১৫ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

রাজধানীতে বাসে ডাকাতি যাত্রীদের ছুরিকাঘাত, ফেলে দিয়ে হত্যা

  • ট্রেন ও সড়ক দুর্ঘটনায় ৪ জন নিহত

স্টাফ রিপোর্টার ॥ রাজধানীর তুরাগে বাসের ভেতরে যাত্রীদের ছুরিকাঘাত ও মারধর করে সব কিছু ছিনিয়ে নিয়ে চলন্ত বাস থেকে এক যাত্রীকে ফেলে দিয়ে হত্যা করা হয়েছে। এ সময় দুই যাত্রী গুরুতর আহত হয়েছে। পৃথক ট্রেন ও সড়ক দুর্ঘটনায় দুই নারীসহ চারজন নিহত হয়েছে। আরও তিনজনের অস্বাভাবিক মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া উত্তর বাড্ডা এলাকায় বেসরকারী কোম্পানিতে ডাকাতি হয়েছে। এ সময় দুর্বৃত্তরা ওই কোম্পানির তিন সিকিউরিটি গার্ডকে অচেতন করে মালামাল লুট করে নিয়ে যায়। সোমবার পুলিশ ও মেডিক্যাল সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, রবিবার গভীররাতে রাজধানীর তুরাগ থানাধীন আব্দুল্লাহপুর-আশুলিয়া বেড়িবাঁধের দৌড় চৌরাস্তায় একটি চলন্ত বাসে ডাকাতি হয়েছে। এক পর্যায়ে দুর্বৃত্তরা আব্দুল মোমিন (৩০) নামে এক যাত্রীকে ছুরিকাঘাত ও মারধর করে চলন্ত বাস থেকে ফেলে দিয়ে হত্যা করা হয়েছে। এ সময় ডাকাতরা রাজ্জাক ও রশিদের কাছ থেকে নগদ টাকা ও মোবাইল সেট ছিনিয়ে নিয়ে চলন্ত বাস থেকে ফেলে দেয়। খবর পেয়ে পুলিশ মধ্যরাতে মোমিনের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সোমবার সকালে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ মর্গে পাঠায়। নিহত মোমিনের বাবার নাম জামান মল্লিক। গ্রামের বাড়ি সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার চুনিয়াআতি গ্রামে। আহতরা হলেন- নিহত যুবকের ভগ্নিপতি আব্দুর রাজ্জাক ও তাদের প্রতিবেশী আব্দুর রশিদ। আহতদের বরাত দিয়ে তুরাগ থানার উপ-পরিদর্শক আব্দুল্লাহ আল জুয়েল জানান, রবিবার রাতে মোমিন তার ভগ্নিপতি আব্দুর রাজ্জাক ও প্রতিবেশী আব্দুর রশিদ হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে একটি যাত্রীবাহী বাসে ওঠেন। এ সময় আব্দুল্লাহপুরগামী ওই চলন্ত বাসের দরজা বন্ধ করে দিয়ে চালকসহ ছয়জন মিলে তাদের বেধড়ক মারপিট করে টাকা-পয়সা ছিনিয়ে নেয়া হয়। ধস্তাধস্তির এক পর্যায়ে চালক ও হেলপার বেশি দুর্বৃত্তরা যাত্রী আব্দুর মোমিন ছুরিকাঘাত করে। পরে দুর্বৃত্তরা আব্দুল্লাহ ও আশুলিয়া সড়কের দৌড় চৌরাস্তা তাদের চলন্ত বাস থেকে ফেলে দেয়। এ সময় ঘটনাস্থলে মোমিনের মৃত্যু হয়। আর তার ভগ্নিপতি রাজ্জাক ও রশিদ গুরুতর আহত হন। পরে মোমিনের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সোমবার ভোরের দিকে ঢামেক মর্গে পাঠান। আর রাজ্জাক ও রশিদকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এসআই জুয়েল আরও জানান, ওই রাতে রাজ্জাক ও রশিদের ছেলে ইরাকে যান। তাদের বিদায় জানাতে তারা বিমানবন্দরে এসেছিলেন।

ট্রেন ও সড়ক দুঘর্টনায় চারজনের মৃত্যু ॥ সোমবার ভোর ৪টার দিকে রাজধানীর বাড্ডার আদর্শ নগরে সড়ক দুর্ঘটনায় পিয়ারা বেগম (৫০) নামে এক নারীর মৃত্যু হয়েছে। নিহতের স্বামীর নাম মৃত কালাচাঁদ তালুকদার। গ্রামের বাড়ি শরীয়তপুর জেলার গোসাইরহাট থানা এলাকায়। নিহতের ছেলে আজিজুল হক জানান, মায়ের কিছুটা মানসিক সমস্যা ছিল। প্রায়ই বাড়ি থেকে বের হয়ে যেতেন তিনি। রবিবার রাতে মা বাড়ি থেকে বের হয়ে যান। অনেক খোঁজাখুঁজি করে তাকে পাওয়া যায়নি। পরে জানতে পারেন সড়ক দুর্ঘটনায় আহত মা আহত হয়ে ঢামেক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। পরে ঢাকা মেডিক্যালে মাকে দেখতে আসে। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সোমবার সকাল ৭টার দিকে তার মৃত্যু হয়। এদিকে রবিবার গভীররাতে চকবাজার রাজারঘাট এলাকায় দুই ট্রাক চাপায় আরশেদ বেপারি (৩০) নামে এক শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে। নিহতের গ্রামের বাড়ি শরীয়তপুর জেলার গোসাইরহাট থানার সিনামঘাট গ্রামে। তিনি রাজারঘাটের দাদা ট্রান্সপোর্টের শ্রমিক। চকবাজার থানার এসআই নাজিম জানান, এক ট্রাক থেকে মালামাল নামার সময় দাদা ট্রান্সপোর্টের আরেকটি ট্রাক তাকে চাপা দেয়। পরে তাকে গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে ঢামেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। পরে দুই ট্রাক চালককে আটক করা হয়েছে।

