১৯ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

কিশোরগঞ্জ-নিকলী সড়ক খানাখন্দে ভরা

নিজস্ব সংবাদদাতা, কিশোরগঞ্জ, ৯ নবেম্বর ॥ কিশোরগঞ্জ-নিকলী সড়কের অধিকাংশ রাস্তায় কার্পেটিং ওঠে খানাখন্দে রূপ নিয়েছে। জেলা শহরের সঙ্গে উপজেলায় যোগাযোগের ২৬ কিলোমিটার সড়কের অন্তত ১০টি স্থান ভয়ঙ্কর মৃত্যুফাঁদে পরিণত হয়েছে। দীর্ঘদিন রাস্তা সংস্কার না করায় মানুষ দুর্ভোগে পড়েছেন । রাস্তার অধিকাংশ স্থানে কার্পেটিং ওঠে যাওয়ায় যানবাহনে চলাচল করতে গিয়ে সাধারণ মানুষ দুর্ঘটনার শিকার হয়।

২৬ কিলোমিটার সড়কের মধ্যে নিকলী, কটিয়াদী ও সদর উপজেলার হাজার হাজার যাত্রী সড়কটি ব্যবহার করে। সড়কের কটিয়াদী উপজেলা অংশের করগাঁও বাজার, গচিহাটা মোড়, সহশ্রাম দুলদিয়া, নিকলী উপজেলা অংশের পাঁচরুখি, মাহমুদপুর বাজার সংলগ্ন ও সদর উপজেলা অংশের মাঠের বাজার, নতুন বাজার, গোসাই বাজারসহ অন্তত ১০টি স্থানে ভয়ঙ্কর মৃত্যুফাঁদে পরিণত হয়েছে। স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীসহ কর্মজীবী মানুষরা প্রতিদিন চরম দুর্ভোগে পড়েন। প্রায়ই সড়কে দুর্ঘটনার ঘটনা ঘটছে। বৃষ্টি হলেই পানিতে তলিয়ে যায় খানাখন্দে ভরা করগাঁও বাজার সড়কের একাংশ। নিকলী থেকে এগারসিন্দুর ট্রেন ধরতে পিক-আপ, সিএনজি, অটোরিক্সা ও মোটরসাইকেলযোগে গচিহাটা রেলওয়ে স্টেশনে যাতায়াত করতে গিয়েও নানা বিড়ম্বনায় পড়তে হয় যাত্রীদের। তাছাড়া এ সড়ক দিয়ে প্রতিদিন উপজেলায় উৎপাদিত কাঁচামাল, মাছসহ সকল প্রকার পণ্য সামগ্রী নিয়ে জেলা সদরসহ গাজীপুর, ময়মনসিংহ, রাজধানী ঢাকায় নিয়ে যাওয়া যায়।

নওগাঁয় স্ত্রীকে পুড়িয়ে হত্যার কথা স্বীকার করেছে রুবেল

নিজস্ব সংবাদদাতা, নওগাঁ, ৯ নবেম্বর ॥ নাসিমা আকতার নাইস নামে গৃহবধূকে পুড়িয়ে হত্যার অভিযোগে মামলার প্রধান আসামি তার পাষ- স্বামী রুবেল হোসেন সরদারকে অবশেষে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। রুবেল বগুড়া জেলার আদমদীঘি উপজেলার কুন্দগ্রামের সাজ্জাদ হোসেনের পুত্র। তারা স্বামী-স্ত্রী দু’জনে নওগাঁ শহরে বাসা ভাড়া নিয়ে থাকত। সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ জাকিরুল ইসলাম জানান, রবিবার সন্ধ্যার পর শহরের আনন্দবাজার-গীতাঞ্জলি শপিং কমপ্লেক্সের সামনে থেকে পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে আসে। সোমবার দুপুরে তাকে ৫ দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে সোপর্দ করেছে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা। ধৃত রুবেল পুলিশের কাছে স্বীকার করে যে, গত ২৪ অক্টোবর রাতে যৌতুকের জন্য স্ত্রীর শরীরে কেরোসিন ঢেলে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে শরীর ঝলসে দিয়ে তাকে হত্যা করা হয়েছে।