২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ব্রিসবেনে অস্ট্রেলিয়ার রানবন্যা

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ ব্রিসবেন টেস্টে রানের বন্যা বইয়ে দিয়েছে অস্ট্রেলিয়া। ৪ উইকেটে ৫৫৬ রানে প্রথম ইনিংস ঘোষণার পর দ্বিতীয় ইনিংসেও সমসংখ্যক উইকেটের বিনিময়ে ২৬৪ রান করেছে স্বাগতিকরা। সাজ ঘরে ফেরার আগে জোড়া সেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন দুই ওপেনার জো বার্নস (১২৯) ও ডেভিড ওয়ার্নার (১১৬)। উসমান খাজা ব্যাট করছেন ৯ রান নিয়ে। ব্যক্তিগত ১ রানে তার সঙ্গে আছেন এ্যাডাম ভোগস। সব মিলিয়ে তৃতীয় দিন শেষেই ৫০৩ রানের বিশাল লিড নিয়ে নিয়েছে স্টিভেন স্মিথের দল। সব মিলিয়ে জয়ের পথ তৈরি করে দারুণ অবস্থায় পৌঁছে গেছে অসিরা। গ্যাবায় তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম টেস্ট খেলছে দুই তাসমান প্রতিবেশী।

ব্রিসবেন টেস্ট ক্রিকেট বিশ্লেষকদেরও ধাঁধায় ফেলে দিয়েছে। বল হাতে যে গ্যাবায় নামার জন্য ফাস্ট বোলারদের হাত নিসপিস করত সেখানেই মাথা কুটে মরলেন ট্রেন্ট বোল্ট, ডগ ব্রেসওয়েলরা। প্রথম ইনিংসেও তাই। কিউই বোলারদের নাকের জল চোখের জলে একাকার করে ফেলেছেন অসি ব্যাটসম্যানরা। এমন অবস্থার তৈরি হয়েছিল এক পর্যায়ে যখন ৪ উইকেটেই (দুই ইনিংসে) ৭৯৩ রান তুলে নেয় স্বাগতিকরা! প্রথম ইনিংসে ৪ উইকেটে ৫৫৬, এরপর দ্বিতীয় ইনিংসে বিনা উইকেটে ২৩৭। ভাগ্যিস, কাল শেষ বিকেলে টপাটপ ৩টি উইকেট তুলে নিতে পেরেছেন স্পিনার মার্ক ক্রেইগ, বোল্ট ১। দুই ইনিংস মিলিয়ে ৮ উইকেটের বিনিময়ে ৮২০ রান তুলে নিয়েছেন স্মিথরা! আশ্চর্যের যেন আর শেষ নেই। গড়ে প্রতিটি উইকেটের বিনিময়ে একটি করে ‘সেঞ্চুরি’!

শনিবার তৃতীয় দিনের শেষ সেসনটা অবশ্য গ্যাবার স্মৃতি কিছুটা হলেও ফিরে এসেছিল। গতির ঝড় তুলে সফরকারী ব্যাটিংলাইন আপ কাঁপিয়ে দিয়েছেন দুই অসি পেসার মিচেল স্টার্ক আর মিচেল জনসন। এক পর্যায়ে ১৬ রানের ব্যবধানে ৪ উইকেট হারিয়ে বড় বিপদে পড়ে কিউইরা। অত:পর সেই একই রূপ। বাকি সময় বোলারদের ওপর দিয়ে ছড়ি ঘুরিয়েছেন ব্যাটসম্যানরা। ফলোঅন এড়াতে না পারলেও সকালে একপ্রান্ত আগলে রেখে নিউজিল্যান্ডের স্কোর তিনশ’ পেরোতে সাহায্য করেন কেন উইলিয়ামসন। অসিদের বিপক্ষে ক্যারিয়ারের প্রথম সেঞ্চুরিটাকে ১৪০- এ টেনে নিয়েছেন এই তরুণ তারকা। এর মধ্য দিয়ে চলতি বছর ২০০০ রানের ল্যান্ডমার্ক (২০৭৭) পেরিয়েছেন তিনি! এরপরই অস্ট্রেলিয়ার দ্বিতীয় ইনিংস শুরু হলে সবটুকো আলো কেড়ে নেন বার্নস আর ওয়ার্নার। ২৩৯ রানে এগিয়ে থেকে শুরু করেন তারা।