অপরদিকে সোমবার সকালে রাজধানীর গুলবাগ এলাকায় ট্রেনে কাটা পড়ে অজ্ঞাত (৩০) এক নারীর মৃত্যু হয়েছে। ঢাকা রেলওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আব্দুল মজিদ জানান, নিহত নারী মানসিক ভারসাম্যহীন ছিলেন বলে স্থানীয়রা জানিয়েছেন। খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ঢামেক মর্গে পাঠানো হয়েছে। অন্যদিকে একইদিন ভোর সাড়ে ৫টার দিকে রাজধানীর ক্যান্টনমেন্ট রেলস্টেশনের রেললাইনে থেকে অজ্ঞাত (২৫) এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। ওসি জানান, ক্যান্টনমেন্ট রেলস্টেশনের দক্ষিণ পাশের রেললাইনে ট্রেনে কাটা পড়ে ওই যুবকের মৃত্যু হয়। তার লাশও ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে।

হোটেল থেকে বোর্ডারের লাশ ॥ রাজধানীর দারুস সালাম মাজার রোডের গাবতলী হোটেল থেকে রোমান মিয়া (২০) নামে যুবকের লাশ উদ্ধার হয়েছে। সোমবার সকাল ৯টার দিকে পুলিশ ওই হোটেলের পঞ্চম তলার ৪১ নম্বর কক্ষ থেকে তার লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ঢামেক মর্গে পাঠানো হয়েছে। নিহতের বাবার নাম লাফুল মিয়া। গ্রামের বাড়ি সুনামগঞ্জ থানার দিরাই থানার রাধানগর গ্রামে। দারুস সালাম থানার উপ-পরিদর্শক নাসির উদ্দিন জানান, সকালে হোটেল কর্তৃপক্ষ খবর দিলে পুলিশ গিয়ে দরজা ভেঙ্গে লাশ উদ্ধার করে। লাশে আঘাতের কোন চিহ্ন নেই। তবে কি কারণে মৃত্যু হয়েছে, তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট হাতে পেলে আসল ঘটনা জানা যাবে। তিনি জানান, রোমান মিয়া ৭ তারিখ ওই হোটেলে উঠেন। তিনি বিদেশে যাওয়ার জন্য ট্রেনিং করছিলেন।

বিমানবন্দরের পার্কিংয়ে নারী লাশ ॥ রাজধানীর হযরত শাহজালাল (র) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের পার্টিং থেকে অজ্ঞাত (২৫) এক নারীর মরদেহ উদ্ধার হয়েছে। সোমবার দুপুরে পুলিশ বিমানবন্দর টার্মিনাল-২ এর পার্কিং এলাকার বাদাম গাছের নিচে থেকে মরদেহটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ঢামেক মর্গে পাঠায়। বিমানবন্দর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কামাল উদ্দিন জানান, ভোরের দিকে ওই নারী ‘পেটে ব্যথা, পেটে ব্যথা’ বলে আর্তনাদ করে টার্মিনাল-২ এর পার্কিং এলাকার বাদাম গাছের নিচে শুয়ে পড়ে। পরে পুলিশ গিয়ে ঘটনাস্থল থেকে দেখে ওই নারীর মৃত্যু হয়েছে।

সিঁড়ি থেকে পড়ে শ্রমিকের মৃত্যু ॥ রাজধানীর দক্ষিণখান এলাকার একটি নির্মাণধীন ভবনের সিঁড়ি থেকে পড়ে হাসু মিয়া নামে এক নির্মাণ শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে। নিহতের গ্রামের বাড়ি জামালপুর জেলার সদরের কালিয়ারচর গ্রামে। দক্ষিণখান থানার এসআই জাহানগীর আলম জানান, ওই ভবনের সিঁড়ি থেকে পড়ে গিয়ে শ্রমিক হাসু গুরুতর আহত। পরে তাকে উত্তরা কমিনিটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সোমবার সকাল ১১টার দিকে তার মৃত্যু হয়। পরে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ঢামেক মর্গে পাঠায়।

ডাকাতি ॥ রাজধানীর উত্তর বাড্ডা এলাকায় শমসের গ্রুপের কার্যালয়ে তিন সিকিউরিটি গার্ডদের অচেতন নগদ টাকা ও মূল্যবান মালামাল লুট করে নিয়ে গেছে দুর্বৃত্তরা। পরে নিরাপত্তা কর্মী মোজাম্মেল হক (৩০), নিজাম উদ্দিন (৩৫) ও লোকাস (৩২) অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করে ঢামেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।