১৬ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

‘মেসি নন, আমি বিশ্বের সেরা’

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডোর হলোটা কী! একের পর এক বলেই চলেছেনÑ আমিই সবার সেরা। এ যেন সুপার কোচ জোশে মরিনহোর ভাও লেগেছে। চেলসির পর্তুগীজ কোচ নিজেই নিজের নামের পাশে টাইটেল বসিয়ে দিয়েছেন ‘স্পেশাল ওয়ান’।

একসময় এই মরিনহোর শিষ্য ছিলেন রোনাল্ডো। সেখান থেকেই হয়ত কৌশলগুলো রপ্ত করেছেন। দিনকয়েক আগেও একবার সি আর সেভেন বলেছেন, তিনিই সবার সেরা, মেসি নন। শুক্রবার আরেকবার পর্তুগাল অধিনায়ক স্পষ্টভাবে বলেছেন, তিনিই বিশ্বসেরা খেলোয়াড়। বিবিসিকে দেয়া এক সাক্ষাতকারে রিয়াল মাদ্রিদ তারকা বলেন, আমার কাছে, আমি সব সময়ই সেরা। মানুষ কী ভাবছে তাতে আমার কিছু আসে যায় না। শুধু এ বছরই নয়, আমার কাছে আমি সব সময়ই সেরা।গত কয়েক বছর ধরেই মেসি ও রোনাল্ডোর শ্রেষ্ঠত্ব নিয়ে তর্ক-বিতর্ক চলছে। বেশিরভাগই বার্সিলোনার আর্জেন্টাইন তারকাকে এগিয়ে রাখেন। তবে সর্বশেষ দুইবার ফিফা ব্যালন ডি’অর জিতে নিজেকেও অনন্য উচ্চতায় নিয়ে গেছেন রোনাল্ডো। সি আর সেভেন এ প্রসঙ্গে বলেন, আমি সবার মতামতকে শ্রদ্ধা করি। হতে পারে আপনার মতে মেসি আমার চেয়ে ভাল। কিন্তু আমার কাছে, আমি তার চেয়ে ভাল। শুধু মুখে বলেই থেমে থাকেননি তিনি। নিজেকে সেরা বলার পেছনে কারণও তুলে ধরেন। রিয়ার মাদ্রিদ তারকা বলেন, আমার বলার দরকার নেই যে, আমি ফুটবল ইতিহাসে আছি, আমি একজন কিংবদন্তি। পরিসংখ্যানই সব কিছু বলে। এখন পর্যন্ত ক্যারিয়ারে ৭৬০ ম্যাচ খেলে ৫০৪ গোল করেছেন রোনাল্ডো। রিয়াল মাদ্রিদে নাম লেখানোর পর ৩১৪ ম্যাচে করেছেন ৩২৬ গোল। আর মেসি বার্সিলোনার হয়ে ৪৯২ ম্যাচে করেছেন ৪১৮ গোল। ২০০৯ সালে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড থেকে রেকর্ড ৮ কোটি পাউন্ড ট্রান্সফার ফির বিনিময়ে রিয়ালে নাম লেখানো রোনাল্ডো দাবি করেন, একজন খেলোয়াড় হিসেবে সামর্থ্যরে চূড়ায় আছেন তিনি। বর্তমানে ৮২ গোল করে চ্যাম্পিয়ন্স লীগের ইতিহাসেও সর্বোচ্চ গোলের মালিক রোনাল্ডো। তিনি বলেন, এর চেয়ে আরও উন্নতি করা কঠিন। আমি শুধু এটা ধরে রাখতে চাই। কারণ আমি মনে করি এটা একজন ফুটবলারের ক্যারিয়ারে সবচেয়ে কঠিন সময়। রোনাল্ডোর মতে, গত আট বছর ধরে তিনি তার দুর্দান্ত ফর্মটা ধরে রেখেছেন এবং একই গতিতে খেলে যাচ্ছেন। এভাবেই অন্ততপক্ষে আরও পাঁচ-ছয় মৌসুম খেলে যেতে চান বিশ্বসেরা এই ফরোয়ার্ড। এদিকে এক বিস্ময় জাগানো খবর রটেছে। রোনাল্ডোর নাকি এই পৃথিবীর আলোই দেখার কথা ছিল না। মানেটা হচ্ছে, জন্মানোর আগেই তাঁকে নাকি গর্ভপাতের চিন্তা করেছিলেন তার মা!