২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

কক্সবাজারে বৌদ্ধ বিহারে কঠিন চীবর দানোৎসব

কক্সবাজারে বৌদ্ধ বিহারে কঠিন চীবর দানোৎসব

স্টাফ রিপোর্টার, কক্সবাজার ॥ কক্সবাজার শহরের ঐতিহ্যবাহি চেন্দা মেজু বৌদ্ধ বিহারে ৩ দিন ব্যাপি দানোত্তম শুভ কঠিন চীবর দানোৎসব শুরু হয়েছে। শনিবার বিকেলে বিহার প্রাঙ্গনে ধর্মীয় ও জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মাধ্যমে উক্ত দানোৎসবের শুভ সূচনা হয়। ম্যোশাই রাতœা রাখাইন তরুনী সংগঠন ও হ্নাংসোয়েওয়া সংগঠনের যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে সাবেক মহিলা সংসদ সদস্য ও কক্সবাজার জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি অধ্যাপিকা এথিন রাখাইন বলেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন বর্তমান সরকার ধর্ম নিরপেক্ষতায় বিশ্বাসী। তিনি বলেন-ধর্মের বাণী এবং ধর্মীয় গুরুদের নির্দেশনা জীবনে চলার পথে পাথেয় হিসেবে নিয়ে আমাদের পথ চলতে হবে। তাহলে দেশ, সমাজ ও পরিবারকে আলোর পথে ধাবিত করতে পারবো। বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের মতে দানের মধ্যে সর্বোত্তম দান হচ্ছে কঠিন চিবর দান। উল্লেখ্য বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীগণ আশ্মিনী পূর্ণিমা হতে কার্তিকী পূর্ণিমার পর্যন্ত একমাস ব্যাপী দানোত্তম এ কঠিন চীবর দান অনুষ্ঠানকে অত্যন্ত ঝাকজমক সহকারে পালন করে থাকেন। রাখাইন সম্প্রদায়ের বিশিষ্ট নেতা অংক্যচিং এর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে পৌরহিত্য করেন চেন্দামেজু বৌদ্ধ বিহারের বিহারাধ্যক্ষ উ: প্যাংন্যাওয়েংথা মহাথেরো। বিহারাধ্যক্ষ উ: প্যাংন্যাওয়েংথা মহাথেরোর নের্তৃত্বে এদিন ভিক্ষুসংঘ কর্তৃক মঙ্গলসূত্র পাঠের মাধ্যমে অনুষ্ঠান সূচনা, ভিক্ষুসংঘের প্রতিনিধি কর্তৃক বৌদ্ধ ধর্মীয় শাসনের পতাকা ও প্রধান অতিথি অধ্যাপিকা এথিন রাখাইন জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মাধ্যমে অনুষ্টানের উদ্বোধন করেন। অত:পর প্রধান অতিথি ফিতা কেটে অনুষ্টানে মূল মন্ডপের দ্বারোদ্ঘাটন করলে প্রথমে বৌদ্ধ ভিক্ষুসংঘ, আমন্ত্রিত বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ ও সমবেত পূজারীবৃন্দ চীবরসহ বিভিন্ন দান সামগ্র নিয়ে সারিবদ্ধভাবে মন্ডপে প্রবেশ করেন। সেখানে উ: প্যাংন্যাওয়েংথা মহাথেরোর পৌরহিত্যে বুদ্ধ বন্দনা, পঞ্চশীল গ্রহণ ও ধর্মীয় দেশনা প্রদানের পর আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে আরও উপস্থিত ছিলেন রাখাইন ডিভেল্যাপমেন্ট ফাউন্ডেশন- আরডিএফ এর পরিচালক ক্য চিং, উইমালা তারা বৌদ্ধ বিহার পরিচালনা কমিটির সভাপতি মংথাচিং, ওয়েনমে, মংলাওয়ান, উথোঁয়ে য়েইনসহ অসংখ্য পূজারী। আজ সোমবার পর্যন্ত এ দানোত্তম কঠিন চীবর দানোৎসব চলবে।