১৬ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ধর্ষণের শিকার অন্তঃসত্ত্বা নারীর ২৫ হাজার টাকা জরিমানা

  • বরিশালে সালিশের রায়

স্টাফ রিপোর্টার, বরিশাল ॥ ধর্ষণের ফলে সাত মাসের অন্তঃসত্ত্বা স্বামীর পরিচয় না পেলেও সন্তান প্রসবের সময়ের খরচ বাবদ গ্রাম্য মাতবরদের প্রহসনমূলক সালিশে উভয় পরিবারকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। জরিমানার টাকা মাতবরদের কাছে জমা দেয়ার জন্যও নির্দেশ দেয়া হয়। চাঞ্চল্যকর এ ঘটনাটি ঘটেছে জেলার আগৈলঝাড়া উপজেলার রতœপুর ইউনিয়নের গৌহার গ্রামে।

শুক্রবার দুপুরে সালিশের বিষয়টি এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে তীব্র উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। জানা গেছে, ওই গ্রামের রহমান বেপারির পুত্র শাকিল বেপারি পার্শ্ববর্তী বাড়ির এক দিনমজুরের মেয়েকে প্রেমের ফাঁদে ফেলে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণ করে। এতে ওই কিশোরী অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়ে। ধর্ষিতার পরিবার বিষয়টি গ্রাম্য মাতবরদের জানালে তারা মামলা না করার জন্য হুমকি প্রদর্শন করে।

জানা গেছে, বুধবার গভীর রাতে স্থানীয় ৭নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য সাকিব হোসেন শান্তর নেতৃত্বে ধর্ষিতার বাড়িতে প্রহসনের শালিস বৈঠকের আয়োজন করা হয়। ওই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় মাতবর লাল মিয়া গোমস্তা, আব্দুল জলিল, মতলেব বেপারি ও ইসমাইল হোসেন গোমস্তা। বৈঠক চলাকালীন মাতবররা পবিত্র কোরান শরীফ হাতে ধরিয়ে ধর্ষিতাকে ঘটনার জন্য কে দায়ী বলতে বলেন। এ সময় ধর্ষিতা শাকিলের নাম বলে। একইভাবে শাকিলকেও কোরান শরীফ নিয়ে বলতে বলা হলে শাকিল ঘটনার জন্য দায়ী নয় বলে জানায়। এ সময় মাতবররা সন্তান প্রসবের জন্য ধর্ষিতার পরিবারকে ২৫ হাজার টাকা ও ধর্ষক শাকিলের পরিবারকে ২৫ হাজার টাকা জরিমানা করে তাদের কাছে জমা রাখার নির্দেশ দেন।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক মাতবর বলেন, সন্তান প্রসবের পর তার ডিএনএ টেস্টের মাধ্যমে অপরাধী জন্মদাতাকে শনাক্ত করা হবে? এ সিদ্ধান্তের ওপর ভর করে সর্বসম্মতিক্রমে উল্লেখিত রায় ঘোষণা করা হয়েছে। এ ব্যাপারে আগৈলঝাড়া থানার ওসি মনিরুল ইসলাম বলেন, বিষয়টি তাকে কেউ অবহিত করেননি। তারপরও তিনি খোঁজখবর নিয়ে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।