১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

এবার গাজীপুরে ছুরি মেরে আইনজীবী খুন

এবার গাজীপুরে ছুরি মেরে আইনজীবী খুন

নিজস্ব সংবাদদাতা, গাজীপুর, ৭ নবেম্বর ॥ গাজীপুরে শনিবার সন্ধ্যায় শহরের উত্তর ছায়াবিথী এলাকায় নিজ বাড়ির সামনে ছুরিকাঘাতে ও রড দিয়ে পিটিয়ে এক শিক্ষানবিশ আইনজীবীকে খুন করেছে সন্ত্রাসীরা। নিহত খন্দকার এনামুল হক বিপ্লবের (৪২) বাবা খন্দকার মোঃ সামসুদ্দিন মাত্র এক সপ্তাহ আগেই হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যান। বিপ্লব গাজীপুর আদালতের শিক্ষানবিশ আইনজীবী। তিনি গাজীপুর বারের সাবেক সভাপতি এ্যাডভোকেট শহীদুজ্জামানের জুনিয়র হিসেবে কাজ করতেন।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, খন্দকার এনামুল হক বিপ্লব শনিবার সন্ধ্যায় তার বাসার সামনে এসে পৌঁছলে পূর্ব থেকে ওঁৎ পেতে থাকা স্থানীয় সন্ত্রাসী রাব্বী ও রবিন তাকে ঘিরে ধরে। এক পর্যায়ে তারা বিপ্লবকে এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাত ও লোহার রড দিয়ে আঘাত করে পালিয়ে যায়। তার চিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে এসে উদ্ধার করে গাজীপুরে শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে তার অবস্থার অবনতি হলে হাসপাতালের চিকিৎসকগণ তাকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে রেফার করেন।

সন্ধ্যা সাতটার দিকে উত্তরার আধুনিক হাসপাতালে নেয়া হলে তার অবস্থার আরও অবনতি ঘটে। সেখান থেকে তাকে কুর্মিটোলা হাসপাতালে নেয়ার পথে তিনি মারা যান।

নিহত বিপ্লবের ছোট ভাই সুপ্রীমকোর্টের প্রাক্তন সহকারী এটর্নি জেনারেল এ্যাডভোকেট খন্দকার আমিনুল হক টুটুল জানান, আশংকাজনক অবস্থায় তাকে গাজীপুরে শহীদ তাজউদ্দিন আহমদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল, পরে উত্তরার আধুনিক হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখান থেকে ঢাকার কুর্মিটোলা হাসপাতালে নেয়ার পথে বিপ্লব মারা যান। কেন তার ওপর হামলা করা হয়েছে তা তিনি জানাতে পারেননি।

বিপ্লবের মা রেহানা আক্তার জানান, তার দুই ছেলে এক মেয়ে। তার ছোট ছেলে ঢাকার সুপ্রীমকোর্টের সাবেক সহকারী এটর্নি জেনারেল এ্যাডভোকেট খন্দকার আমিনুল হক টুটুল। মেয়ের বিয়ে হয়েছে টাঙ্গাইলে। টুটুলের বাবা খন্দকার সামসুদ্দিন গত শুক্রবার হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যান। মেয়েকে টাঙ্গাইল পৌঁছে দিয়ে বাড়ি ফেরার পথে এ হামলার ঘটনা ঘটে। তিনি হত্যাকারীদের দ্রুত গ্রেফতার দাবি করেন।

জয়দেবপুর থানার এসআই আব্দুল হামিদ জানান, পূর্ব শত্রুতার জেরে এ ঘটনাটি ঘটেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। হামলাকারীদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে।