১৭ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ড্রপ টাইম গ্রাহকদের ফিরিয়ে দিতে হবে

স্টাফ রিপোর্টার ॥ টেলিকম সেবার মান নিশ্চিত করাই হবে প্রথম কাজ। আগামী তিন মাসের মধ্যে এই কাজটি শেষ করা হবে। গ্রাহকরা শুধু মোবাইলে কথা বলতে পারলেই টেলিকম সেবার সবটুকু পান না। টেলিকম সেবা বলতে যা বোঝায় তার পুরোটাই গ্রাহকদের দিতে হবে। কোন প্রকার কল ড্রপ মেনে নেয়া হবে না। কল ড্রপ হলে ড্রপ টাইম গ্রাহকদের ফিরিয়ে দিতে হবে। অপারেটররা গ্রাহকদের ঠকাতে পারবে না। আর এটা করতে পারলেই গ্রাহক সেবা অনেক দূর এগিয়ে যাবে। সোমবার বিটিআরসির সভাকক্ষে টেলিকম রিপোর্টার্স নেটওয়ার্ক অব বাংলাদেশের (টিআরএনবি) সঙ্গে মতবিনিময়কালে বিটিআরসির নবনিযুক্ত চেয়ারম্যান ড. শাহজাহান মাহমুদ এ কথা বলেন।

বিটিআরসির চেয়ারম্যান ড. শাহজাহান মাহমুদ বলেন, আমি মাত্র দুই সপ্তাহ আগে বিটিআরসির চেয়ারম্যান হিসেবে যোগদান করেছি। এখানে যোগদান করার পর আমি যেটা জেনেছি, সেটা হচ্ছে গ্রাহক সেবার মান খুব নিম্ন মানের। শুধু মাত্র মোবাইল ফোনে কথা বলা গেলেই পুরোপুরি সেবা বোঝায় না। টেলিকম সেবার জন্য আরও বহু বিষয় রয়েছে। যেগুলো গ্রাহক পর্যায়ে পৌঁছায়নি। এটা নিশ্চিত করতে না পারলে টেলিকম সেবাও পূর্ণাঙ্গ হবে না। অবৈধ ভিওআইপি বন্ধের জন্য চেষ্টা করা হচ্ছে। এ জন্য আমি কয়েকদিনের মধ্যে কমিশন নিয়ে বৈঠক করব। কমিশনের বাইরে যারা এ বিষয়ে অভিজ্ঞ তাদের সঙ্গেও বৈঠক করা হবে। মোটকথা অবৈধ ভিওআইপি বন্ধের জন্য একটা মাস্টার প্ল্যান তৈরি করা হবে। ভিওআইপি বন্ধ করতেই হবে। তা না হলে এখান থেকে সরকার অনেক টাকার রাজস্ব হারাচ্ছে। বিটিআরসিকে জনগণের প্রতিষ্ঠান হিসেবে গড়ে তোলা হবে। প্রতিষ্ঠানের প্রতিটি কাজের স্বচ্ছতা আনতে ইতোমধ্যে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। বিটিআরসিকে জবাবদিহিতার মধ্যে আনাই হবে তার কাজ। মতবিনিময় সভায় সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নে জবাবে বলেন, আমি তো মাত্র দুই সপ্তাহ আগে চেয়ারম্যান হিসেবে যোগ দিয়েছি। রাতারাতি তো সব কিছুর সমাধান করা যাবে না। যে অসঙ্গতিগুলো দীর্ঘদিন ধরে জমে আছে তা ঠিক করতে কিছু সময়ের প্রয়োজন। আপনাদের সহযোগিতা পেলে অসঙ্গতিগুলো দূর করতে খুব একটা বেগ পেতে হবে না। আশা করি আমি বিটিআরসিকে একটি জায়গায় নিয়ে যেতে পারব। মোবাইল সিম রেজিস্ট্রেশনের বিষয়ে তিনি বলেন, এটা বড় কর্মযজ্ঞ। আমরা চেষ্টা করছি জনগণের ভোগান্তি কমিয়ে সিম রেজিস্ট্রেশন কাজ শেষ করতে। এ বিষয় নিয়ে মন্ত্রণালয় ও আমরা যৌথভাবে কাজ শেষ করব। সাইবার অপরাধ দমনের বিষয়েও বেশ কিছু পদক্ষেপ হাতে নেয়া হয়েছে। পর্যায়ক্রমে সব কিছুই করা হবে।