১৪ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

যুক্তরাষ্ট্রে পাড়ি জমাচ্ছেন ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো!

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড কিংবা তাদেরই নগরপ্রতিদ্বন্দ্বী ম্যানচেস্টার সিটিতে যোগ দেবেন ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো। অন্তত সংবাদ মাধ্যমের দাবি সে রকমই। কিন্তু এসবকে উড়িয়ে দিলেন সিআর সেভেন। বরং একটা পর্যায়ে এসে যুক্তরাষ্ট্রে ক্যারিয়ার গড়ার কথা ভাবছেন রিয়াল মাদ্রিদের এই পর্তুগীজ সুপারস্টার। এ বিষয়ে বিশ্ব ফুটবলের সেরা এই তারকা নিজেই বলেন, ‘অবশ্যই যুক্তরাষ্ট্রে খেলার কথা ভাবছি।’ মাদ্রিদে রোনাল্ডোর দীর্ঘমেয়াদী অবস্থান করার অর্থ হচ্ছে ফরাসি চ্যাম্পিয়ন প্যারিস সেইন্ট জার্মেইন এবং সাবেক ক্লাব ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডে যোগ দেয়ার বিষয়ে যে গুঞ্জন উঠেছে সেটি অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। ফলে ৩০ বছর বয়সী রোনাল্ডোর ক্যারিয়ারের শেষ সময় কাটানোর জন্য সম্ভাব্য স্থান হবে যুক্তরাষ্ট্রের ঘরোয়া ফুটবল লীগ এমএলএস।

ইতোমধ্যেই আন্দ্রে পিরলো, ডেভিড ভিয়া, ফ্রাঙ্ক ল্যাম্পার্ড, স্টিভেন জেরার্ড, কাকা এবং স্যাভেস্টেইন জিওবিনকোর মত ইউরোপের নামী দামী ফুটবল তারকারা ক্যারিয়ারের শেষ সময়টুকু কাটানোর জন্য বেছে নিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রকে। রোনাল্ডোও অনুসরণ করতে পারেন তাদের। তিনবারের ফিফা বর্ষসেরার খেতাব জয়ী এই ফুটবল তারকা এফএইচএম ইউকে সংস্করণকে বলেন, ‘আমি বিশ্বের যে কোন স্থানের কোন লীগের দরজাই বন্ধ করছি না। অন্তত একটি বছর এমএলএসে নিশ্চিতভাবে কাটানোর কথা ভাবছি। আমি সব সময় বলে আসছি সেখানে বসবাস ও খেলার সম্ভাবনার কথা।’

চলতি মৌসুমে দুর্দান্ত সময় কাটাচ্ছেন রোনাল্ডো। রিয়ালের হয়ে সব ধরনের টুর্নামেন্ট মিলিয়ে মোট ১৪ ম্যাচ খেলে প্রতিপক্ষের জালে ১৩ গোল করেছেন সিআর সেভেন। এরমধ্যে গত সেপ্টেম্বরে এস্পানিওলের বিপক্ষে ৫ গোলের রেকর্ডও রয়েছে ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডোর দখলে। তবে জাতীয় দল বিশ্রাম দিয়েছে রোনাল্ডোকে। আগামী দুই ম্যাচে দলে রাখেননি পর্তুগালের কোচ ফের্নান্দো সান্তোস। রাশিয়া ও লুক্সেমবার্গের বিপক্ষে প্রীতিম্যাচের জন্য শুক্রবার ২৩ জনের দল ঘোষণা করেন পর্তুগাল কোচ। নতুনদের সুযোগ করে দিতে রোনাল্ডো ছাড়াও রিকার্দো কারেসমা, রিকার্ডো কাভালহো ও চিয়াগোকে রাখা হয়নি এই দলে। পর্তুগাল কোচ এর আগেও রোনালল্ডোকে দলের বাইরে রেখেছিলেন। কয়েকদিন আগে পর্তুগালের ২০১৬ ইউরোতে খেলা নিশ্চিত হওয়ার পর রিয়াল মাদ্রিদের এই ফরোয়ার্ডকে বিশ্রাম দেন তিনি। এবার তাই প্রীতিম্যাচে রোনাল্ডোর না থাকা নিয়ে প্রশ্ন ওঠায় বিরক্ত কোচ। এ বিষয়ে তিনি বলেন, ‘যখন দলে আরও পাঁচ-ছয়জন অনুপস্থিত, তখন কেন শুধু রোনাল্ডোকে নিয়ে কথা বলা? এটা আমার সিদ্ধান্ত। দীর্ঘদিন ধরে বলা হচ্ছে আমাদের খেলোয়াড় নেই; কিন্তু আমি যখন অন্যদের বাছাই করি, তখন আমার সমালোচনা করা হয়।’ আগামী ১৪ নবেম্বর রাশিয়া ও ১৭ নবেম্বর লুক্সেমবার্গের বিপক্ষে প্রীতিম্যাচ খেলবে পর্তুগাল।

এদিকে কে বিশ্বসেরা? তা নিয়ে বিতর্কের শেষ নেই। বার্সিলোনার লিওনেল মেসি আর রিয়াল মাদ্রিদের ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডোকে নিয়ে গত কয়েক বছর ধরেই এই বিতর্ক চলছে। অবিরাম এই তুলনায় ক্লান্ত হয়ে পড়ার কথাই জানিয়েছেন রোনাল্ডো। রোনাল্ডোর জীবন ও ক্যারিয়ার নিয়ে তৈরি করা চলচ্চিত্র ‘রোনাল্ডো’ মুক্তি পাবে সোমবার। এর আগে এক সাক্ষাতকারে সম্প্রতি মেসির সঙ্গে তার তুলনা নিয়ে কথা বলেন তিনি। তার অভিমত, ‘আমার নিজস্ব ধরন আছে, তারও নিজস্ব একটা ধরন আছে। মানুষ যে সব সময় তুলনা করে, এর প্রতি আমাদের শ্রদ্ধা থাকা উচিত।’ রোনাল্ডো এরপর তুলনার বিষয়টি নিয়ে অনেকটা দার্শনিকের মতোই কথা বলেন, ‘এটা স্বাভাবিক, শিশুকাল থেকেই আমাদের তুলনা করা হচ্ছে। আমি শুধু আমার ও মেসির বিষয়ই বোঝাচ্ছি না, স্কুলে সবার কথাই বলছি। কে বেশি চালাক, কে বেশি ক্ষিপ্র। এটাই স্বাভাবিক, এটা জীবনের অংশ। এটা আমাকে আর বিস্মিত করে না। কিন্তু কখনও কখনও এটা আমাকে ক্লান্ত করে দেয়। কারণ এটা সব সময় একই রকম এবং তারা এখনও পুনরাবৃত্তি করছে; এক বছর, আরেক বছর, প্রত্যেক বছর।’