২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

চলে গেলেন চলচ্চিত্র পরিচালক বাপ্পাদিত্য

চলে গেলেন চলচ্চিত্র পরিচালক বাপ্পাদিত্য

সংস্কৃতি ডেস্ক ॥ অল্প বয়সেই চলে গেলেন ‘ইলার চার অধ্যায়’ খ্যাত ওপার বাংলার চলচ্চিত্র পরিচালক বাপ্পাদিত্য বন্দ্যোপাধ্যায়। শনিবার রাত সাড়ে নয়টার দিকে ভারতের ইএম বাইপাস সংলগ্ন এক হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়। তাঁর বয়স হয়েছিল ৪৫ বছর। পারিবারিক সূত্রের উদ্ধৃতি দিয়ে ভারতের এক গণমাধ্যম জানায়, সম্প্রতি একটি চলচ্চিত্রের কাজে তিনি চেরাপুঞ্জি গিয়েছিলেন। চলচ্চিত্রের কাজ শেষ করে কলকাতায় ফিরে আসার পরই তার নিউমোনিয়া ধরা পড়ে। সে সময় হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন তিনি। সুস্থ হয়ে বাড়িও ফেরেন। কিন্তু বুকে সংক্রমণের ফলে গত রবিবার ফের অসুস্থ হয়ে পড়লে বাপ্পাদিত্যকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ক্রমশ সুস্থ হয়ে উঠছিলেন তিনি। কিন্তু শুক্রবার শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাকে ভেন্টিলেশনে রাখা হয়। এ দিন রাতে শেষ হয়ে গেল মৃত্যুর সঙ্গে চিত্র পরিচালকের লড়াই। চিকিৎসকেরা জানিয়েছেন, তার ‘মাল্টি অরগ্যান ফেলিওর’ হয়েছিল।

১৯৭০ সালে জন্ম নেয়া পরিচালক বাপ্পাদিত্য বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রথম চলচ্চিত্র ‘সম্প্রদান’। ২০০০ সালে প্রথম চলচ্চিত্রের জন্য বিএফজেএ পুরস্কার জিতেছিলেন তিনটি। একই বছর অংশ নেন ৬ষ্ঠ ঢাকা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের প্রতিযোগিতা বিভাগে। ২০১৩ সালে মুক্তি পায় তার সবশেষ চলচ্চিত্র ‘নায়িকা সংবাদ’। এ বছর গোয়ায় অনুষ্ঠিত ভারতীয় আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের জন্য মনোনীত ‘সহরা ব্রিজ’ ছিল নির্মাণের পর্যায়ে। তার ‘শিল্পান্তর’ (১৯৯৯), ‘দেবকী’ (২০০৫), ‘কাল’ (২০০৭), ‘হাউসফুল’ (২০০৯), ‘কাগজের বউ’ (২০১১) ‘এলার চার অধ্যায়’-এর মতো চলচ্চিত্র পরিচালনা করেছেন তিনি। তার একটি চলচ্চিত্র ‘শোহরা ব্রিজ’ গোয়া চলচ্চিত্র উৎসবে ইন্ডিয়ান প্যানোরমায় নির্বাচিত হয়েছে। চলচ্চিত্রগুলো আন্তর্জাতিকভাবে প্রশংসিত ও স্বীকৃত। এছাড়াও বাপ্পাদিত্য পরিচালনা করেছেন টিভি সিরিয়াল ‘আনন্দনগরীর কথকতা’। ‘পোঁকাদের আত্মীয়স্বজন’ নামে কাব্যগ্রন্থ প্রকাশ করেছিলেন একটি। এছাড়া চলচ্চিত্র বিষয়ে নিয়মিত প্রবন্ধ লিখতেন।

বাপ্পাদিত্য বন্দ্যোপাধ্যায়ের বাবা-মা জীবিত রয়েছেন। এ দিন ছেলের মৃত্যুর খবর পেয়ে তারা দু’জনেই হাসপাতালে পৌঁছান। তরুণ এই চলচ্চিত্র পরিচালকের অকালপ্রয়াণে শোকস্তব্ধ বাংলা চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্টরা। ‘কাগজের বউ’ ও ‘এলার চার অধ্যায়’ চলচ্চিত্রের অভিনেত্রী পাওলি দাম বলেন, বাপ্পাদিত্যর কাছ থেকে অনেক কিছু শিখেছি। তার চলে যাওয়া নতুন শিল্পীদের কাছে এক অপূরণীয় ক্ষতি। ভাল পরিচালক তো ছিলেনই, অসম্ভব ভাল মানুষও ছিলেন বাপ্পাদা। বিশ্ব চলচ্চিত্র বিষয়ে পরিচালকের অগাধ উৎসাহ ছিল বলে জানিয়েছেন পাওলি।