখন জুটি গড়ল। বিশ্বকাপে ১২০ রানে ৪ উইকেট পড়ে গেল, সাকিব-মুশফিক জুটি গড়ল আবার। লোকে যত টেন্সড বা নাভ থাকে, প্রথম ম্যাচেই থাকে। প্রথম ম্যাচ গেলে তারপর আস্তে আস্তে কাজ সহজ হয়। এই মুহূর্তে প্রথম ম্যাচটিই গুরুত্বপূর্ণ।

সাকিব নির্ভরতা প্রসঙ্গÑ

মাশরাফি ॥ সাকিব তো বাংলাদেশ দলে আসার পর থেকেই সবসময় একটা নির্ভরতার নাম ছিল। এখনও আছে। শেষ কয়েকটা সিরিজে ওর ওপর থেকে চাপ অনেক কমেছে। সবসময় ওর কাছে চাইলে তো হয় না। এখন চাপ ওর একটু কমেছে। সাকিবের দিকে শুধু অধিনায়ক হিসেবে আমি নই, গোটা বাংলাদেশই তাকিয়ে থাকে। অধিনায়ক হিসেবে আমি আশা করি সাকিব পর্যন্ত ব্যাটিং না আসুক। বোলিং করতে হবে। প্রস্তুতি ম্যাচে ওদের দুই বাঁহাতি যখন ব্যাট করছিল, আমার হাতে কোন অফ স্পিনার ছিল না। জাতীয় দলে নাসির-রিয়াদ আছে। মুস্তাফিজ সেরা ফর্মে। বিকল্প অনেক। জাতীয় দলের বোলিং কম্বিনেশন অনেক ভাল।

সৌম্য প্রসঙ্গÑ

মাশরাফি ॥ সৌম্যকে পুরো দলই মিস করবে। শুধু ভাল ক্রিকেটারই নয়, সে দারুণ টিমমেটও। আমরা অবশ্যই ওকে মিস করব। খুবই রোমাঞ্চকর ক্রিকেটার। শেষ ম্যাচেও ৮০-র বেশি করেছে। ওর মতো ক্রিকেটারকে মিস করা দলের জন্য ভাল কিছু নয়। তবে এটা একটা ভাল সুযোগ অন্যদের জন্য। লিটন খেলেছে আগে, ইমরুল ফিরেছে। ওদের জন্য সুযোগ নিজেকে মেলে ধরার। এখনও দল সাজানো হয়নি। সৌম্যকে পুরো দলই মিস করবে। তবে এসব হতে পারেই। অধিনায়ক হিসেবে বলছি, যারা আছে তারাও ভাল করবে।

চিগুম্বুরা-চিবাবা আতঙ্ক প্রসঙ্গÑ

মাশরাফি ॥ এটা সত্যি কথা। আমার মতে বিশ্বের সবচেয়ে ভাল ক্লিন হিটারদের একজন চিগুম্বুরা। চিবাবা আছে টপ অর্ডারে, সেই রানে আছে। যেটা বলছিলাম, যতটা সহজ ভাবছে সবাই ততটা সহজ হবে না। ৬০০ বল আমাদের মনোযোগ ধরে রাখতে হবে। সব বল মনোযোগ দিতে পারি, শেষ সিরিজে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে যেভাবে খেলেছি, সেভাবে খেলতে পারলে আশা করি সমস্যা হবে না। তবে চিগুম্বুরা, উইলিয়ামস, আরভিন নিজেদের দিন করতে পারে যে কোন সময়। ক্রিকেট এমনই খেলা যে একহাতে চেঞ্জ হয়ে যায়। তবে আমাদের বোলিং আক্রমণ নিয়ে আমি আশাবাদী।

কর্তৃত্ব প্রসঙ্গÑ

মাশরাফি ॥ একেকজনের বলার ধরন একেকরকম। মাঠে নেমে অবশ্যই আমি ডমিনেট করতে চাই। তবে ডমিনেট করার চেয়ে আগে জয়টা জরুরী। আমি পরিকল্পনা করব আগে ম্যাচটা কীভাবে জিততে পারি। ডমিনেট আসলে মাঠে নেমে ভাল খেলা শুরু করলে হয়ে যায়। তার আগে ম্যাচ কিভাবে জিতব সেই চিন্তা না করে ডমিনেট করার চিন্তা আমার মনে হয় উল্টো চাপ আমাদের ওপর চলে আসবে। যেভাবে খেলছিলাম সেখানে বদলের প্রয়োজন নেই। আত্মবিশ্বাস থাকলে হয়ে যাবে।

চ্যালেঞ্জ প্রসঙ্গÑ

মাশরাফি ॥ প্রতিটি সিরিজই চ্যালেঞ্জিং। জিম্বাবুইয়ের বিপক্ষে তো সবসময়ই চ্যালেঞ্জ ছিল। গুরুত্বপূর্ণ হলো যে আমরা পরস্পরের সঙ্গ যেভাবে উপভোগ করছিলাম, সেভাবে করতে পারলে ভাল কিছু না হওয়ার কারণ নেই।