এক ইনিংসে এত বড় লিড পেয়ে এতটাই নির্ভার ছিলেন, ব্যাট হাতে দুজন যেন ঝড় তোলেন। একেবারে ওয়ানডে স্টাইলে। ১৭ ওভারেই ১০০। ইংল্যান্ডে এ্যাশেজ হয়ে গ্যাবা- টানা চার ইনিংসে ওপেনিং জুটিতে সেঞ্চুরি পায় অস্ট্রেলিয়া। মাত্র ক্যারিয়ারের তৃতীয় টেস্ট খেলতে নামা বার্নসই ছিলেন বেশি আক্রমণাত্মক। ছক্কা হাঁকিয়ে পৌঁছান জীবনের প্রথম সেঞ্চুরিতে। ১২৩ বলে ১৩ চার ও ৪ ছক্কায় ১২৯ রানের দুরন্ত ইনিংসটি খেলার পথে অতিথি বোলারদের তুলোধুনো করেন বার্নস। সঙ্গী ওয়ার্নারও কম যাননি। ১১৩ বলে ৮ চার ও ২ ছক্কায় চৌদ্দতম সেঞ্চুরি তুলে নেন মারকাটারি এই ওপেনার। দুই ওপেনার মিলে ৩৭.৪ ওভারে দলের ভা-ারে জমা করেন ২৩৭ রান! এরপর অবশ্য মৃদ্যু ধস নামে। ক্রেইগ ঘূর্ণিতে ২৬ রানের ব্যবধানে আউট হন চারজন। তাতে খুব একটা ক্ষতি হয়নি। লিডটা যে এরই মধ্যে পাঁচশ’ পেরিয়ে গেছে স্মিথদের।

জেলা প্রশাসক গোল্ডকাপ ফুটবল শুরু

ইফতেখারুল অনুপম, টাঙ্গাইল ॥ টাঙ্গাইল স্টেডিয়ামে জেলা প্রশাসক গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট শুরু হয়েছে শুক্রবার। দীর্ঘ ১১ বছর পর জেলার সবচেয়ে বড় এই টুর্নামেন্ট শুরু হওয়ার খবরে খেলোয়ার, ক্রীড়া সংগঠক ও ক্রীড়ামোদীদের মধ্যে ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনা দেখা দিয়েছে।

টুর্নামেন্টের উদ্বোধনী খেলায় ঢাকার উত্তর বারিধারা ক্লাব ট্রাইবেকারে ৬-৫ গোলে ঢাকা ওয়ারী ক্লাবকে পরাজিত করে। খেলার নির্ধারিত সময়ে ২-২ গোলে অমীমাংসিত থাকে। ঢাকার ওয়ারী ক্লাবের পক্ষে সুজন ও সুমন দাস গোল করে দলকে এগিয়ে নেন। পরে খেলার দ্বিতীয়ার্ধে উত্তর বারিধারা ক্লাবের পক্ষে শিতল দুটি গোল করে খেলায় সমতা ফিরিয়ে আনেন। নকআউট পদ্ধতির এই খেলায় পরে ট্রাইবেকারে উত্তর বারিধারা ক্লাব জয়লাভ করে। শনিবার বিকেলে অনুষ্ঠিত খেলায় টাইব্রেকারে ঢাকা টিএন্ডটি ক্লাব ৬-৫ গোলে ঢাকা আরামবাগ ক্লাবকে পরাজিত করে। নির্ধারিত সময়ের খেলা গোলশূন্য থাকে।

শুক্রবার টুর্নামেন্টের উদ্বোধন করেন জেলা পরিষদের প্রশাসক ফজলুর রহমান খান। উপস্থিত ছিলেন সাংসদ ছানোয়ার হোসেন, সাংসদ মনোয়ারা বেগম, জেলা প্রশাসক মাহবুব হোসেন প্রমুখ।