২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

যশোরে লটারি নিয়ে জালিয়াতি ॥ ভিডিও ফুটেজে ফাঁস

স্টাফ রিপোর্টার, যশোর অফিস ॥ সিটি প্লাজার লটারিতে অবিশ^াস্য জালিয়াতি করে হাজার হাজার ক্রেতার সঙ্গে প্রতারণা করা হয়েছে। লটারির ড্র অনুষ্ঠানে ১ম পুরস্কারের টিকিট বদলের ভিডিও ফুটেজ ফাঁস হওয়ায় প্রতারণার বিষয়টি জানাজানি হয়। গত ৩১ অক্টোবর ড্র অনুষ্ঠিত হয়। বিষয়টি ফাঁস হওয়ায় সিটি প্লাজার চেয়ারম্যান এস এম ইয়াকুব আলীর উপস্থিতিতে গত দু’দিন ধরে দফায় দফায় বৈঠক হয়েছে।

সূত্র জানায়, যশোর সিটি প্লাজা শপিং কমপ্লেক্সের ব্যবসায়ী সমিতির নামে ঈদ ও পূজার হাজার হাজার ক্রেতার মাঝে ‘লাকী কূপন’ বিতরণ করা হয়। প্রতি তিন শ’ টাকার পণ্য ক্রয়ে একটি করে টিকিট প্রদান করা হয়েছিল। যাতে একাধিক মোটরসাইকেল, সোনার হারসহ আকর্ষণীয় ৪০টি পুরস্কার ছিল। আর প্রথম পুরস্কার ছিল ১৫০ সিসি পালসার মোটরসাইকেল। গত ৩১ অক্টোবর রাতে লটারির ড্র অনুষ্ঠানে প্রকাশ্যে এক শিশুকে দিয়ে টিকিট তোলা হয়। কিন্তু এরপরই চোখের পলকে সেই টিকিট বদল করে অন্য একটি টিকিটের নাম্বার ঘোষণা করা হয়। হাত বদলের সময় টিকিট নিচে কৌশলে ফেলে দেয়ার বিষয়টি ভিডিও চিত্রে ধরা পড়ে। এই ফুটেজ এখন সাংবাদিকসহ ক্ষুব্ধ ক্রেতাদের হাতে হাতে ঘুরছে।

সূত্র মতে, ভিডিওচিত্র ফাঁস হওয়ার খবরে গত দু’দিন ধরে সিটি প্লাজার অফিস কক্ষে কয়েক দফা রুদ্ধদ্বার বৈঠক হয়েছে। বৈঠকে ব্যবসায়ী ও আয়োজকদের মধ্যে উত্তপ্ত বাক্য বিনিময়ও হয়েছে। এক পক্ষ দাবি করে, কয়েকজনের জালিয়াতির কারণে তাদের ব্যবসায়িক সুনাম ক্ষুণœ হয়েছে।

এ ব্যাপারে মার্কেটের ব্যবসায়ী মালিক সমিতির সভাপতি সালাউদ্দিন জানিয়েছেন, তাদের কাছেও ভিডিও ফুটেজটি আছে। তারা ভিডিও ফুটেজটির রহস্য উদঘাটন করতে র‌্যাবের সহযোগিতা নেবেন।

চট্টগ্রামে তিন ভুয়া ডাক্তারের জরিমানা

স্টাফ রিপোর্টার, চট্টগ্রাম অফিস ॥ নন ম্যাট্রিক ডাক্তার সেজে চিকিৎসা দিচ্ছে রোগীদের। ডাক্তারের নাম সুজন দেবনাথ প্রকাশ আপন। নগরীর পাহাড়তলী থানাধীন সাগরিকা মুরগি ফার্ম এলাকায় গত ছয়মাস ধরে চিকিৎসার নামে অপচিকিৎসা চালিয়ে রোগীদের সঙ্গে প্রতারণা করে আসছে। বাংলাদেশ মেডিক্যাল ও ডেন্টাল কাউন্সিল আইন লঙ্ঘন করে স্বাস্থ্য সেবার নামে স্বাস্থ্যহানি ঘটানোর কাজে ব্যস্ত থেকে প্রতারণার মাধ্যমে উপার্জন করে যাচ্ছিল। এছাড়া আরও দুই ভুয়া ডাক্তার রোগী সেবার নামে চেম্বার খুলেছে একই এলাকায়। তারা মোস্তফা কামাল ও প্রদীপ কান্তি দাস। এরাও ফার্মেসি পরিচালনার নয়মাসের কোর্স নিয়ে ডাক্তারি চেম্বার খুলে বসেছে। চট্টগ্রামে জেলা প্রশাসনের অভিযানে এমন তিন জনের খোঁজ পাওয়া গেছে একই দিনে। বিষয়টি আকস্মিক হলেও ভয়ঙ্কর। কারণ, এসব ভুয়া ডাক্তারের অপচিকিৎসায় রোগীর সুস্থ হওয়া তো দূরের কথা, মৃত্যুঝুঁকিতে পড়ছে কিনা তা খতিয়ে দেখা প্রয়োজন। জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রুহুল আমিন শনিবার তাদের ১ লাখ ৪০ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন।

নির্বাচিত সংবাদ
এই মাত্রা পাওয়া