২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

আমরা এক পরিবার ॥ চীন-তাইওয়ান ঐতিহাসিক বৈঠকে শি

চীনের ক্ষমতা নিয়ে জাতীয়তাবাদী কুওমিনটাং ও কমিউনিস্টদের মধ্যে গৃহযুদ্ধের ৬৬ বছর পর একই দেশের দুটি স্বতন্ত্র অংশেরনেতাদের মধ্যে প্রথমবারের মতো শনিবার বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। সিঙ্গাপুরে চীনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং ও তাইওয়ানি প্রেসিডেন্ট মা ইং-জিউ এক ঐতিহাসিক দ্বিপাক্ষিক বৈঠকে মিলিত হন। খবর এএফপি ও বিবিসির।

তাইওয়ানকে নিজেদের একটি ‘দলছুট’ প্রদেশ বলে মনে করে কমিউনিস্ট চীন। ৬৬ বছর পেরিয়ে গেলও দুই বৈরী পক্ষের শীর্ষ নেতাদের মধ্যে এ পর্যন্ত কোন বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়নি। শনিবারই বহু প্রতীক্ষিত প্রথম বৈঠকটি নিরপেক্ষ ভেন্যু সিঙ্গাপুরের একটি বিলাসবহুল শাংরি-লা হোটেলে অনুষ্ঠিত হয়েছে।

তাইওয়ানের প্রেসিডেন্ট মা ইং চীনের নেতা শিকে বলেছেন, উভয় পক্ষকে পরস্পরের মূল্যবোধ ও জীবনধারার প্রতি সম্মান দেখানো উচিত। তিনি এই বৈঠককে ইতিবাচক ও বন্ধুত্বপূর্ণ বলে অভিহিত করেছেন। শি বলেন, আমরা উভয় পক্ষ ‘এক পরিবার’ এবং আমাদেরকে আলাদা করা যাবে না। কোন শক্তি আমাদের আলাদা করতে পারবে না। আমরা এক পরিবার। তবে বৈঠকে কোন চুক্তি হয়নি। দুই নেতা রুদ্ধদ্বার বৈঠকে ঢোকার আগে পরস্পরের সঙ্গে হাত মেলান। এ সময় তারা হাস্যোজ্জ্বল ছিলেন। এ ছাড়া সেখানে জড়ো হওয়া বিপুল সাংবাদিকদের উদ্দেশে তারা হাতও নাড়েন। গৃহযুদ্ধের বিভক্তি ও গত কয়েক দশক ধরে চলা বৈরিতার অবসান ঘটিয়ে দুই দেশের মধ্যে সেতুবন্ধন রচনা এ বৈঠকের প্রধান উদ্দেশ্য।

মা ইং ২০০৮ সালে তাইওয়ানের প্রেসিডেন্ট হওয়ার পর থেকেই চীনের সঙ্গে বাণিজ্যিক সম্পর্কের উন্নয়ন ঘটানো তার অন্যতম প্রধান নীতি হয়ে দাঁড়ায়। দু’পক্ষের রাজনৈতিক বিভক্তি নিরসনে কোন অগ্রগতি না হলেও এ সময় দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য সম্পর্কে উল্লেখযোগ্য উন্নতি হয়।